kalerkantho

বুধবার । ৭ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


দর্শক হারানো স্টার জলসার নতুন কৌশল

মাহতাব হোসেন

।।   

১৮ অক্টোবর, ২০১৬ ১৫:৪৪



দর্শক হারানো স্টার জলসার নতুন কৌশল

কলকাতার স্টার জলসার প্রচুর বাংলাদেশি দর্শক রয়েছে। নিয়মিত ডেইলি সোপ গুলো দিয়েই এতদিন বাংলাদেশি দর্শক আটকে রেখেছিল।

কিন্তু সেই দর্শক অনেকটাই পিছিয়ে আসছে। কেন? এই উত্তর পরে দেই।

বাংলাদেশে নারীদের ওপর পরিচালিত এক জরিপে দেখা গেছে, তাদের শতকরা ষাট ভাগই ভারতীয় টেলিভিশন চ্যানেল স্টার জলসার দর্শক। বাংলাদেশে যেখানে কয়েক ডজন টেলিভিশন চ্যানেলে বহু রকম বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান চলে সারাদিন, সেখানে একটি ভারতীয় চ্যানেল কেন নারীদের কাছে এত বেশি জনপ্রিয়?

কয়েকজন নারী বলছেন ভারতীয় চ্যানেলের অনুষ্ঠানগুলো অনেক বেশি বৈচিত্র্যময় আর সব বয়সের মেয়েদের সঙ্গে বসে একসাথে দেখার মতো। তবে বাংলাদেশের একটি বেসরকারি টেলিভিশনের অনুষ্ঠান বিভাগের প্রধান বলছেন, ভালো মানের অনুষ্ঠানের সংকট আর অতিরিক্ত বিজ্ঞাপনের কারণেই বাংলাদেশি চ্যানেলগুলো থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন দর্শকরা। জরিপটি পরিচালনা করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পপুলেশন সায়েন্সেস বিভাগ।

কিন্তু এখন কেন স্টার জলসার দর্শক কমে যাচ্ছে? বাংলাদেশের দর্শকদের টানতে মানসম্মত টেলিভিশন সিরিজ দরকার ছিল। একটা সময় বিদেশি সিরিজগুলোর ডাবিং এ দেশে ব্যাপকভাবে জনপ্রিয় ছিল। ছিল সব শ্রেণির উন্মাদনা। সম্প্রতি বাংলাদেশের বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল দীপ্ত টিভি অনেকটাই স্টার জলসাকে ধাক্কা দিয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। চ্যানেলটি আজ থেকে বেশ কয়েক বছর আগেই এ দেশের সাধারণ দর্শকদের রুচি নিয়ে চিন্তা ভাবনা শুরু করে। সেভাবেই শুধু চিত্রনাট্য লেখার জন্য কর্মীদের নিয়ে টানা কর্মশালা করে। সেভাবেই অনুষ্ঠান তৈরি করতে থাকে। দীর্ঘ সময় পর চ্যানেলটি অন এয়ারে আসে।

স্টার জলসার সিরিয়ালগুলোর একটি বিশেষ দিক হচ্ছে এগুলো পারিবারিক পটভূমির ওপর তৈরি। একটি পরিবার মূলত কিছু ভালো খারাপ মানুষের সমন্বয়ে তৈরি হয়। এর ভেতর ভাঙা-গড়া, হাসি-আনন্দ সবকিছু মিলিয়ে একটি শুভ সমাপ্তিতে রূপ দেওয়া হয়। এই পলিসি দীপ্ত টিভি ধরে ফেলে। নির্মিত হতে থাকে দীপ্তর টেলিভিশন সিরিজ। আর এ জন্য দীপ্ত ঢাকার আশপাশে কয়েকটি নিজস্ব স্বকীয় স্টুডিও নির্মাণ করেছে।  

অতি সম্প্রতি দীপ্ত টিভি তাদের ডাবিং করা 'সুলতান সুলেমান' সিরিজের মাধ্যমে এ দেশের দর্শকদের বড় একটা অংশকে আটকে ফেলতে সক্ষম হয়। নারী ও মধ্যবয়সী দর্শকরাও সুলতান সুলেমানে মুগ্ধ। সুলতান সুলেমান এতটাই জনপ্রিয় সিরিজ যে এখন আর স্টার জলসার দিকে অধিকাংশ বাংলাদেশি দর্শক মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন। দীপ্ত টিভি ছাড়াও আরো বেশ কয়েকটি টেলিভিশন চ্যানেল বিদেশি জনপ্রিয় টেলিভিশন সিরিজগুলো নিয়ে আসতে শুরু করেছে। সেগুলো জনপ্রিয় হবে কি না সেটা পরের বিষয়। কিন্তু এই দর্শক কমে যাওয়া জলসা কর্তৃপক্ষ তো চুপ করে থাকতে পারেন না। তারাও নতুন কৌশল নিচ্ছেন।

নব্বইয়ের দশকের মাঝামাঝি প্রকাশিত হয় মার্কিন লেখক জর্জ আর আর মার্টিনের ফ্যান্টাসি সিরিজ 'আ সং অফ আইস অ্যান্ড ফায়ার' এর প্রথম উপন্যাস 'আ গেম অফ থ্রোনস'। ২০১১ সালে ওই উপন্যাস অনুসরণেই শুরু হয় এইচবিও ড্রামা সিরিজ 'গেম অফ থ্রোনস'। টেলিকাস্ট হওয়ার কিছুদিনের মধ্যেই উঠতে থাকে টিআরপি। আর এ বছর প্রাইমটাইম এমি অ্যাওয়ার্ডসে ৩৮টি পুরস্কার জিতে নিয়েছে এই জনপ্রিয় ধারাবাহিক।

স্টার জলসায় ইতিমধ্যেই একটি ধারাবাহিকের প্রোমো টেলিকাস্ট করা হচ্ছে। সেখানে রয়েছে শুধু একটি চরিত্রের নাম- সৌরজা। আর ধারাবাহিকের নাম রাখা হয়েছে 'অগ্নিজল'। টেলিভিশনের একটি বিশেষ সূত্রের খবর, এই 'অগ্নিজল'ই হতে চলেছে জলসার 'গেম অফ থ্রোনস'।  যদিও এই বিষয়ে এখন কিছুই বলতে চাইছেন না 'অগ্নিজল' এর প্রযোজক সংস্থা ভেঙ্কটেশ ফিল্মস এর প্রতিনিধি। তাঁর বক্তব্য, চ্যানেল কর্তৃপক্ষের নির্দেশে এই মুহূর্তে এই বিশেষ প্রোজেক্টটি নিয়ে কথা বলা বারণ। এখন স্টার জলসার ট্রাম্প কার্ড কতটুকু কাজে দেয় সেটাই দেখার বিষয়।


মন্তব্য