kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


কলকাতার যে ৫অভিনেত্রীর নগ্ন হতে আপত্তি নেই

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ অক্টোবর, ২০১৬ ১৮:২৩



কলকাতার যে ৫অভিনেত্রীর নগ্ন হতে আপত্তি নেই

প্রিয়াঙ্কা বোস (‘গাঙ্গোর’, ২০১০): বাংলা, সাঁওতালি ও ইংরেজি ভাষায় নির্মিত এই ছবির পরিচালক ছিলেন ইতালীয় পরিচালক ইতালো স্পিনেলি। এক সাঁওতালি মহিলা তাঁর শিশুকে যখন স্তন্যপান করাচ্ছে, তখন তার ছবি তোলে এক চিত্রসাংবাদিক।

সেই ছবিকে ঘিরে আবর্তিত হয় ফিল্মের কাহিনি। সেই স্তন্যদানের দৃশ্যে সাঁওতালি মা-এর ভূমিকায় অভিনয় করেন প্রিয়ঙ্কা বোস। এই দৃশ্যের প্রয়োজনে ক্যামেরার সামনে ঊর্ধ্বাঙ্গ উন্মোচন করেছিলেন তিনি।

স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায় (‘ডিটেকটিভ ব্যোমকেশ বক্সি’, ২০১৫): ‘ডিটেকটিভ ব্যোমকেশ বক্সি’ ছবিতে প্রায় নগ্ন হয়ে অভিনয় করেছিলেন স্বস্তিকা।

শুভ্রা বসু (‘পরম্পর’, ২০০৩):আর্ট কলেজে ন্যুড মডেল হিসেবে এক সময়ে কাজ করেছিলেন অমলিনা। বয়সকালে অর্থাভাবে নিজের পুত্রবধূ বুলিকেও একই পেশার দিকে ঠেলে দেন তিনি। এই ঘটনা নিয়েই গড়ে উঠেছে প্রণবকুমার দাশ পরিচালিত এই ছবি। বুলির চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন শুভ্রা বসু। ফিল্মের প্রয়োজনে একটি দৃশ্যে সম্পূর্ণ নগ্ন হয়েছিলেন শুভ্রা।

পাওলি দাম (‘ছত্রাক’, ২০১১): এই ফিল্মের দৃশ্যটি ইতিমধ্যেই ইন্টারনেটের বদৌলতে অনেকেরই দেখা হয়ে গেছে। এই দৃশ্যেও পাওলির সঙ্গী ছিলেন অনুব্রত। শ্রীলঙ্কান পরিচালক বিমুক্তি জয়সুন্দর পরিচালিত ফিল্মটির সেই বিখ্যাত দৃশ্যটিতে পাওলির সম্মুখ-নগ্নতা ধরা পড়েছিল।

ঋ (‘গান্ডু’, ২০১০):তালিকায় দ্বিতীয় নামটি বাঙালি অভিনেত্রী ঋ-এর। কিউ পরিচালিত এই ছবিতে সহ-অভিনেতা অনুব্রতর সঙ্গে একটি শয্যাদৃশ্যে সম্পূর্ণ নগ্ন হয়েছিলেন ঋ। তাঁর গোপনতম অঙ্গও ধরা পড়েছিল ক্যামেরায়। এর পরে ‘কসমিক সেক্স’ নামের আর একটি ফিল্মেও নগ্ন হয়ে অভিনয় করেছিলেন ঋ।  


মন্তব্য