kalerkantho


পূজায় সমরজিৎ রায়ের একক ‘গোধূলিবেলা’

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৬ অক্টোবর, ২০১৬ ১৬:০৪



পূজায় সমরজিৎ রায়ের একক ‘গোধূলিবেলা’

বাংলা ও হিন্দি গানের গুণী কণ্ঠশিল্পী সমরজিৎ রায়। ভারত ও বাংলাদেশে নিয়মিত গান করছেন তিনি।

এরই ধারাবাহিকতায় দুর্গাপূজা উপলক্ষে বাংলাদেশে বের হচ্ছে তার নতুন একক 'গোধূলিবেলা'। এটি প্রকাশ করছে বাংলা ঢোল।

'গোধূলিবেলা' অ্যালবামে রয়েছে ৮টি গান। একটি দ্বৈত গানে কণ্ঠ দিয়েছেন অন্বেষা। অ্যালবামের জন্য গানগুলো লিখেছেন ও সুর করেছেন মৃণাল চক্রবর্তী, পুলক বন্দোপাধ্যায়, বটকৃষ্ণ দে, জি কে দত্ত, অজয় দাস ও শিল্পী নিজে। সব গানের সংগীতায়োজন করেছেন রকেট মণ্ডল। এর মধ্যে অন্বেষার সঙ্গে গাওয়া গানটির পুনঃসংগীতায়োজন করেছেন জে কে মজলিশ।

'গোধূলিবেলা' অ্যালবাম নিয়ে আশাবাদী সমরজিৎ। তার মতে, ষাটের দশকের প্রতিচ্ছবি মিলবে তার গানগুলোর কথা, সুর ও গায়কীতে।

গানগুলো তৈরি করতে গিয়ে গুণী মানুষদের সান্নিধ্য পেয়েছেন তিনি। জানালেন, একটি গানের ভিডিও তৈরি করা হয়েছে। ইয়ামিন এলানের তৈরি করা ভিডিওটি এক্সক্লুসিভলি পাওয়া যাবে বাংলাফ্লিক্স ভিডিও চ্যানেলে। আপাতত সিডি আকারে প্রকাশ না হলেও ৮টি গানই শোনা যাচ্ছে বাংলা ঢোল অ্যাপস ওয়াপ, বাংলাঢোল ডটকম ও ৪৬৪৬ নম্বরে ডায়াল করে। গানগুলোর শিরোনাম হলো ভুলে যেতে ব'লো না, সুনয়নী, তোমার কাছে, নীলিমা, পথ চেয়ে থাকি, অভিমান, সেদিন আমার ও গোধূলিবেলা।  

৭ বছরে সমরজিতের অ্যালবামের সংখ্যা ৭টি। এর মধ্যে বাংলা অ্যালবামগুলো হলো শিল্পী অনুপ জালোটার সঙ্গে দ্বৈত 'অচেনা একটা দিন', একক অ্যালবাম 'এক চিলতে রোদ' ও রবীন্দ্রসংগীতের একটি দ্বৈত অ্যালবাম 'রবি রঞ্জনী'। বাংলাদেশে এটি তার তৃতীয় অ্যালবাম। শুক্রবার (৭ অক্টোবর) 'গোধুলিবেলা'র মোড়ক খোলা হবে।

হিন্দি অ্যালবামগুলো হলো 'ফিকর', 'প্রতিধ্বনি' ও 'তেরা তসব্বুর'। ২০১১ সালে ভারতের জিমা অ্যাওয়ার্ডসে 'সেরা জনপ্রিয় অ্যালবাম' বিভাগে মনোনয়ন পায় 'তেরা তসব্বুর'। এ বছরে বাংলাদেশে 'লাক্স আরটিভি স্টার অ্যাওয়ার্ড' এ সম্মানিত হন শিল্পী সমরজিৎ রায়।

বাংলাদেশের সন্তান শিল্পী সমরজিৎ রায় ভারত সরকারের বৃত্তি নিয়ে দিল্লির গান্ধর্ভ মহাবিদ্যালয়ে শাস্ত্রীয় সংগীতে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করেন ও সমগ্র ভারতের গান্ধর্ভ মহাবিদ্যালয়ের সংগীত বিশারদের পরীক্ষায় প্রথম স্থান অধিকার করায় অর্জন করেন ডি বি পলুস্কর অ্যাওয়ার্ডসহ ৮টি অ্যাওয়ার্ড। পরে দিল্লির গান্ধর্ভ মহাবিদ্যালয়ে তিনি প্রায় ১১ বছর শাস্ত্রীয় সংগীত বিষয়ে শিক্ষকতা করেন।


মন্তব্য