kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


শুধু 'ওরে নীল দরিয়া'র রয়ালটি দিয়েই আলম খানের চিকিৎসা সম্ভব

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৩:২১



শুধু 'ওরে নীল দরিয়া'র রয়ালটি দিয়েই আলম খানের চিকিৎসা সম্ভব

দেশ বরেণ্য সঙ্গীত পরিচালক আলম খান অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। গতকাল রবিবার বিকালে রাজধানীর শমরিতা হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হয়েছে।

২০১০ সালে আলম খানের ফুসফুসে ক্যানসার ধরা পড়ে। এরপরে তাকে চিকিৎসার জন্য ব্যাংককে নেওয়া হয়। সেখানে তার ফুসফুসে অস্ত্রোপচার করার পরে কিছু দিন ভালো থাকলেও পরে তিনি আবারও অসুস্থ হয়ে পড়েন।   ২০১৫ সালে তার হৃদযন্ত্রে ধরা পড়া একটি ব্লকে রিং-ও পড়ানো হয়েছে।

সঙ্গীতশিল্পী দিনাত জাহান মুন্নী ফেসবুকে লিখেছেন, সুরকার আলম খান। জীবনে কখনো ঔদ্ধত্য - রাগ-অহংকার- পরনিন্দা- লোভ যাকে ছুঁতে পারেনি। তার অসংখ্য সুপারহিট গানের তালিকার কিছু গান পরে স্ট্যাটাসে জানাবো। সারা পৃথিবীতে কোন শিল্পীকে সাহায্য চাইতে হয়না-কেবল আমাদের দেশেই চাইতে হয় । কারণ "রয়েলিটি" বলে সোনার হরিণটা এই গুনীজনরা দেখেননি। তাঁর অসংখ্য গানের কথা বাদই দিলাম কেবল তার " ওরে নীল দরিয়া " গানটির রয়েলিটি তাকে বুঝিয়ে দিন । নয়তো তার চিকিৎসার ভার রাষ্ট্র নিন । কারন তিনি এই দেশের গানের ইতিহাস নির্মাতাদের একজন । তিনি এখন অসুস্থ । '   

একজন ফেসবুক ইউজার লিখেছেন, আলম খানের রয়াল্টি যদি ঠিক মতো দেওয়া যায় তাহলে আলম খান অনেকগুলো ইমারত পাবেন। আর ওরে নীল দরিয়া গানের মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা রয়াল্টি তাঁর প্রাপ্ত।    মোবাইল ফোনে, রিংটোন দিয়েই শুধুমাত্র কোটি কোটি আয় করা হয়েছে।   যার রয়াল্টি পেলে আলম খানের ভালো চিকিতসা হতো।

গীতিকার কবির বকুল বলেন, তিনি (আলম খান) এখন শমরিতা হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। তার শরীরে অনেকগুলো সমস্যা রয়েছে। রবিবার বিকালে তাকে হাসপাতালে আনা হয়। তার শ্বাস কষ্টের সমস্যা হচ্ছে তাই তাকে নেবুলাইজার দেওয়া হয়েছে। বতর্মানে তিনি বেডে রয়েছেন। সেখানেই চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

আলম খানের কালজয়ী গানগুলোর মধ্যে রয়েছে ‘ওরে নীল দরিয়া’, ‘আমি একদিন তোমায় না দেখিলে’, ‘তুমি যেখানে আমি সেখানে’, ‘সবাই তো ভালোবাসা চায়’, ‘আমি রজনীগন্ধা ফুলের মতো’, ‘হায়রে মানুষ রঙিন ফানুস’, ‘জীবনের গল্প আছে বাকি অল্প’ ইত্যাদি।


মন্তব্য