kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


অভিনয় শিল্পী থেকে লেখক হয়েছেন যে বলিউড তারকারা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৫:২৮



অভিনয় শিল্পী থেকে লেখক হয়েছেন যে বলিউড তারকারা

১. দ্বিতীয় বই প্রকাশের তোড়জোড় চালাচ্ছেন টুইঙ্কেল অভিনেতা থেকে উদ্যোক্তা এবং লেখক হওয়া টুইঙ্কেল খান্না এখন তার দ্বিতীয় বইটি প্রকাশের জন্য কাজ করছেন। গত ২৩ সেপ্টেম্বর এক টুইটার বার্তায় এমনটাই জানিয়েছেন সাবেক বলিউড অভিনেত্রী টুইঙ্কেল খান্না।


২০১৫ সালে প্রকাশিত হয় টুইঙ্কেল খান্নার প্রথম বই, “মিস ফানি বোনস”। প্রত্যাশা করা হচ্ছে দ্বিতীয় বইটিতেও টুইঙ্কেলের সজীব ও রসাত্মক পর্যবেক্ষণের ছাপ দেখা যাবে।
২. শাহরুখ খান
এক টক শোতে প্রবীণ অভিনেতা অনুপম খের জানান শাহরুখ খান “টুয়েন্টি ইয়ারস অফ অ্যা ডিকেড” নামে আত্মজীবনীমূলক একটি বই লিখতে চেষ্টা করেছিলেন। বাবার পদাঙ্ক অনুসরণ করেই অভিনয়ে নাম লেখাতে চলেছেন শহারুখ তনয়া সুহানা। আর অভিনয়ে কীভাবে ভালো করা যাবে সুহানাকে শুধু সেই বিষয়ে পরামর্শ দেওয়ার জন্য এখন একটি বই লিখছেন শাহরুখ। বইটির শিরোনাম, “টু সুহানা, অন অ্যাক্টিং, ফ্রম পাপা”।
৩. শিল্পা শেঠি
বলিউডের বিকাশমান লেখকদের মধ্যে গুরুত্বর্পূর্ণ আরেকজন লেখক হলেন, অভিনেত্রী থেকে উদ্যোক্তা হয়ে ওঠা শিল্পা শেঠি। সম্প্রতি মুম্বাইয়ে নিজের প্রথম বইটির মোড়ক উন্মোচন করেছেন শিল্পা শেঠি। বইটির নাম, “দ্য গ্রেট ইন্ডিয়ান ডায়েট”। পুষ্টিবিদ লিউক কৌটিনহোর সঙ্গে মিলে শিল্পা শেঠি বইটি লিখেছেন।
৪. সোনালি বেন্দ্রে
অভিনেত্রী এবং রিয়েলিটি শো বিচারক সোনালি বেন্দ্রেও একটি বই প্রকাশ করে লেখকের খাতায় নাম লিখিয়েছেন। তার বইয়ের নাম, “দ্য মডার্ন গুরুকুল: মাই এক্সপেরিমেন্টস উইথ প্যারেন্টিং”। বইটিতে সোনালি আধুনিকতা এবং ঐতিহ্যবাহী সংস্কৃতির সমন্বয় সাধনের উপায় নিয়ে পরামর্শ দিয়েছেন। আর নিজের অভিজ্ঞতা থেকে ডিজিটাল যুগে বাচ্চা লালন-পালনের কিছু পরামর্শও দিয়েছেন তিনি।
৫. ইমরান হাশমি
সিনেমার পর্দায় সিরিয়াল কিসার হিসেবে খ্যাত ইমরান হাশমি একজন ভালো বাবা এবং উৎসর্গীকৃত পারিবারিক ব্যক্তিত্ব। তিনি তার ছেলে আয়ানের ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াইয়ের গল্প নিয়ে একটি বই লিখছেন। বইটিতে হাশমি ব্যক্তিগত ও আবেগঘন অনেক ঘটনার বিবরণ দিয়েছেন। যাদের কোনো প্রিয়জন ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াই করছেন তাদের জন্য বইটি সহায়ক হতে পারে।
৬. আয়ুষ্মান খুররানা
মডেল-অভিনেতা-গায়ক-গানলেখক-আরজে আয়ুষ্মান খুররানা নিজের পরিচিতির মুকুটে আরেকটি পালক গুজেছেন। ২০১৫ সালে “ক্র্যাকিং দ্য কোড” নামের একটি বই প্রকাশ করার মাধ্যমে তিনি লেখক হিসেব আবির্ভুত হয়েছেন। বইটিতে আয়ুষ্মান খুররানা বলিউডে কীভাবে ধাপে ধাপে ক্যারিয়ারে উন্নতি করা সম্ভব তার দিক-নির্দেশনা দিয়েছেন। নিজের প্রত্যক্ষ ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে বইটি লিখেছেন তিনি।
৭. নাসিরুদ্দিন শাহ
প্রবীণ অভিনেতা নাসিরুদ্দিন শাহ ৬৪ বছর বয়সে স্মৃতিকথামূলক একটি বই প্রকাশ করে লেখকের খাতায় নাম লিখিয়েছেন। তার বইটির নাম “অ্যা মেমোয়ার: অ্যান্ড দ্যান ওয়ান ডে”। ২০১৪ সালে বইটি প্রকাশিত হয়। বইটিতে নাসিরুদ্দিন শাহ তার জীবনের অভিজ্ঞতাগুলো সততার সঙ্গে তুলে ধরেছেন। নতুন অভিনয় শিল্পীদের প্রশিক্ষণের জন্যও একটি বই লেখার কথা জানিয়েছেন নাসিরুদ্দিন।
৮. আনু আগারওয়াল
আশিকি খ্যাত অভিনেত্রী আনু আগারওয়াল নিজেকে আবিষ্কারমূলক গল্প নিয়ে একটি আত্মজীবনীমূলক বই লিখেছেন। “আনুশুয়াল: মেমোয়ার অফ অ্যা গার্ল হু কাম ব্যাক ফ্রম দ্য ডেড” বইটিতে তিনি নিজের মৃত্যুর কাছাকাছি একটি অভিজ্ঞতা অর্জন এবং তা থেকে আরোগ্য লাভের গল্পের বিবরণ দিয়েছেন। ২০১৫ সালের আগস্টে বইটি প্রকাশিত হয়।
বইটিতে ৯০-র দশকে বলিউডে নিজের প্রথম সিনেমায় অভিনয় করতে দিল্লি থেকে মুম্বাই যাত্রা, উত্তরাখণ্ডের আশ্রমগুলোতে যোগীর জীবন যাপনের গল্প নিয়ে লিখেছেন আনু আগারওয়াল। মুম্বাই ফিরে আসার পর গুরুতর একটি সড়ক দুর্ঘটনায় বেঁচে যান আনু। এরপর তিনি যোগ ব্যায়ামের প্রশিক্ষণ দেওয়ার জন্য একজন সন্নাসীনির জীবন বেছে নেন। মিলিয়নিয়র থেকে যোগী হওয়া তার জীবনের পুরুষটিকে নিয়েও তিনি লিখেছেন।
৯. অনুপম খের
অভিনেতা অনুপম খেরের বইয়ের শিরোনাম, “দ্য বেস্ট থিং অ্যাবাউট ইউ ইজ ইউ”। ২০১১ সালে বইটি প্রথম প্রকাশিত হয়। বইটিতে তিনি নিজের জীবন-যাত্রার অভিজ্ঞতা তুলে ধরেছেন। এটি পড়ে যে কেউই জীবনের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণের প্রয়োজনীয় পরামর্শগুলো পেতে পারেন। এক টুইটার বার্তায় এই লেখক “লেসনস লাইফ হ্যাজ টট মি” নামের আরেকটি বই লেখার কথাও জানিয়েছেন। বইটিতে তিনি বাবা-মা এবং পেশাগত জীবন থেকে যেসব শিক্ষা পেয়েছেন সেসব তুলে ধরেছেন। জীবন-যাত্রার পাথেয় হিসেবে তরুণদের জন্য কাজে লাগার মতো একটি বই। এই বইটিই প্রমাণ অর্থপূর্ণ এবং গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে লেখা বইয়ের লেখার ধরণও একটু হালকা মেজাজের হয়ে থাকে।
সূত্র: টাইমস অফ ইন্ডিয়া


মন্তব্য