kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ঈদের ৩ ছবি দর্শকদের হলে ফিরিয়েছে

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৫:২৭



ঈদের ৩ ছবি দর্শকদের হলে ফিরিয়েছে

সারাদেশের সিনেমা হলগুলোতে দর্শকেরা ফিরতে শুরতু করেছে। দেশের বহু সিনেমা হলে এবার ঈদে লাইন ধরে টিকেট কাটতে হয়েছে।

এছাড়াও শো মিস করে পরের শো কিংবা তারপরের শোতে-ও ছবি দেখতে হয়েছে। নতুন নির্মাতাদের কাছে এ যেন নতুন অনুপ্রেরণা।   এবারের কোরবানি ঈদে তিনটি সিনেমা মুক্তি পেয়েছে। ওয়াজ্বেদ আলী সুমনের রক্ত, রাজু চৌধুরীর শুটার ও শামিম আহমেদ রনীর বসগিরি।   রক্ত সিনেমায় পরীমণির বিপরীতে অভিনয় করেছেন নবাগত রোশান। শুটার ও বসগিরি সিনেমার নায়ক শাকিব খান ও নায়িকা নবাগত শবনম বুবলী।  

কোরবানি ঈদে সারাদেশে মুক্তিপ্রাপ্ত এই তিন সিনেমার মধ্যে প্রেক্ষাগৃহ বুকিংয়ের দিক থেকে সবচেয়ে বেশি এগিয়ে ছিল শুটার। এই সিনেমাটি ১৪৮টি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে। ৯৩টি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা বসগিরি। আর কম সংখ্যক হলে অর্থাত্ ৬৩টি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে রক্ত। যৌথ প্রযোজনার এই সিনেমাটির হলের সংখ্যা কম হলেও ভালো অভিজাত প্রেক্ষাগৃহ পেয়েছে।

জাজ কোনো হলে এক লাখ টাকার নিচে বুকিং করেনি ছবিটি। সবমিলিয়ে জাজ ৭০ লাখ টাকার মত টেবিলে পেয়েছে বুকিং মানি হিসেবে। জাজ সংশ্লিষ্ট একজন জানান, ছবিটি আমরা যেভাবে ভেবেছিলাম ওইভাবেই সেল পাচ্ছি। আস্তে আস্তে সেল বাড়ছে। ঈদের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে আরো বেশি হলে ছবিটি চলবে। আশা করছি লাভসহ পুরো টাকা আমরা ঘরে তুলতে পারব।

বসগিরি নিয়ে শামীম আহমদে রনী বলেন, আমি মনে করি বসগিরি ঈদের সেরা ব্যবসা সফল সিনেমা। সব হলেই দর্শকদের উপচে পড়া ভিড়। শুধু মাল্টিপ্লেক্স সিনেমা হলগুলোতেই নয়, সিনেমা দেখতে সাধারণ হলেও দর্শকরা ভিড় করছে। নতুন মুখের জয়জয়কার সর্বত্র। কিংখানের সঙ্গে নবাগত বুবলীর রসায়নটা দর্শক গ্রহণ করেছে।   দর্শক এ নবাগতাকে বেশ সাদরেই গ্রহণ করেছে। মূলত কমেডির পাশাপাশি অ্যাকশন থাকায় সাধারণ দর্শকরা ছবিটি উপভোগ করছেন।   রনী বলেন, আমি ‘চম্পাকলি’, ‘অভিসার’, ‘স্টার সিনেপ্লেক্স’সহ অনেকগুলো হলে ঘুরেছি। দর্শকদের কাছ থেকে যা আশা করেছিলাম তার চেয়েও বেশি সাড়া পাচ্ছি। দ্বিতীয় সপ্তাহে আমাদের ছবিটি যেসব বড় হল প্রথম সপ্তাহে পায়নি, সেসব হলে ঢুকবে। বলতে পারেন দ্বিতীয় সপ্তাহে আমাদের ব্যবসা আরো বাড়বে। জাজ মাল্টিমিডিয়ার পরিবেশনায় ছবিটি ৯৩টি হলে মুক্তি পেয়েছে প্রথম সপ্তাহে। সেখানে টেবিল কালেকশন প্রায় এক কোটি পঁচিশ লাখের মত। পরিবেশকরা আশা করছেন ছবিটি দু’কোটি টাকার ওপরে আয় করবে।

এদিকে, মুক্তির আগেই ত্রিশ লাখ টাকা লাভের দাবি করছেন ‘শুটার’ প্রযোজক মো. ইকবাল। তিনি বলেন, আমার ছবি অন্যদের তুলনায় কম বাজেটের তাই আমি মুক্তির আগেই লাভের টাকা আনতে পেরেছি। প্রযোজক না বললেও ছবি সংশ্লিষ্ট একজন নাম না প্রকাশের শর্তে জানান ছবিটি্র পিছনে মুক্তিসহ নব্বই লাখ টাকা খরচ হয়েছে। টেবিল কালেকশন হয়েছে এক কোটি বিশ লাখ টাকা। এরপর তো শেয়ার মানি বাকি রয়েছে।

ছবি মুক্তির এক সপ্তাহের মধ্যেই এই আশার আলো বাংলা ছবিতে বিনিয়োগ বাড়াতে সহায়ক হবে বলে মনে করেন চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরা। দর্শরাও হলমুখী হচ্ছেন এটা ইতিবাচক বিষয়।


মন্তব্য