kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


নেপালের পর পাকিস্তানেও বন্ধ হচ্ছে ভারতীয় চ্যানেল!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২২:৫১



নেপালের পর পাকিস্তানেও বন্ধ হচ্ছে ভারতীয় চ্যানেল!

ভারতীয় চ্যানেলগুলো পাকিস্তানে ব্যাপক জনপ্রিয়। কিন্তু পাকিস্তানে সম্প্রচারিত বিদেশি টিভি চ্যানেলের বিষয়বস্তুতে আপত্তি তুলেছে পাকিস্তান ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া রেগুলেটরি অথরিটি (পিইএমআরএ)।

বিদেশি কেবল অপারেটর ও টিভি চ্যানেলগুলোর সম্প্রচারের উপর এবার কড়া হাতে রাশ টানছে পাকিস্তান। আসন্ন সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে পাকিস্তানে ডিটিএইচ পরিষেবা চালু হচ্ছে। তার আগে এই নতুন নিয়ম লঘু করে কি প্রতিযোগিতায় এগিয়ে থাকতে চাইছে ইসলামাবাদ, প্রশ্ন বিশেষজ্ঞ মহলের একাংশের! একইসঙ্গে যে কোনও ভারতীয় টিভি চ্যানেলের সম্প্রচার অবিলম্বে বন্ধ করারও নির্দেশ দিয়েছে পিইএমআরএ।

গতকাল বুধবার পিইএমআরএ চেয়ারম্যান আবসার ইসলাম জানিয়েছেন, কেবল অপারেটর ও স্যাটেলাইট চ্যানেলগুলিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, বিদেশি বিষয়বস্তু সম্প্রচার নিয়ন্ত্রিত করতে হবে। প্রাইম টাইমে বিদেশি অনুষ্ঠান দেখানো যাবে না। অক্টোবরের ১৫ তারিখের মধ্যে বিদেশি চ্যানেলগুলোর কর্তৃপক্ষকে তাদের শোয়ের সময়সীমা পুনর্বিবেচনার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ভারতীয় ডিটিএইচ পরিষেবা প্রদানকারী সংস্থাগুলির ডিলারদের বিরুদ্ধে অবিলম্বে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। মোট ২৪ ঘণ্টা এয়ার টাইমের মধ্যে মাত্র ১০% সময় বরাদ্দ করা হয়েছে বিদেশি অনুষ্ঠান দেখানোর জন্য। অবশ্য এই প্রথম নয়, এর আগেও একাধিকবার ভারতীয় চ্যানেলের প্রদর্শন বন্ধ করার চেষ্টা হয়েছে পাকিস্তানে, কিন্তু প্রতিবারই দর্শকদের চাপে পড়ে ভারতীয় চ্যানেলের সম্প্রচার জারি রাখতে হয়েছে।

 পাকিস্তান ইলেকট্রনিক মিডিয়া রেগুলেটরি অথরিটি (পেমরা) সে দেশের যে চ্যানেলগুলি বেআইনি ভাবে ভারতীয় চ্যানেলে সম্প্রচারিত কনটেন্ট দেখাচ্ছে বলে অভিযোগ, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছে। পেমরা প্রধান আবসার আলম জানিয়েছেন, যেসব চ্যানেল লাগতার মডেল আচরণবিধি নিয়মিত ভাঙছে, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, এর আগে নেপালে ভারতীয় টেলিভিশন চ্যানেল আজ গত বছরের সেপ্টেম্বরের শেষ দিকে থেকে বন্ধ করে দেওয়ার ঘোষণা দেয় দেশটির কেব্‌ল টিভি অপারেটররা। নতুন সংবিধান প্রণয়নকে কেন্দ্র করে নেপালের ওপর অনানুষ্ঠানিক অবরোধ আরোপ ও দেশটির অভ্যন্তরীণ বিষয়ে ভারতের নাক গলানোর অভিযোগ তুলে এর প্রতিবাদে এ সিদ্ধান্ত নেন তাঁরা।


মন্তব্য