kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সুমির একক আবৃত্তি সন্ধ্যা ‘মেঘ বৃষ্টি রোদে’

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৭:২৪



সুমির একক আবৃত্তি সন্ধ্যা ‘মেঘ বৃষ্টি রোদে’

আবৃত্তি শিল্পী মাহমুদা সিদ্দিকা সুমি। দেশের প্রতিভাবান এবং জনপ্রিয় আবৃত্তিশিল্পীদের মধ্যে অন্যতম।

আবৃত্তিশিল্পের সঙ্গে যুক্ত আছেন দুই দশকেরও অধিক সময় ধরে। এশিল্পের বিকাশ, প্রচার এবং প্রসারের আন্দোলনে ভূমিকা রাখছেন এই নিবেদিত কর্মী। নৈমত্তিক জীবনে আবৃত্তিই তার ধ্যান জ্ঞান। কারণ সুমি বিশ্বাস করেন আবৃত্তি একদিকে মানুষকে যেমন ভালবাসতে শেখায় তেমনি অন্যায়ের বিরুদ্ধে সুদৃঢ়ভাবে দাঁড়াতে শেখায়। তাই আবৃত্তির শক্তিতেই মেঘ-বৃষ্টি-রোদে মানুষের পাশে দাঁড়াতে এবং কাব্যের মাঝেই বেঁচে থাকতে চান তিনি। আবৃত্তিশিল্প চর্চার ধারাবাহিকতায় আগামী ২ সেপ্টেম্বর শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় রাজধানীর পাবলিক লাইব্রেরীর শওকত ওসমান মিলনায়তনে আবৃত্তি শিল্পী মাহমুদা সিদ্দিকা সুমির ‘মেঘ বৃষ্টি রোদে’ শীর্ষক একক আবৃত্তি সন্ধ্যার আয়োজন করেছে মুক্তধারা আবৃত্তি চর্চা কেন্দ্র। অনুষ্ঠানে শিল্পী জনপ্রিয় কবিতা আবৃত্তির পাশাপাশি নিজের পছন্দের কবিতা আবৃত্তি করবেন।

মাহমুদা সিদ্দিকা সুমি ১৯৭৭ সালের জন্ম ১৬ নবেম্বর। ইডেন মহিলা বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ থেকে উদ্ভিদ বিজ্ঞানে সম্মানসহ স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন শেষে লাইসিয়াম কলেজে অধ্যাপনা করছেন। বাবা মোঃ আব্দুল খালেক বাংলাদেশ জুট কর্পোরেশনের ডেপুটি ম্যানেজার হিসেবে অবসর গ্রহণ করেছেন, মা মজিদা বেগম অবসর প্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক। স্বামী আতিকুর রহমান সিনিয়র এম আই এস অফিসার পদে একটি এনজিওতে কর্মরত। মুগ্ধ নামে এক পুত্র সন্তানের জননী সুমি।
ছোটবেলা থেকে সংস্কৃতির সঙ্গে তার বন্ধুত্ব। স্কুল কলেজের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে আবৃত্তি, উপস্থাপনা, বিতর্ক, একক অভিনয়, রচনা প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হয়েছেন অনেকবার। স্কুল কলেজের দেয়াল পত্রিকা, ম্যাগাজিনেও তার লেখা প্রকাশিত হয়েছিল। গান তার খুব প্রিয়। সংস্কৃতির সকল ধারা আর্কষণ করলেও আবৃত্তিই তার মূল চর্চার বিষয়।
১৯৯৫ সাল থেকে মুক্তধারা আবৃত্তি চর্চা কেন্দ্রের সদস্য হিসেবে বিভিন্ন সময়ে নানা সাংগঠনিক দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০০৯ থেকে বর্তমান পর্যন্ত সংগঠনে অর্থ-সম্পাদকের দায়িত্বও পালন করছেন। মুক্তধারার প্রায় সকল বৃন্দ ও প্রযোজনায় অংশগ্রহণ এবং আয়োজিত অনুষ্ঠানে একক আবৃত্তি পরিবেশন ছাড়াও বাংলাদেশ আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদ, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটসহ বিভিন্ন সংগঠন ও সরকারি বেসরকারি নানা প্রতিষ্ঠানের আমন্ত্রণে ও বিভিন্ন জাতীয় অনুষ্ঠানে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে আবৃত্তি পরিবেশন ও অনুষ্ঠান উপস্থাপনা এবং বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে আবৃত্তি পরিবেশন করেছেন। সুমি বাংলাদেশ আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদ ও বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির যৌথ আয়োজনে আবৃত্তির নিয়মিত অনুষ্ঠান ‘এই তো জীবন এই তো মাধুরী’তে ৩০মিনিট একক আবৃত্তি পরিবেশন করেন। তার গ্রন্থিত আবৃত্তি পান্ডুলিপি সমুহ হলো ‘জন্মভূমি’, ‘হে নতূন প্রণমি তোমারে’, ‘আলোকিত চৈতন্যের স্বরে’, ‘দ্বিধাহীন অভিযাত্রা’, ‘ঐক্যে বাঁধি বাংলার স্বাধীনতা’। তিনি মুক্তধারার উল্লেখযোগ্য প্রযোজনা সমুহের মধ্যে অন্যতম প্রযোজনা ‘নক্ষত্রের মৃত্যু’, ‘কৃষ্ণপক্ষে পূর্ণিমা’ গ্রন্থনা করেছেন ও নির্দেশনা দিয়েছেন। সুমি মুক্তধারা আয়োজিত হৃদয়ে-চৈতন্যে-বোধে ৩০ মিনিটের একক আবৃত্তি অনুষ্ঠানে আবৃত্তি পরিবেশন করেন। সুমি মুক্তধারা প্রকাশিত আবৃত্তি এ্যালবাম ‘হৃদয়ে-চৈতন্যে-বোধে-১’ এ অংশগ্রহণ করেন।


মন্তব্য