kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।

ঈদের ছবি

১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



ঈদের ছবি

‘বসগিরি’তে শাকিব খান ও বুবলি। এই জুটি আছেন ‘শুটার’-এও

বসগিরি

পরিচালক : শামীম আহমেদ রনি

কাহিনি : দেলোয়ার হোসেন দিল

সংগীত : আকাশ, ইমরান ও শওকত আলী ইমন।

অভিনয়ে : শাকিব খান, শবনম বুবলি, রজতাভ দত্ত, অমিত হাসান প্রমুখ।

 

গল্পসূত্র : শহরের ত্রাস শাকিব। সন্ত্রাসীরাও তার ভয়ে এলাকা ছাড়ে। ভয়ংকর এই মানুষটার ভেতরটা খুব নরম। গরিব-দুঃখীদের সাহায্য করে। একদিন মারপিট করার সময় দেখা হয় বুবলির সঙ্গে। প্রথম দেখাতেই প্রেম। পিছু নেয় বুবলির। কিন্তু কোনো সন্ত্রাসীর সঙ্গে প্রেম করতে রাজি নয় বুবলি।

 

পরিচালকের বক্তব্য : গল্প সাধারণ হলেও সংলাপগুলো দারুণ। অ্যাকশনের পাশাপাশি কমেডি ও প্রেম রাখার চেষ্টা করেছি। শাকিবের লুকটাও দারুণ। কালার কারেকশন, সম্পাদনা, গান—সব কিছুতেই নতুনত্বের ছোঁয়া পাবে দর্শক। ছবির অন্যতম আকর্ষণ নায়িকা বুবলি। এটা তাঁর প্রথম ছবি। আশা করছি, তিনি দর্শকের মন জয় করতে পারবেন।

শুটার

পরিচালক : রাজু চৌধুরী

কাহিনি : দেলোয়ার হোসেন দিল

সংগীত : জাভেদ আহমেদ কিসলু

অভিনয়ে : শাকিব খান, সম্রাট, শাহরিয়াজ, বুবলি প্রমুখ।

 

গল্পসূত্র : সূর্যকে সবাই শুটার সূর্য নামে চেনে। তার নিশানা কখনো ভুল হয় না। অর্ডার নিয়ে মানুষ খুন করে। শহরের বড় সন্ত্রাসীর সঙ্গে তার দ্বন্দ্ব। সূর্যকে মারার জন্য আরেক শুটার সম্রাটকে ভাড়া করে সে। কিন্তু সম্রাট জানত না জেলে থাকার সময় তার মাকে সূর্যই দেখাশোনা করেছে। সূর্যকে গুলি করতে গিয়ে দেখা পায় মায়ের। এবার সূর্যের শত্রুদের বিরুদ্ধে মাঠে নামে সম্রাটও।

 

পরিচালকের বক্তব্য : কোরবানির ঈদে দর্শকরা যে ধরনের ছবি দেখতে পছন্দ করে ‘শুটার’ তেমন একটি ছবি। কাস্টিংয়েও রয়েছে নতুনত্ব। এই প্রথম শাকিবের সঙ্গে সম্রাট ও শাহরিয়াজ অভিনয় করল। অ্যাকশন দৃশ্যগুলো বেশ ভালো। দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতা দিয়ে ছবিটি নির্মাণ করেছি। দর্শকদের ভালো লাগবে বলে বিশ্বাস।

 

রক্ত

পরিচালক : ওয়াজেদ আলী সুমন

কাহিনি : আব্দুল্লাহ জহির বাবু

সংগীত : আকাশ ও স্যাভি

অভিনয়ে : পরীমণি, রোশন, রজতাভ দত্ত, অমিত হাসান প্রমুখ।

 

গল্পসূত্র : গোয়েন্দা সংস্থায় কাজ করে সামিয়া। তার সাহস ও বুদ্ধি দেখে মুগ্ধ সংস্থার প্রধান। তাকে একটি প্রত্যন্ত অঞ্চলে থাকা জঙ্গিদের ধ্বংস করার দায়িত্ব দেওয়া হয়। দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে আহত হয় সামিয়া, স্মৃতি হারিয়ে ফেলে। নতুন নাম হয় নুরি। গ্রামে বেড়ে ওঠে সে। এক দুর্ঘটনায় পুরনো স্মৃতি ফিরে পায় নুরি। এবার মরিয়া ওয়ে নামে জঙ্গি নির্মূলে। মিশন শেষে পায় রাষ্ট্রীয় পুরস্কার।

 

পরিচালকের বক্তব্য : এই প্রথম অ্যাকশন ভূমিকায় পর্দায় আসবে পরীমণি। এই ছবির জন্য মারপিট শিখেছে। শুটিং করেছি বাংলাদেশ ও ভারতের বিভিন্ন লোকেশনে। অনেক বড় ক্যানভাসের ছবি বানিয়েছি। ট্রেলার দেখে অনেকেরই ভালো লেগেছে।   আশা করি, দর্শকও লুফে নেবে।


মন্তব্য