kalerkantho


নবম ও দশম শ্রেণি

বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়

শামীমা ইয়াসমিন, প্রভাষক, রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ, ঢাকা

১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়

একক পরিবার বলতে স্বামী-স্ত্রী এবং শুধু তাদের সন্তানদের নিয়ে যে পরিবার গঠিত হয়, তাদের বোঝায়। বর্তমানে শহরাঞ্চলে এ ধরনের পরিবার দেখা যায়

সৃজনশীল প্রশ্ন

ত্রয়োদশ অধ্যায়

উদ্দীপকটি পড়ে সংশ্লিষ্ট প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও

জনাব বেলাল তাঁর স্ত্রী ও সন্তান রিমীকে নিয়ে তাঁদের সুখের সংসার। কিন্তু নিষ্ঠুর কোন অপশক্তি কেড়ে নিল বেলাল ও তাঁর স্ত্রীর প্রাণ। পিতৃ-মাতৃহীন হয়ে যায় তাঁদের একমাত্র সন্তান ‘রিমী’।

ক) সামাজিকীকরণ কোন ধরনের প্রক্রিয়া?

খ) ‘বিবাহ পরিবার গঠনের অন্যতম পূর্বশর্ত’—ব্যাখ্যা করো।

গ) আকারের ভিত্তিতে জনাব বেলালের পরিবার সম্পর্কে বর্ণনা করো।

ঘ) উদ্দীপকের ‘রিমী’ তার জীবনে সামাজিকীকরণে কোন মাধ্যমটির অভাববোধ করবে? তা বিশ্লেষণ করো।

উত্তর : ক) সামাজিকীকরণ একটি জীবনব্যাপী প্রক্রিয়া।

খ) পরিবার গঠনের অন্যতম পূর্বশর্তই হলো বিয়ে। ‘বিবাহ পরিবার গঠনের অন্যতম পূর্বশর্ত’—এর ব্যাখ্যা করলে দাঁঁড়ায় একজন পুরুষ সমাজ স্বীকৃত উপায়ে একজন নারীকে বিয়ে করে একটি পরিবার গঠন করে। আদিম সমাজেও পরিবারের অস্তিত্ব ছিল। সে সমাজে বিয়ে ব্যতিরেকেই পরিবার গঠিত হতো। আমাদের সমাজে এটা সম্ভব নয় বিধায় বিয়ে পরিবার গঠনের অন্যতম পূর্বশর্ত।

গ) উদ্দীপকে আকারের ভিত্তিতে জনাব বেলালের পরিবারটি একটি একক পরিবারকেই নির্দেশ করে। পরিবার হলো সমাজকাঠামোর মৌল সংগঠন ও গোষ্ঠী জীবনের প্রথম ধাপ। পরিবারের প্রকারভেদে আকারের ভিত্তিতে পরিবারকে তিন ভাগে ভাগ করে একক বা পরিবার, যৌথ পরিবার ও বর্ধিত পরিবার পেয়ে থাকি। উদ্দীপকে দেখা যায়, জনাব বেলালের স্ত্রী ও সন্তান রিমীকে নিয়ে সুখের সংসার তাঁদের, যা পরিবারের আকারের ভিত্তিতে একক একটি সুখী পরিবার। একক পরিবার বলতে স্বামী-স্ত্রী এবং শুধু তাদের সন্তানদের নিয়ে যে পরিবার গঠিত হয়, তাদের বোঝায়। বর্তমানে শহরাঞ্চলে এ ধরনের পরিবার দেখা যায়।

সুতরাং আকারের ভিত্তিতে বেলালের সঙ্গে একক বা অণু পরিবারের সম্পর্ক রয়েছে।

ঘ) উদ্দীপকের রিমী তার জীবনে সামাজিকীকরণের পরিবার ও পরিবারের সদস্যের মাধ্যমটির অভাব বোধ করবে। পরিবারের মাধ্যমেই সামাজিক নীতিবোধ ও নাগরিক চেতনার সূচনা হয়। একটি পরিবারের মধ্যে প্রধান যে বিষয়টি শিশুর সামাজিকীকরণে ভূমিকা রাখে তা হলো মা ও বাবা এবং তাদের মধ্যকার সম্পর্ক। উদ্দীপকে দেখা যায় যে জনাব বেলাল তাঁর স্ত্রী ও সন্তান রিমীকে নিয়ে তাঁদের সুখের সংসার। কিন্তু নিষ্ঠুর কোনো অপশক্তি কেড়ে নিল বেলাল ও তাঁর স্ত্রীর প্রাণ। ফলে পিতৃ-মাতৃহীন হয়ে যায় তাঁদের একমাত্র সন্তান। উদ্দীপকে রিমী তার জীবনে সামাজিকীকরণের উপস্থিত ‘পরিবার’ তথা পরিবার ও পরিবারের সদস্যদের অভাব বোধ করবে। শিশুর সবচেয়ে কাছের মানুষ হলো মা-বাবা। আবার মা-বাবা এ দুজনের মধ্যে অধিকতর কাছের হলেন মা। মা শিশুর খাদ্যাভ্যাস গঠন ও ভাষা শিক্ষার প্রথম মাধ্যম। মা শৈশবে শিশুকে যেসব খাদ্যের প্রতি ঝোঁক সৃষ্টি করবেন, শিশুর পরবর্তী জীবনের আচরণে এর প্রভাব লক্ষ করা যাবে। মায়ের ঘুমপাড়ানি গান, বর্ণ শিক্ষার কৌশল, ছড়া শিক্ষা অনেক বিষয়ই আমরা অতীত অভিজ্ঞতা ও শিখনের ফল হতে নিজ পরিবারে প্রয়োগ করে থাকি, যা রিমীর জীবনে অপূর্ণ।

সুতরাং রিমী তার জীবনে সামাজিকীকরণের মধ্যে পরিবার তথা পরিবার ও পরিবারের সদস্যদের মাধ্যমটির অভাব বোধ করবে।

 

চতুর্দশ অধ্যায়

উদ্দীপকটি পড়ে সংশ্লিষ্ট প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও

রেবেকা নিম্ন আয়ের মানুষ। গত বছর সে তার গ্রামের ‘আত্মপ্রসাদ’ নামক বেসরকারি সংস্থা থেকে ঋণ নিয়ে পাঁচটি ছাগল কিনেছিল। পাড়া-প্রতিবেশী, আত্মীয়-স্বজনের পাশাপাশি নিজের ছেলে-মেয়েদের দায়িত্ব পালন করে আজ সে স্বয়ংসম্পূর্ণ।

ক) সমাজকাঠামোর মৌল সংগঠন কী?

খ) আদর্শ পরিবারের ধারণাটি ব্যাখ্যা করো।

গ) সন্তানদের দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে রেবেকা পরিবারের কোন কার্যাবলিটি সম্পাদন করছে? ব্যাখ্যা করো।

ঘ) ‘রেবেকার মতো নারীরা সামাজিক পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে তাদের নানা ক্ষেত্রেও দায়িত্বের পরিবর্তন ঘটাচ্ছে’—তুমি কি একমত? যুক্তি দাও।

উত্তর : ক) সমাজকাঠামোর মৌল সংগঠন হলো পরিবার।

খ) আদর্শ পরিবার বলতে একপত্নী পরিবারকে বোঝায়। একজন পুরুষের সঙ্গে একজন নারীর বিয়ের মাধ্যমে একপত্নী পরিবার গড়ে ওঠে। বিশ্বে এ ধরনের পরিবার অধিক দেখা যায়। আদর্শ পরিবার বলতে মূলত এ পরিবারকেই বোঝায়।

গ) সন্তানদের দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে রেবেকা পরিবারের সাধারণ কার্যাবলি সম্পাদন করেছে। সমাজ স্বীকৃতভাবে জৈবিক চাহিদা পূরণের জন্য মানুষ পরিবার গঠন করে। পরিবার গঠনের মূল উদ্দেশ্য সন্তান প্রজনন এবং লালন-পালন করা। উদ্দীপকে রেবেকার নিজের ছেলে-মেয়ের দায়িত্ব পালনের কথা উল্লেখ রয়েছে। আর এটা রেবেকার সাধারণ দায়িত্ব, কেননা সন্তানের সুষ্ঠু লালন-পালন করা সন্তান প্রজননের আনুষঙ্গিক কাজ। সন্তান যত দিন না স্বাবলম্বী হবে, তত দিন পরিবার এই দায়িত্ব পালন করবে। তাই বলা যায়, সন্তানদের দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে রেবেকা পরিবারের সাধারণ কার্যাবলি সম্পাদন করছে।

ঘ) রেবেকার মতো নারীরা সামাজিক পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে তাদের নানা ক্ষেত্রেও দায়িত্বের পরিবর্তন ঘটাচ্ছে—উক্তিটির সঙ্গে আমি একমত। সন্তান প্রজনন থেকে শুরু করে লালন-পালনে পরিবার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। পৃথিবীর সব দেশের পরিবারকাঠামোতেই এ ধরনের ভূমিকা পালন করতে দেখা যায়। উদ্দীপকে রেবেকা একটি বেসরকারি সংস্থা থেকে ঋণ নিয়ে একটি ছাগল কিনেছিল। যার মাধ্যমে আজ সে স্বয়ংসম্পূর্ণ। ফলে সে বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করতে পারছে। সামাজিক পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে পরিবারের ভূমিকারও পরিবর্তন ঘটছে। নারীরা সন্তানের ভরণ-পোষণের পাশাপাশি মা-বাবার ভরণ-পোষণের ব্যবস্থা করছে। এ ছাড়া নারীরা স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়ে পাড়া-প্রতিবেশী ও আত্মীয়-স্বজনকে সহযোগিতা করছে।

তাই বলা যায়, রাহেলার মতো নারীরা সামাজিক পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে তাদের নানা ক্ষেত্রেও দায়িত্বের পরিবর্তন ঘটাচ্ছে।



মন্তব্য