kalerkantho


অদ্ভুত অভ্যাস

প্রাণশক্তিতে ভরা ট্রান্সট্রোমার

১০ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



প্রাণশক্তিতে ভরা ট্রান্সট্রোমার

২০১১ সালে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার পান সুইডেনের কবি, মনোবিজ্ঞানী ও অনুবাদক টমাস ট্রান্সট্রোমার। মা-বাবার একমাত্র সন্তান টমাসের বয়স তিন বছর চলছিল যখন, তখনই তাঁর মা-বাবার ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়।

মায়ের কাছে বড় হন তিনি। স্টকহোমের শ্রমজীবী শিক্ষিত শ্রেণিতে বেড়ে ওঠেন তিনি। সেখান থেকেই সামাজিক উদারতা আর নৈতিক সহমর্মিতার শিক্ষা পান। নিজের ব্যক্তিত্বের ভেতর গড়ে ওঠে ধৈর্য আর সাহসের সমন্বয়। তবে গাম্ভীর্যের আড়ালে কখনোই চাপা পড়েনি তাঁর সরস প্রাণের উচ্ছ্বাস। ষাটের দশকে কর্মজীবন আর কাব্যচর্চা চলতে থাকে সমান তালে। সুইডেনে ট্রান্সট্রোমারকে বলা হয় ‘বাজপাখি কবি’। কারণ বাজপাখির মতোই তাঁর দৃষ্টি থাকে অনেক ওপরে। তাঁর কবিতায় প্রকৃতির প্রতি প্রেম আর সুরের আবহ সব সময়ই পাওয়া গেছে। তবে তাঁর বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে কবিতার আবহ অনেকটা গম্ভীর হতে থাকে। মৃত্যু, জরা আর অস্তিত্বের প্রশ্ন জোরালো হতে থাকে। ১৯৯০ সালে তিনি স্ট্রোকে আক্রান্ত হন। শরীরের অর্ধেকটা পক্ষাঘাতগ্রস্ত হয়ে পড়ে। তিনি বাকশক্তি হারিয়ে ফেলেন। তবে শারীরিক অক্ষমতা কবিকে থামাতে পারেনি। এরপর তিনি স্মৃতিকথা ও কবিতা নিয়ে পাঁচটি বই লেখেন। শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে তিনি এক হাতেই পিয়ানো বাজাতেন। ইউরোপের অনেক জায়গায় তিনি এক হাতেই পিয়ানো বাজিয়েছেন। বন্ধু হিসেবেও তিনি অতুলনীয়। ১৯৬৪ সালে তাঁর পরিচয় হয় মার্কিন কবি রবার্ট ব্লাইয়ের সঙ্গে। দুই বন্ধুর পত্র যোগাযোগ চলে দীর্ঘ ২৫ বছর। পারিবারিক পর্যায়েও তাঁদের মাঝেমধ্যে দেখা-সাক্ষাৎ হয়েছে। এ ছাড়া চলে তাঁদের কবিতার অনুবাদ। সিরিয়াস অনুবাদের সঙ্গে চলে দুই বন্ধুর রসাত্মক বার্তা বিনিময়। একবার রবার্ট ব্লাই তাঁর চিঠিতে জানান, ‘তোমার কবিতা সাহিত্য ম্যাগাজিন ‘ফিল্ডে’ প্রকাশ করা হয়েছে। ’ একবার আমেরিকা থেকে সুইডেনে ফেরার পথে ব্লাইয়ের একটা কবিতা হারিয়ে ফেলেছিলেন টমাস। পরে চিঠিতে জানালেন, ‘কবিতাটা মনে হয় ছিনতাই হয়ে গেছে। কিংবা হতে পারে বাতাসে উড়ে চলে গেছে কিউবায়। ’ আরেক চিঠিতে তিনি ব্লাইকে লিখলেন, ‘তোমার পাকস্থলীর আকার ঠিক আছে তো? জানো তো, বিখ্যাত হয়ে গেলে পাকস্থলী রক্ষা করাও একটা গুরুত্বপূর্ণ কাজ হয়ে দাঁড়ায়। ’ এমন অনেক রসাল কথা ছড়িয়ে আছে তাঁদের ২৫ বছরের বন্ধুত্বের পারস্পরিক বার্তাগুলোতে।    

 দুলাল আল মনসুর


মন্তব্য