kalerkantho


বিজ্ঞান

হঠাৎ সবাই গায়েব হলে

অ্যাভেঞ্জার্স সিনেমার ভিলেন থানোসের এক চুটকিতে অর্ধেক প্রাণী উধাও হয়ে গেল। কিন্তু যদি পৃথিবীর সব মানুষই হুট করে গায়েব হয়ে যায়? কী হবে তখন? ইন্টারনেট ঘেঁটে সেটিই জানাচ্ছেন কাজী ফারহান পূর্ব

৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



হঠাৎ সবাই গায়েব হলে

প্রথমেই গাড়িগুলোর মধ্যে সংঘর্ষ হতে থাকবে। বাস, ট্রেনগুলো ধাক্কা খেয়ে থামা না পর্যন্ত নিয়ন্ত্রণহীনভাবে চলতেই থাকবে। পরবর্তী আঘাতটা পড়বে বিদ্যুত্ব্যবস্থায়। সেগুলো সামলানোর মতো কেউ থাকবে না। কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই পাওয়ার প্লান্ট জ্বালানিহীন হয়ে বিশ্বের বাতিগুলো নিভে যেতে থাকবে। গোটা বিশ্বে শুরু হবে স্থায়ী ব্ল্যাকআউট। সোলার প্যানেলগুলো দেখাশোনার অভাবে ধুলায় ঢাকা পড়বে। শুধু জলবিদ্যুেকন্দ্রগুলো চলতে থাকবে। যার মধ্যে রয়েছে চীনের থ্রি জর্জেস ড্যাম, ভেনিজুয়েলার গুরি ও আমাদের কর্ণফুলী জলবিদ্যুেকন্দ্র।

এর কয়েক ঘণ্টা পর উড়োজাহাজগুলো টপাটপ নিচে পড়তে থাকবে। দু-তিন দিন পর পাতাল ট্রেন সিস্টেম প্লাবিত হয়ে যাবে, কারণ পানি নিষ্কাশন পাম্পগুলো চলবে না।

দশ দিন পর আমাদের পোষা প্রাণী ও খামারের প্রাণীগুলো না খেতে পেরে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়বে। তখন কুকুরগুলো উপায়হীন হয়ে অন্য নিরীহ প্রাণীদের শিকার করে খাবে।

এক মাস পর আরো ভয়ংকর ব্যাপার ঘটবে। নিউক্লিয়ার পাওয়ার স্টেশনগুলো ঠাণ্ডা রাখার জন্য যে পানির প্রবাহ রাখতে হয়, সেটি বাষ্প হয়ে উড়ে যাবে। ফলে রিঅ্যাক্টরগুলোতে বিস্ফোরণ ঘটবে এবং সেগুলো তেজস্ক্রিয় পদার্থ নিঃসরণ করতে থাকবে। ফলে বুঝতেই পারছ, পৃথিবীর বুকে কী বিপর্যয় নেমে আসবে। এই বিপর্যয়ের কাছে ১৯৮৬ সালের চেরনোবিল কিংবা ২০১১ সালের ফুকুশিমা দাইচি বিপর্যয় অত্যন্ত মামুলি ব্যাপার।

তবে আমরা যেমন রোগ থেকে সেরে উঠি, আমাদের প্রিয় পৃথিবীও একসময় তেজষ্ক্রিয়া থেকে সেরে উঠবে। এর প্রায় এক বছর পর বিপদ নেমে আসবে আকাশ থেকে। এ যেন জলে কুমির, আকাশে বাজ! পৃথিবীকে ঘিরে যত কৃত্রিম উপগ্রহ আছে, নিয়ন্ত্রণের অভাবে সেগুলো একে একে সব উল্কার মতো পড়তে থাকবে বায়ুমণ্ডলে। তবে সেগুলোর বেশির ভাগই মাটিতে পড়ার আগে পুড়ে ছাই হয়ে যাবে।

এরপর পথিবীর আবার সবুজ হওয়ার পালা। পরবর্তী ২৫ বছরের মধ্যে পৃথিবীর প্রায় ৭৫ শতাংশ শহর ও রাস্তা গাছপালায় ভরে যাবে। তিন শ বছর পর ধাতু, ভবন ও সেতুগুলো ক্ষয় হতে থাকবে এবং আস্তে আস্তে নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। মজার বিষয় হলো, প্রায় ১০ হাজার বছর পর যদি কোনো এলিয়েন পৃথিবী ভ্রমণে আসে, তবে মানবসৃষ্ট কিছু নিদর্শন কিন্তু ঠিকই দেখতে পাবে। সেগুলো হলো, পাথরের নির্মিত কিছু স্থাপনা। এর মধ্যে রয়েছে মিসরের পিরামিড, চীনের মহাপ্রাচীর, যুক্তরাষ্ট্রের মাউন্ট রুশমোর ভাস্কর্য।



মন্তব্য