kalerkantho

শুক্রবার । ২০ জানুয়ারি ২০১৭ । ৭ মাঘ ১৪২৩। ২১ রবিউস সানি ১৪৩৮।


পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

হিয়ারিং টেস্ট

২৮ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



টেস্টটি অডিওমেট্রি নামেও পরিচিত। এর মাধ্যমে একজন মানুষের মস্তিষ্ক কান থেকে আসা শব্দ সংকেত কতখানি শ্রুতিযোগ্য করতে পারছে তা বের করা যায়। এ পরীক্ষার মাধ্যমে কানের শব্দ শোনার কোনো অসুবিধা আছে কি না, কানে কম শুনলে তার কারণ সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়। বেশির ভাগ হিয়ারিং টেস্টে কিছু শব্দ শোনানো হয় এবং রোগীর কাছ থেকে শব্দ সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয়। তবে কিছু ক্ষেত্রে মাথা ও কানে যন্ত্র লাগিয়েও করা হয় (যেমন—কথা বলতে পারে না এমন শিশুরা)। সাধারণত হিয়ারিং টেস্টের মধ্যে আছে হুইসপার স্পিচ টেস্ট, পিওর টোন অডিওমেট্রি, টিউনিং ফর্ক টেস্ট, স্পিচ রিসিপশন অ্যান্ড রিকগনিশন টেস্ট, অটো অ্যাকুয়াস্টিক এমিশন, অডিটরি ব্রেন স্টেম রেসপন্স ইত্যাদি। সাধারণত পরীক্ষাটি করতে বিশেষ কোনো প্রস্তুতি লাগে না, তবে সর্দি কাশি বা কানে ইনফেকশন থাকলে, জেন্টামাইসিন গোত্রের অ্যান্টিবায়োটিক সেবনরত থাকলে সঠিক ফলাফল না-ও পাওয়া যেতে পারে।    ডা. এ জেড এম আহসান


মন্তব্য