kalerkantho


এমআরটি লাইন-১ নির্মাণে কারিগরি পরামর্শকদের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর

বিমানবন্দর-কমলাপুর আন্ডারগ্রাউন্ড মেট্রোরেল নির্মাণে পরামর্শক নিয়োগ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ অক্টোবর, ২০১৮ ১০:০৯



বিমানবন্দর-কমলাপুর আন্ডারগ্রাউন্ড মেট্রোরেল নির্মাণে পরামর্শক নিয়োগ

ছবি প্রতীকী

বর্তমানে এমআরটি-৬ প্রকল্পের আওতায় উত্তরা-মতিঝিল মাটির ওপর দিয়ে মেট্রোরেল নির্মাণকাজ চলছে। তবে দ্বিতীয় একটি লাইন মাটির নিচ দিয়ে নির্মাণের জন্য পরামর্শক নিয়োগ করা হয়েছে। দেশের প্রথম ভূগর্ভস্থ (আন্ডারগ্রাউন্ড) মেট্রোরেল প্রকল্পের (এমআরটি লাইন-১) কারিগরি সহায়তায় পরামর্শক নিয়োগে চুক্তি স্বাক্ষর করেছে ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড।

গতকাল বুধবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক কনভেনশন সেন্টারে (বিআইসিসি) সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের উপস্থিতিতে এ চুক্তি সই হয়। এমআরটি লাইন-১ এর আওতায় বিমানবন্দর ও পূর্বাচল- এ দুটি রুটে মেট্রোরেল নির্মাণ করা হবে। বিমানবন্দর রুটটি আন্ডারগ্রাউন্ড ও পূর্বাচল রুটটি এলিভেটেড হবে।

এ মেট্রোরেল নির্মাণ হলে রাজধানীর যানজট অনেক কমে আসবে বলে আশা প্রকাশ করে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ঢাকা একটি জনবহুল নগরী। যানজট প্রকট আকার ধারণ করেছে। পাতাল রেল হলে যানজট কিছুটা কমে আসবে, যাত্রীদের সময় বাঁচবে। এমআরটি-১ এর আওতায় ১৬ দশমিক ৪০ কিলোমিটার রেলপথ আন্ডারগ্রাউন্ডে নির্মিত হবে।

জাপানের নিপ্পন কোই কোম্পানির সঙ্গে যৌথভাবে সাতটি পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কারিগরি সহতায়তায় চুক্তি স্বাক্ষরিত হলো। এর মধ্যে জাপানের দুটি, ভারতের তিনটি, ফ্রান্সের একটি ও বাংলাদেশের একটি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। পরামর্শক প্রতিষ্ঠান এমআরটি-১ এর বিস্তারিত নকশা প্রণয়ন ও টেন্ডার কাজে সহায়তা করবে। ৫৭৮ কোটি টাকার এ প্রকল্পের চুক্তি মূল্য ৫১৩ কোটি ৫৬ লাখ টাকা।

এমআরটি-১ এর আওতায় বিমানবন্দর ও পূর্বাচল নামে দুটি রুটে মোট ২৬ দশমিক ৬০ কিলোমিটার মেট্রোরেল নির্মাণ করা হবে। এ রুটে ১২টি স্টেশন থাকবে। যার মধ্যে নতুন বাজার স্টেশনে এমআরটি-৫ এর সঙ্গে আন্তঃসংযোগ থাকবে। এর মধ্যে আন্ডারগ্রাউন্ড ১৬ দশমিক ৪০ কিলোমিটার ও এলিভেটেড ১০ দশমিক ২০ কিলোমিটার।  এটি শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হতে শুরু করে বিমানবন্দর টার্মিনাল ৩, খিলক্ষেত, যমুনা ফিউচার পার্ক, নতুন বাজার, উত্তর বাড্ডা, বাড্ডা, হাতিরঝিল, রামপুরা, মালিবাগ, রাজারবাগ হয়ে কমলাপুর যাবে।

এ মেট্রো রেলেরই একটি অংশ হবে পূর্বাচলগামী। এতে রুটটি নতুন বাজার থেকে যমুনা ফিউচার পার্ক, বসুন্ধরা হয়ে পুলিশ অফিসার্স হাউজিং সোসাইটি, মাস্তুল, পূর্বাচল পশ্চিম, পূর্বাচল সেন্টার, পূর্বাচল সেক্টর-৭ হয়ে পূর্বাচল টার্মিনাল পর্যন্ত বিস্তৃত হবে। ১০ কিলোমিটার দীর্ঘ পূর্বাচল রুটে বিমানবন্দর রুটের অন্তর্ভুক্ত নতুন বাজার ও যমুনা ফিউচার পার্কের আন্ডারগ্রাউন্ড স্টেশন দুটোসহ মোট স্টেশন থাকবে ৯টি। এর মধ্যে বসুন্ধরা থেকে পূর্বাচল টার্মিনাল পর্যন্ত ৭টি স্টেশন এলিভেটেড হবে বলে জানা গেছে।



মন্তব্য