kalerkantho


দোকানের সামনে গাড়ি রাখায় লেগুনাচালককে পিটিয়ে হত্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক, সাভার (ঢাকা)    

১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৬:১৯



দোকানের সামনে গাড়ি রাখায় লেগুনাচালককে পিটিয়ে হত্যা

ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনে গাড়ি পার্কিং করে রাখার অপরাধে এক লেগুনা (হিউম্যান হলার) চালককে রড দিয়ে পিটিয়ে নির্মমভাবে হত্যার অভিযোগ উঠেছে প্রতিষ্ঠানটির মালিকের বিরুদ্ধে। এ ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত ওই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিক ও তার ভাই প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ রেখে সরে পড়ায় তাদের আটক করতে পারেনি পুলিশ। আজ মঙ্গলবার সকাল ৭টার দিকে আশুলিয়ার নবীনগরের অদূরে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের ‘নিরিবিলি’ বাসস্ট্যান্ড এলাকার মেসার্স জুয়েল স্টিল অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপের সামনে এ ঘটনা ঘটে। 

নিহতের নাম আসলাম পাঠান (৪৫)। তিনি মুন্সিগঞ্জ জেলার শ্রীনগর থানার বারইখালী খোরা কলেজ এলাকার মোঃ রশিদ পাঠানের ছেলে। সে আশুলিয়ার নিরিবিল এলাকায় পরিবার নিয়ে বসবাস এবং নবীনগর-আব্দুল্লাহপুর মহাসড়কে লেগুনা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতেন।

প্রত্যক্ষদর্শী এক পরিবহন শ্রমিক জানায়, ‘নিরিবিলি’ এলাকায় ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের পাশে লেগুনা চালক আসলাম প্রতিদিন রাতে তার লেগুনাটি পার্কিং করে রেখে বাসায় চলে যেতেন। গত শনিবার রাতে নিরিবিলি বাসস্ট্যান্ড এলাকার মেসার্স জুয়েল স্টিল অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং নামের একটি রডের দোকানের সামনে আসলাম তার লেগুনাটি (ঢাকা মেট্রো ছ-১১-১০১৯) রেখে বাসায় চলে যান। পরদিন সকালে দোকান থেকে রড ও অন্যান্য মালামাল বের করতে বিড়ম্বনার মধ্যে পড়তে হয় দোকন মালিক জাকির হোসেন জুয়েলকে। এদিকে গত রবি ও সোমবার লেগুনা চালক আসলামকে খোঁজ করে না পেয়ে আজ মঙ্গলবার সকালে তাকে দোকানের সামনে দেখতে পেয়ে ডেকে নিয়ে আসেন দোকান মালিক জাকির। পরে শনিবার রাতের লেগুনা পার্কিং নিয়ে উভয়ের মধ্যে বাকবিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে স্টিল দোকানী জাকির হোসেন ও তার ভাই রুবেল আসলামকে রড ও অ্যাঙ্গেল দিয়ে এলোপাথাড়িভাবে মারতে থাকে। এক পর্যায়ে আসলাম মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। কোনো সাড়া শব্দ না করায় আশেপাশের লোকজন আশঙ্কাজনক অবস্থায় আসলামকে উদ্ধার করে একটি ভ্যানে উঠিয়ে পার্শ্ববর্তী গণস্বাস্থ্য সমাজভিত্তিক মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কতর্ব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। আসলামের মৃত্যুর খবর পেয়ে দ্রুত সটকে পড়েন দোকান মালিক জাকির ও রুবেল।

নিহতের ছোট ভাই সোহেল বলেন, তার ভাই প্রতিদিন রাতে মহাসড়কের পাশে যেখানে খালি জায়গা পেতেন সেখানে গাড়িটি পার্কিং করে বাসায় চলে আসতেন। তবে ওই দিন (শনিবার) জায়গার সংকট থাকায় স্টিলের দোকানটির সামনে গাড়ি রাখেন। এই তুচ্ছ ঘটনার জের ধরে আজ মঙ্গলবার সকালে তার ভাইকে পিটিয়ে হত্যা করেন জাকির ও তার ভাই রুবেল। তিনি তার ভাইয়ের হত্যার বিচার দাবি করেন।

এ ব্যাপারে আশুলিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জাবেদ মাসুদ বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এছাড়া নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় আশুলিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের প্রস্তুতি চলছে। 

তিনি আরো বলেন, হত্যাকাণ্ডের পর থেকে দোকান মালিক পলাতক থাকায় কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি। অভিযুক্তদের আটকের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

এদিকে নিরিবিলি এলাকার চায়ের দোকানী রুহুল আমিন অভিযোগ করেন, জুয়েল এবং তার ভাই রুবেল অনেক টাকার মালিক। তারা দুজনই এলাকায় বেপরোয়াভাবে চলাফেরা করেন। এর আগেও তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে একধিক ব্যক্তিকে ধরে নিয়ে দোকানের ভিতরে মারধর করেছে তারা। তাদের অত্যাচারে স্থানীয় ব্যবসায়ীসহ সাধারণ মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। তারা টাকা দিয়ে স্থানীয় কিছু বখাটে ও সন্ত্রাসী বাহিনী পরিচালনা করে। তাদের ভয়ে এলাকায় কেউ মুখ খুলতেও সাহস পায়না। 



মন্তব্য