kalerkantho


ইরাবের অভিষেক অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী

খবর বস্তুনিষ্ঠ হলে আত্মসমালোচনার সুযোগ থাকে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৯:২৮



খবর বস্তুনিষ্ঠ হলে আত্মসমালোচনার সুযোগ থাকে

গণমাধ্যমকে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনের আহ্বান জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তিনি বলেন, সাধারণ মানুষ হিসেবে আমরা বস্তুনিষ্ঠ সংবাদই আশা করি। খবর বস্তুনিষ্ঠ হলে আত্মসমালোচনার সুযোগ থাকে। তাই গঠনমূলক সমালোচনার মাধ্যমে শিক্ষা খাতের উন্নয়নে সহায়তা করুন।

আজ রবিবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে অ্যাডুকেশন রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ইরাব)-এর নবগঠিত কমিটির অভিষেক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের উদ্দেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানটির উদ্বোধন ঘোষণা করেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, মিডিয়াকর্মীদের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক গভীর। সাংবাদিক বন্ধুরা শিক্ষা পরিবারের অবিচ্ছেদ্য অংশ। আমাদের বিরুদ্ধে যায় এমন সংবাদ ছাপলেও আমরা অখুশি হই না। বরং বিষয়টি সম্পর্কে ভালোভাবে জানার সুযোগ তৈরি হয়। গঠনমূলক সমালোচনা হলে ভুলটাকে সংশোধন করা যায়। এ সময় 'ইরাব' গঠনকে স্বাগত জানিয়ে এর সাফল্য কামনা করেন তিনি।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ইউজিসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক আব্দুল মান্নান বলেন, শিক্ষার চেয়ে কোনো খাত এতটা গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে না। জনগোষ্ঠীকে সম্পদে পরিণত করতে শিক্ষা সাংবাদিকরা কাজ করে চলছেন।

নোবেলজয়ী অমর্ত্য সেনের উদ্ধৃতি দিয়ে অধ্যাপক আব্দুল মান্নান আরো বলেন, যে দেশে মিডিয়া স্বাধীন, সে দেশে কখনো কোনো অবস্থায় দুর্ভিক্ষ হবে না।

সংবাদপত্র পথ দেখায় বলে মন্তব্য করেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসেন। তিনি বলেন, আমরা দেশকে এগিয়ে নিতে চাই। আমরা একে অন্যের পরিপূরক। সবক্ষেত্রে আমাদের উন্নতি হয়েছে। তা দৃশ্যমান।

ইরাব সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান খান সমাপনী বক্তব্যে বলেন, ঢালাওভাবে কোচিং সেন্টার চলছে। নিবন্ধন পরীক্ষার মাধ্যমে কোচিং সেন্টারের অনুমতি দিতে হবে। তবে নিবন্ধিত শিক্ষকরা স্কুল-কলেজে চাকরি করতে পারবেন না। সংগঠনের পক্ষে প্রাথমিক, গণশিক্ষা ও শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে সাংবাদিকদের প্রতিবেদনের জন্য দু’টি পুরস্কার চালুর দাবিও জানান তিনি।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ইরাবের সাধারণ সম্পাদক সাব্বির নেওয়াজ। আরো বক্তব্য রাখেন কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আলমগীর, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক মো. মাহাবুবুর রহমান, ইরাবের সহ-সভাপতি মুসতাক আহমদ, নিজামুল হক প্রমুখ।



মন্তব্য