kalerkantho


সবাই ট্রেনের টিকিট চাইলে কীভাবে হবে?: স্টেশন ম্যানেজার

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৫ জুন, ২০১৮ ১১:৪৭



সবাই ট্রেনের টিকিট চাইলে কীভাবে হবে?: স্টেশন ম্যানেজার

আমাদের তো একটা সীমাবদ্ধতা আছে। সবাই ট্রেনের টিকিট চাইলে কীভাবে হবে? এতো লোক টিকিট দেব কীভাবে? আজ মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর কমলাপুর স্টেশনে ঈদের আগ্রিম টিকিটের দীর্ঘ অপেক্ষার দেখে এমন মন্তব্য করেন স্টেশন ম্যানেজার সিতাংশু চক্রবর্তী। কমলাপুর স্টেশনের দেখা গেছে, ঈদে বাড়ি যেতে অগ্রিম টিকিটের জন্য দীর্ঘ লাইনে অপেক্ষা করছেন হাজার হাজার মানুষ। কাউন্টারের সামনে থেকে শুরু করে মানুষের এই লাইন গিয়ে ঠেকেছে প্রধান সড়কের কাছাকাছি। টিকিট প্রত্যাশীদের ভীড়ে স্টেশন এলাকা যেন জনসমুদ্রে পরিণত হয়েছে। প্রতিটি লাইনে চাপাচাপি করে দাঁড়িয়ে আছেন সবাই। নারীরা পড়েছেন সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে। তাদের একাধিক লাইন থাকলেও টিকিট দেওয়া হচ্ছে মাত্র দুইটি কাউন্টারে।

ট্রেনের ঈদের অগ্রিম টিকিটের জন্য মানুষের দীর্ঘ অপেক্ষা দেখে কমলাপুর স্টেশন ম্যানেজার বলেন, আজ দেয়া হচ্ছে ১৪ জুনের টিকিট। সকাল ৮টা থেকে মোট ২৬টি কাউন্টারে এ টিকিট বিক্রি করা হচ্ছে। আজ মোট ২৭ হাজার ৪৬১টি টিকিট বিক্রি হবে। এর মধ্যে ২৫ শতাংশ টিকিট এসএমএস বা অনলাইনের মাধ্যমে বিক্রি হবে। ১০ শতাংশ সংরক্ষিত টিকিট। বাকি ৬৫ শতাংশ স্টেশন থেকে দেয়া হবে। কিন্তু আজকের টিকিটের জন্য গতকাল (সোমবার) থেকেই মানুষ লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করছে। সবাইকে কি টিকিট দেয়া সম্ভব? অনেকে এখনও এসে লাইনে দাঁড়াচ্ছেন, তারা কি আর টিকিট পাবেন?

এদিকে আজ সকাল ৮টা থেকে মোট ২৬টি কাউন্টারে একযোগে শুরু হয়েছে টিকিট বিক্রি। এর মধ্যে নারীদের জন্য সংরক্ষিত কাউন্টার আছে দুইটি। আগামীকাল ৬ জুন দেয়া হবে ১৫ জুনের ট্রেনের অগ্রিম টিকিট। টিকিট কাউন্টার থেকে জানানো হয়, একজন যাত্রী সর্বোচ্চ ৪টি টিকিট সংগ্রহ করতে পারছেন। ঈদ উপলক্ষে বিক্রিত টিকিট ফেরতযোগ্য নয়। সুবর্ণ এক্সপ্রেস ও সোনার বাংলা ট্রেনে কোনো আসনবিহীন টিকিট ইস্যু করা হবে না। অন্যান্য ট্রেনের ক্ষেত্রে শুধু যাত্রীদের অনুরোধে যাত্রার দিন আসন বিহীন টিকিট ইস্যু করা হবে। এদিকে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রিতে যেন কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সে লক্ষ্যে আইন-শৃংখলা বাহিনীসহ রেলওয়ের নিজস্ব বাহিনী তৎপর রয়েছে বলে জানিয়েছেন স্টেশন কর্তৃপক্ষ।

 


মন্তব্য