kalerkantho

ডাকসুর পুনর্নির্বাচনের দাবিতে মানববন্ধন মিছিল, লাল কার্ড

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

২৪ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ডাকসুর পুনর্নির্বাচনের দাবিতে মানববন্ধন মিছিল, লাল কার্ড

দীর্ঘ তিন দশকের অচলাবস্থার অবসান ঘটিয়ে প্রথম কার্যকরী সভার মধ্য দিয়ে সচল হয়েছে শিক্ষার্থীদের অধিকার আদায়ের প্ল্যাটফর্ম ডাকসু ও হল সংসদ। সভার মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব গ্রহণ করলেন ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুর, সাধারণ সম্পাদক (জিএস) গোলাম রাব্বানী, এজিএস সাদ্দাম হোসেনসহ নবনির্বাচিত ২৫ সদস্যের কার্যনির্বাহী কমিটি। তবে কার্যকরী সভা চলার সময়েও পুনরায় ডাকসু নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলন কর্মসূচি পালন করেছে ছাত্রদল, প্রগতিশীল ছাত্র ঐক্য ও বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের নেতাকর্মীরা। গতকাল শনিবার সকাল ১১টার দিকে ডাকসুর সভা চলার সময়ে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন স্থানে এই কর্মসূচি পালন করে সংগঠনগুলো।

ডাকসুর পুনর্নির্বাচনের দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে কালো ব্যাজ ধারণ কর্মসূচি পালন করেছে ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা। একই সঙ্গে ডাকসু ভবনের বাইরে পুনর্নির্বাচনের দাবিসংবলিত প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করে মানববন্ধন করেছে ছাত্র ফেডারেশনের নেতাকর্মীরা। ডাকসুর দায়িত্ব নেওয়া নির্বাচিতদের ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে লাল কার্ড প্রদর্শন করে প্রগতিশীল ছাত্র জোট ও সাম্রাজ্যবাদবিরোধী ছাত্র ঐক্য।

ছাত্রদলের মৌন মিছিল

সকাল সাড়ে ১১টার দিকে ডাকসুর কার্যনির্বাহী কমিটির সভা চলার সময়ে পুনর্নির্বাচনের দাবিতে কালো ব্যাজ ও মুখে কালো কাপড় বেঁধে ক্যাম্পাসে মৌন মিছিল করে ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা। মিছিলটি মধুর ক্যান্টিন থেকে শুরু হয়ে ডাকসু ভবনের পাশ দিয়ে ক্যাম্পাসের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে অপরাজেয় বাংলায় গিয়ে শেষ হয়। ছাত্রদল প্যানেলের ভিপি প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান, জিএস প্রার্থী আনিসুর রহমান খন্দকার অনিক, এজিএস প্রার্থী খোরশেদ আলম সোহেলসহ কেন্দ্রীয় ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের নেতাকর্মীরা মিছিলে ছিল।

আনিসুর রহমান খন্দকার সাংবাদিকদের বলেন, ‘ডাকসু নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি এটা স্পষ্ট। এর দায় নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে পদত্যাগ করতে হবে। এ ছাড়া যারা এই নির্বাচনে অনিয়ম ও কারচুপির সঙ্গে জড়িত ছিল সবার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। আমরা এই নির্বাচন মানি না। আমরা চাই এই প্রহসনের নির্বাচন বাতিল করে পুনরায় তফসিল ঘোষণার মাধ্যমে একটা সুষ্ঠু নির্বাচন দেওয়া হোক।’

লাল কার্ড প্রদর্শন বাম সংগঠনগুলোর

এদিকে ডাকসুর দায়িত্ব নেওয়া সদ্য নির্বাচিত প্রতিনিধি ও প্রশাসনের প্রতি লাল কার্ড প্রদর্শন করেছে প্রগতিশীল ছাত্র জোট ও সাম্রাজ্যবাদবিরোধী ছাত্র ঐক্য। সকাল ১১টার দিকে ডাকসু নির্বাচনে কারচুপি ও ভোট ডাকাতির প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যে এক প্রতিবাদ কর্মসূচিতে লাল কার্ড প্রদর্শন করা হয়। পরে দুপুর সোয়া ১২টার দিকে ডাকসুর কার্যকরী সভা শেষ হলে তারা ডাকসু ভবনের সামনে গিয়ে বিক্ষোভ করে। একই সঙ্গে নির্বাচন বাতিল করে পুনরায় তফসিল ও নির্বাচনের তারিখ ঘোষণার দাবি জানায়। এ সময় ছাত্র ইউনিয়ন, ছাত্র মৈত্রী, ছাত্রফ্রন্টসহ বিভিন্ন বাম অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিল।

ছাত্র ফেডারেশনের নেতাকর্মীদের মানববন্ধন

ডাকসু ভবনের সামনে পুনর্নির্বাচনের দাবিতে মানববন্ধন করেছে বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন। সকাল সাড়ে ১১টার দিকে ডাকসু ভবনের বাইরে পুনরায় নির্বাচনের দাবিসংবলিত প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করে তারা। এ সময় ছাত্র ফেডারেশনের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা সভাপতি উম্মে হাবিবা বেনজির, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল হক ইশতিয়াক, সাংগঠনিক সম্পাদক নাসির আবদুল্লাহসহ সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিল। এ সময় তারা ‘কারচুপির নির্বাচন মানি না, পুনর্নির্বাচন চাই’, ‘ভোট কারচুপি করা প্রশাসন চাই না’, ‘ডাকসুতে সভাপতি ও কোষাধ্যক্ষ পদে ছাত্র প্রতিনিধি চাই’, ‘অভিষেক অনুষ্ঠান থেকে পুনর্নির্বাচনের ঘোষণা চাই’, ‘আনিশা অক্সফোর্ড ছাত্রসংসদের সভাপতি তবে প্রাচ্যের অক্সফোর্ডের সভাপতি কেন ভিসি!’ লেখা প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করে।

 

 

মন্তব্য