kalerkantho

সার্ব নেতা কারাদিচের শাস্তি বৃদ্ধি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২২ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কুখ্যাত সার্ব নেতা রাদোভান কারাদিচের সাজা বেড়েছে। এবার তাঁকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত। আদালত মনে করেন, তাঁকে ৪০ বছরের যে সাজা দেওয়ার হয়েছে, তা অত্যন্ত কম ও ত্রুটিপূর্ণ।

২০ বছর আগে সাবেক যুগোস্লাভিয়ার জাতিগত যুদ্ধে স্রেব্রেনিচাতে গণহত্যা চালানোর দায়ে কারাদিচকে গত বুধবার এই যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দেওয়া হয়। নেদারল্যান্ডসের দ্য হেগ শহরে জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত যুদ্ধাপরাধ, গণহত্যা ও মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধের জন্য কারাদিচকে দোষী সাব্যস্ত করে এই দণ্ডাদেশের রায় দেন।

৭৩ বছর বয়স্ক কারাদিচ ১৯৯০ থেকে ১৯৯২ সাল পর্যন্ত বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা সমাজতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্রের পার্লামেন্ট স্পিকার ছিলেন। ১৯৯২ থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত বিভক্ত সার্বিয়ার বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা প্রজাতন্ত্রের প্রেসিডেন্ট ছিলেন তিনি। আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে যুগোস্লাভিয়া ট্রাইব্যুনালের বিচারপতি রায়ে বলেন, বলকান যুদ্ধের সময় ১৯৯৫ সালে স্রেব্রেনিচাতে গণহত্যার বিষয়ে রাদোভান পুরোপুরি অবহিত ছিলেন। তাঁর নির্দেশেই তৎকালীন জাতিসংঘের নিরাপত্তা জোনের আওতায় স্রেব্রেনিচাতে গণহত্যা চালিয়ে সাত হাজার মুসলমান পুরুষকে হত্যা করা হয়। এ ছাড়া ৪৪ মাস ধরে বসনিয়ার শহর সারাইভোকে অবরুদ্ধ করার দায়েও তাঁকে দায়ী করা হয়।

যুদ্ধাপরাধী কারাদিচকে ২০০৮ সালে বেলগ্রেড থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত ২০১৬ সালে কারাদিচকে ৪০ বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত করেন। তাঁর আইনজীবীরা শাস্তি হ্রাসের জন্য আপিল করেন। আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের যুগোস্লাভিয়া ট্রাইব্যুনাল এই আপিল গ্রহণ করেননি; বরং যুগোস্লাভিয়া ট্রাইব্যুনালের আপিল বিভাগ যুদ্ধাপরাধী কারাদিচের অপরাধগুলো ফের তদন্ত করে তাঁর ৪০ বছরের সাজা অত্যন্ত কম ও ত্রুটিপূর্ণ ছিল বলে মত দেন। এই প্রেক্ষাপটে তাঁর সাজা বাড়িয়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। সূত্র : বিবিসি, গার্ডিয়ান।

মন্তব্য