kalerkantho

এমপিরা চুক্তিতে রাজি না হলে বহু মাস পিছিয়ে যাবে ব্রেক্সিট : মে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৮ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সমঝোতার ভিত্তিতে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) থেকে বের হয়ে যেতে (ব্রেক্সিট) প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মের আনা সর্বশেষ চুক্তিটিও যদি ব্রিটিশ পার্লামেন্ট প্রত্যাখ্যান করে তাহলে ব্রেক্সিট সম্পন্ন হতে হয়তো বহু মাস লেগে যাবে। সানডে টেলিগ্রাফে লেখা এক নিবন্ধে গতকাল রবিবার এমন সতর্ক বাণীই উচ্চারণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী মে। এ সপ্তাহেই আবার চুক্তিটি ভোটাভুটির জন্য পার্লামেন্টে তোলা হবে।

ব্রেক্সিট চুক্তি নিয়ে ব্রিটিশ পার্লামেন্ট একটি চরম বিশৃঙ্খল সপ্তাহ পার করার পর মে এ কথা বললেন। গত সপ্তাহের মের আনা সংশোধিত ব্রেক্সিট চুক্তিটি আবারও প্রত্যাখ্যান করেন এমপিরা। আগামী ২৯ মার্চ ব্রিটেনের ইইউ ছাড়ার কথা।

মে গতকাল বলেন, ‘আগামী বৃহস্পতিবার ইউরোপীয় কাউন্সিলের সম্মেলনের আগে এমপিরা যদি মের আনা চুক্তিকে সমর্থন না করেন তাহলে তিনি ইইউর কাছে সময় বাড়িয়ে নেওয়ার আবেদন জানাবেন। তিনি স্বীকার করে নেন যে আদর্শগতভাবে চুক্তিটি সমাধান নয়। তবে এটা গ্রহণ করা হলে ব্রেক্সিট প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত হতে পারে। আর পার্লামেন্ট যদি চুক্তি মানতে রাজি না হয় তাহলে পরিস্থিতির ব্যাপক অবনতি ঘটতে পারে। সে ক্ষেত্রে ব্রিটেনকে আগামী মে মাসে ইউরোপীয় পার্লামেন্ট নির্বাচনে অংশ নিতে হবে। তবে ইইউ ছাড়ার সিদ্ধান্ত দেওয়ার তিন বছর পর ব্রিটিশ জনগণ আবারও ইউরোপীয় পার্লামেন্টের নির্বাচনে ভোট দিচ্ছে—বিষয়টি চিন্তা করাও কঠিন। পার্লামেন্টের সমন্বিত ব্যর্থতার এর চেয়ে বড় প্রমাণ আর কিছু হয় না।’ তিনি বলেন, ‘এবার যদিও এমপিরা ইইউ সম্মেলনের আগে তাঁর আনা চুক্তিতে সমর্থন দিতে ব্যর্থ হয় তাহলে ব্রেক্সিট বহু মাসের মতো পিছিয়ে যাবে।’

টেরেসা মে গত নভেম্বর মাসে ইইউর সঙ্গে একটি চুক্তিতে পৌঁছেন। এর আগে দীর্ঘ দুই বছর বিষয়টি নিয়ে আলোচনা চালায় দুই পক্ষ। এই চুক্তিটি গত জানুয়ারি মাসে নাকচ করে দেয় ব্রিটিশ পার্লামেন্ট। তাদের আপত্তি ছিল আইরিশ ব্যাকস্টপ নিয়ে। পরে চুক্তিতে কিছু সংশোধন এনে গত সপ্তাহে আবারও পার্লামেন্টে তোলেন মে। আবারও তা প্রত্যাখ্যান করেন এমপিরা। 

সূত্র : এএফপি।

মন্তব্য