kalerkantho

বিশ্বজুড়ে নিন্দার ঝড়

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৬ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুটি মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় বিশ্বব্যাপী নিন্দার ঝড় বইছে। বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রনায়করা এ ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছেন। গতকাল শুক্রবার জুমার নামাজের সময়ে চালানো এই হামলায় অন্তত ৪৯ জন নিহত হয়। নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন দিনটিকে নিউজিল্যান্ডের ইতিহাসে কালো দিনগুলোর অন্যতম বলে অভিহিত করেছেন।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়িপ এরদোয়ান, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান, নরওয়ের প্রধানমন্ত্রী এরনা সোলবার্গ, মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ, ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো, ইউরোপীয় ইউনিয়ন পরিষদের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড টাস্ক, ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মে, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন, জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মারকেল, ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁ, ন্যাটোপ্রধান জেন্স স্টোলটেনবার্গ, স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেড্রো সানচেজ হামলার ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছেন।

রিসেপ তাইয়িপ এরদোয়ান বলেন, ‘এই হামলা ইসলামের সঙ্গে শত্রুতা। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় অলসভাবে এ ঘটনা দেখে যাচ্ছে। এমনকি কখনো কখনো উৎসাহিত করা হচ্ছে। এই হামলা ব্যক্তিগতভাবে হেনস্তার পর্যায় ছাড়িয়ে গণহত্যার পর্যায়ে পৌঁছেছে। যদি এখনই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না নেওয়া হয়, এই ঘটনা অনুসরণ করে আরো ঘটনা ঘটবে। আমি বিশ্ববাসীর প্রতি বিশেষ করে পশ্চিমা বিশ্বের প্রতি দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।’

ডোনাল্ড ট্রাম্প নিহতদের প্রতি সহমর্মিতা ও হামলার নিন্দা জানিয়ে টুইটারে লিখেছেন, ‘৪৯ জন নিরীহ মানুষ নিহত হয়ছে। আরো অনেকে আহত হয়েছে। নিউজিল্যান্ডকে সহযোগিতা করার জন্য আমরা তাদের পাশে আছি।’ পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ঘটনার নিন্দা জানিয়ে বলেন, ‘নিউজিল্যান্ডের মসজিদে যে ঘটনা ঘটেছে তাতে আমি হতভম্ব এবং এ ঘটনার নিন্দা জানাচ্ছি। সন্ত্রাসীদের কোনো ধর্ম নেই। এ ঘটনায় যারা নিহত হয়েছে তাদের পরিবারের প্রতি আমাদের সমবেদনা রইল।’  নরওয়ের প্রধানমন্ত্রী এরনা সোলবার্গ সব ধরনের চরমপন্থার বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি লড়াইয়ের অনুরোধ জানিয়ে বলেছেন, ‘নিশ্চিতভাবে এটি দুঃখজনক ঘটনা। এই ঘটনা ২০১১ সালের আমাদের দুঃখজনক স্মৃতিকে মনে করে দিয়েছে।’

নিউজিল্যান্ড সব সন্ত্রাসীদের আটক করবে এমনটা আশা করে মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ বলেন, ‘আশা করছি, নিউজিল্যান্ড ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের আটক করবে এবং দেশের আইন অনুযায়ী শাস্তির ব্যবস্থা করবে।’

জোকো উইদোদো বলেন, ‘আমরা এই ধরনের সন্ত্রাসী হামলার নিন্দা জানাচ্ছি।’ ইউরোপীয় ইউনিয়ন পরিষদের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড টাস্ক বলেন, ‘শালীনতা ও ধৈর্যের জন্য নিউজিল্যান্ডের সুখ্যাতি রয়েছে। এই ঘটনা তাদের এই গুণাবলিকে ধ্বংস করতে পারবে না।’ টেরেসা মে হামলার ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তদের সহমর্মিতা জানিয়ে বলেছেন, ‘এই ধরনের সন্ত্রাসী হামলায় যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাদের জন্য সহমর্মিতা জানাচ্ছি।’

ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন, ‘শান্তিপ্রিয় মানুষ যেখানে প্রার্থনার জন্য হাজির হয়েছে, সেখানে হামলা নিষ্ঠুরতা ও ঘৃণ্য কাজ। আমার বিশ্বাস, ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের সর্বোচ্চ শাস্তি দেওয়া হবে।’ অ্যাঙ্গেলা মারকেল বলেছেন, ‘আমরা এই ধরনের সন্ত্রাসী কার্যকলাপের বিরুদ্ধে একসঙ্গে লড়ব।’ ইমানুয়েল ম্যাখোঁও একই কথা বলেছেন। অন্যদিকে পেড্রো সানচেজ বলেন, ‘হামলায় ক্ষতিগ্রস্তদের পরিবার এবং নিউজিল্যান্ডের সরকারকে আমরা সহমর্মিতা জানাচ্ছি।’ সূত্র : এএফপি।

মন্তব্য