kalerkantho


উত্তর কোরিয়ার আশ্বাসে ‘খুশি’ যুক্তরাষ্ট্র, সন্দিহান বিশ্লেষকরা

শেষ হলো আন্ত কোরিয়া সম্মেলন

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



উত্তর কোরিয়ার আশ্বাসে ‘খুশি’ যুক্তরাষ্ট্র, সন্দিহান বিশ্লেষকরা

উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উন (বাঁ দিক থেকে দ্বিতীয়) ও দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে ইন বৈঠক শেষে গতকাল কোরীয়দের আধ্যাত্মিক জন্মস্থান পায়েকতু পর্বতের শীর্ষ পরিদর্শনে যান। সস্ত্রীক এ দুই নেতা এভাবেই পরস্পরের হাত আঁকড়ে ধরে নিজেদের মধ্যকার ঐকমত্য তুলে ধরার চেষ্টা করেন। ছবি : এএফপি

আন্ত কোরিয়া সম্মেলনের মধ্য দিয়ে গতি ফিরল ওয়াশিংটন ও পিয়ংইয়ংয়ের মধ্যকার শান্তি আলোচনায়। যুক্তরাষ্ট্র জানিয়েছে, তারা উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে ফের আলোচনা শুরু করতে প্রস্তুত। সঙ্গে এ-ও জানিয়েছে, ওয়াশিংটন ২০২১ সালের মধ্যে পিয়ংইয়ংয়ের পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ দেখতে চায়। যদিও বিশ্লেষকরা পিয়ংইয়ংয়ের ‘ভালো ভালো কথা’ নিয়ে এখনো সন্দিহান।

এদিকে পিয়ংইয়ংয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার শেষ হলো তিন দিনের আন্ত কোরীয় সম্মেলন। শেষ দিনে সপরিবারে ঐতিহাসিক ‘পায়েকতু’ পাহাড় পরিদর্শন করেন উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন ও দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে-ইন। কোরিয়া রাজত্বের প্রতিষ্ঠাতা দাংগুনের জন্মস্থান হিসেবে পরিচিত এই পাহাড় দুই কোরিয়ার মানুষের কাছে এক পবিত্র স্থান।

আন্ত কোরিয়া সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে (বুধবার) বেশ কয়েকটি ‘সুখবর’ শোনান মুন ও উন। উত্তর কোরিয়া জানায়, তারা নিজেদের প্রধান ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষাক্ষেত্র ‘টংচাং-রি’ বন্ধ করে দিতে রাজি আছে। এ ছাড়া ইয়ংবিয়নের অন্যতম পরমাণু স্থাপনা বন্ধ করার প্রতিশ্রুতিও দেয় তারা। এ ছাড়া সম্মেলনে সিদ্ধান্ত হয়, এ বছরই দক্ষিণ কোরিয়া সফরে যাবেন উন। ২০৩২ সালের অলিম্পিক গেমস যৌথভাবে আয়োজনের ঘোষণাও দেন দুই নেতা।

উত্তর কোরিয়ার এসব প্রতিশ্রুতিকে গুরুত্বপূর্ণ বলে মন্তব্য করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও। তিনি বলেন, ‘আমি উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি এবং আগামী সপ্তাহে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনের এক ফাঁকে আমার সঙ্গে দেখা করার জন্য তাঁকে আমন্ত্রণ জানিয়েছি।’ তিনি বলেন, ‘পিয়ংইয়ং যাতে ২০২১ সালের মধ্যে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ সম্পন্ন করতে পারে, যে জন্য তাদের সঙ্গে শিগগিরই আলোচনায় বসতে ওয়াশিংটন প্রস্তুত রয়েছে।’

গত জুনে ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে উনের ঐতিহাসিক বৈঠকের পর ওয়াশিংটন ও পিয়ংইয়ংয়ের মধ্যকার আলোচনায় এক ধরনের অচলাবস্থা তৈরি হয়। এবারের আন্ত কোরিয়া সম্মেলন এবং পিয়ংইয়ংয়ের নতুন আশ্বাসে সেই অচলাবস্থা অনেকটাই দূর হলো। যদিও বিশ্লেষকরা পিয়ংইয়ংয়ের প্রতিশ্রুতি নিয়ে এখনো সন্দিহান।

অস্ত্র নিয়ন্ত্রণবিষয়ক গবেষক জেফরি লুইস বলেন, ‘উত্তর কোরিয়া পরমাণু নিরস্ত্রীকরণে যে মনোভাব দেখাচ্ছে, তা আমার কাছে মেকি মনে হয়। আমার কাছে মনে হয় না, তারা অর্থবহ কোনো পদক্ষেপ নিয়েছে। উত্তর কোরিয়ার হাবভাব এখন অনেকটা ইসরায়েলের মতো। সেটা এ রকম—উত্তর কোরিয়া পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের ভান ধরবে, আর আমরা তা বিশ্বাস করার ভান ধরব।’ সূত্র : এএফপি।



মন্তব্য