kalerkantho


জ্যাঁ ক্লদ জাংকার বললেন

বিশ্বমঞ্চে ইউরোপের প্রভাবশালী ভূমিকা রাখার এখনই সময়

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট জ্যাঁ ক্লদ জাংকার বলেছেন, ইউরোপকে অবশ্যই শক্ত অর্থনৈতিক সামর্থ্যের সঙ্গে সমন্বয় রেখে জোরদার পররাষ্ট্রনীতি নিয়ে বিশ্বমঞ্চে ‘প্রধান খেলোয়াড়ে’ পরিণত হতে হবে। ইউরোপীয় পার্লামেন্টে দেওয়া বার্ষিক ভাষণে গতকাল বুধবার এ আহ্বান জানান তিনি। আগামী বছর মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার আগে এটিই তাঁর শেষ ভাষণ।

এতে জাংকার আরো বলেন, অবৈধ অভিবাসীদের ঠেকাতে ২০২০ সালের মধ্যে আরো ১০ হাজারের বেশি রক্ষী ইউরোপীয় সীমান্তে মোতায়েন করা হবে।

ফ্রান্সের স্ট্র্যাসবার্গে ইউরোপীয় পার্লামেন্টে দেওয়া স্টেট অব ইইউ ভাষণে জাংকার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ‘যুক্তরাষ্ট্র সর্বাগ্রে’ নীতির বিপরীতে ইউরোপকে ‘বাণিজ্য ও মুদ্রা লড়াই’ মোকাবেলা করার আহ্বান জানান। ইউরোপের কড়া কূটনৈতিক ব্যবস্থা নেওয়ার ক্ষেত্রে অনেক সময়ই সদস্য ২৮টি দেশের মতবিরোধ বাধা হয়ে দাঁড়ায়। এই প্রক্রিয়া সহজ করতে জাংকার পররাষ্ট্রনীতিবিষয়ক ইস্যুতে ঐকম্যতের প্রয়োজনীয়তার বিষয়টি বাতিলের পরিকল্পনা কথা জানান।

ওয়াশিংটনের সঙ্গে ব্রাসেলসের শুল্ক থেকে শুরু করে প্যারিস জলবায়ু চুক্তি, ইরানের পরমাণু চুক্তিসহ নানা ইস্যুতে বিরোধ রয়েছে। জাংকার বলেন, ইউরোপের বিশ্বমঞ্চে আরো প্রভাবশালী ভূমিকা রাখার এখনই সময়। তিনি ইউরোপকে বৈশ্বিক মুদ্রায় রূপ দেওয়ার ওপরও জোর দেন। তিনি বলেন, ‘ইউরোপের আমদানি করা ৮০ শতাংশ জ্বালানির দাম পরিশোধ করা হয় ডলারে। যেখানে যুক্তরাষ্ট্র থেকে আমদানি করা হয় মাত্র ২ শতাংশ জ্বালানি।’

এ ছাড়া তিনি ২০২০ সালের মধ্যে ইইউর সীমান্তরক্ষী ও কোস্ট গার্ড বাহিনীকে আরো শক্তিশালী করতে অতিরিক্ত ১০ হাজার রক্ষী মোতায়েনের আহ্বান জানান। আগামী বছরের ৩১ অক্টোবর জাংকারের মেয়াদ শেষ হচ্ছে। তাঁর পুরো সময় অবৈধ শরণার্থী, বাড়তে থাকা ঋণ এবং ব্রেক্সিট নিয়ে তীব্র সংকটের মধ্যে পার হয়েছে। ভাষণে ব্রেক্সিট প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ইইউ থেকে ব্রিটেনের বের হয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্তের প্রতি তিনি শ্রদ্ধাশীল। তবে ব্রেক্সিটের পরও ব্রিটেনের ইইউর একই বাজার সুবিধা আশা করা ঠিক হবে না। সূত্র : বিবিসি, এএফপি।



মন্তব্য