kalerkantho


যুক্তরাষ্ট্রের ‘মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি পরিকল্পনা’ প্রস্তুত

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনিদের মধ্যে চলা দীর্ঘদিনের সংঘাত অবসানে হোয়াইট হাউসের শান্তি পরিকল্পনা প্রস্তুত বলে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত নিকি হ্যালি জানিয়েছেন। জাতিসংঘের সদর দপ্তরে গত মঙ্গলবার সাংবাদিকদের এ কথা জানিয়ে তিনি বলেন, ‘পরিকল্পনাটি আমি পড়ে দেখেছি। এটি পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে করা হয়েছে। জারেড কুশনার ও জ্যাসন গ্রিনব্লাট এ ব্যাপারে বিস্তারিত কাজ করেছেন।

এদিকে ইসরায়েলের একটি শীর্ষ আদালত দখলকৃত পশ্চিম তীরে ফিলিস্তিনি বেদুঈনদের গ্রাম খান আল-আহমার গুঁড়িয়ে দেওয়ার আদেশ বহাল রেখেছেন। গ্রামটি গুঁড়িয়ে দেওয়ার রায় চ্যালেঞ্জ করে আবেদনের পর শুনানি শেষে শীর্ষ আদালত এই সিদ্ধান্ত দেন।

অন্যদিকে ইসরায়েলের সেনাবাহিনী গত মঙ্গলবারের সংঘর্ষের জেরে গাজা উপত্যকার একমাত্র যাতায়াতের পথটি গতকাল বুধবার বন্ধ করে দিয়েছে। মাত্র ১০ দিন আগে এটি খুলে দেওয়া হয়েছিল।

ইসরায়েল-ফিলিস্তিন শান্তি পরিকল্পনার দায়িত্বে থাকা জারেড কুশনার হচ্ছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের জামাতা। ট্রাম্পের মধ্যপ্রাচ্যবিষয়ক জ্যেষ্ঠ উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। গ্রিনব্লাট মধ্যপ্রাচ্যের শান্তিদূত ও আন্তর্জাতিক আলোচনায় হোয়াইট হাউসের বিশেষ প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছেন। হোয়াইট হাউস দীর্ঘ প্রতিশ্রুত মধ্যপ্রাচ্যের শান্তিচুক্তিও প্রস্তুত করেছে। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এ চুক্তিকে ‘শতাব্দীর সেরা চুক্তি’ বলে অভিহিত করেছেন। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প কখন এ চুক্তি উপস্থাপন করতে যাচ্ছেন—সাংবাদিকের এমন প্রশ্নের জবাবে নিকি হ্যালি বলেন, ‘যদি কোনো নেতা আলোচনার টেবিলে আসেন, তখন এটি উপস্থাপন করা হবে। ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু আলোচনায় আসবেন, সে বিষয়টি আমরা নিশ্চিত করেছি। অন্যদিকে জনগণের ভালোর জন্য ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের আলোচনার টেবিলে আসা দরকার।’

খান আল-আহমার গুঁড়িয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত বাতিল করার জন্য ইসরায়েলের ওপর আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের ব্যাপক চাপ রয়েছে। তবে ইসরায়েল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, গ্রামটি অবৈধভাবে গড়ে উঠেছে। সিদ্ধান্ত বহাল রাখার বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের বিচারক প্যানেল তাঁদের রায়ে জানিয়েছেন, ‘আমরা আবেদনটি বাতিল করছি।’ তাঁরা আরো বলেন, ‘মামলার শুনানির সময় গ্রামটি গুঁড়িয়ে দেওয়ার আদেশ বাতিলের জন্য যে অস্থায়ী আদেশ দেওয়া হয়েছিল. তা আজ থেকে সাত দিনের মধ্যে বাতিল হয়ে যাবে।’ সূত্র : এএফপি।



মন্তব্য