kalerkantho


বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা ছাড়ার হুমকি দিলেন ট্রাম্প

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা ছাড়ার হুমকি দিলেন ট্রাম্প

বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা (ডাব্লিউটিও) থেকে সড়ে দাঁড়ানোর হুমকি দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তাঁর অভিযোগ, যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি সংস্থাটির আচরণ নিরপেক্ষ নয়। তিনি বলেন, এ পর্যন্ত যতগুলো বাণিজ্য চুক্তি হয়েছে, সেগুলোর মধ্যে ডাব্লিউটিও সবচেয়ে ‘নিকৃষ্ট’। গত বৃহস্পতিবার নিউ ইয়র্কভিত্তিক সংবাদ সংস্থা ‘ব্লুমবার্গ নিউজ’-এ দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব মন্তব্য করেন তিনি।

বাণিজ্য বিরোধ মেটাতে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এক চুক্তির মাধ্যমে গঠিত হয় ডাব্লিউটিও। সংস্থাটি গঠনের ক্ষেত্রে জোরালো ভূমিকা ছিল যুক্তরাষ্ট্রেরও। কিন্তু ট্রাম্প প্রায়ই ডাব্লিউটিওর বিরুদ্ধে নানা ধরনের মন্তব্য করেন।

এবারের সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প বলেন, ‘পরিস্থিতির উন্নতি না হলে আমি ডাব্লিউটিও থেকে সরে দাঁড়াব। সংস্থাটি প্রায় সময়ই যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে রায় দেয়। যদিও গত বছর আমরা বেশ কয়েকটি মামলায় জিতেছি। কেন জানেন? কারণ তারা জানে, না জিতলে আমি ডাব্লিউটিও থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে প্রত্যাহার করে নেব।’

চলতি বছরের শুরুতে ফক্স নিউজে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প বলেন, ‘ডাব্লিউটিও প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে শুধু যুক্তরাষ্ট্রকে বাদ দিয়ে অন্যদের সহযোগিতার করার জন্য। সেখানে প্রায় সব মামলাতেই আমরা হারি।’

বিশ্লেষকরা অবশ্য বলছেন, যুক্তরাষ্ট্র যেসব মামলার বাদী ছিল, সেগুলোর প্রায় ৯০ শতাংশ ক্ষেত্রেই তারা জয় পেয়েছে। আবার যেসব মামলায় তারা বিবাদী ছিল, সেগুলোতে প্রায় ৯০ শতাংশ হেরেছে। বিশ্লেষকরা আরো বলছেন, বিভিন্ন দেশের ওপর শুল্ক আরোপ করে বিশ্ব বাণিজ্যে ট্রাম্প যে অস্থিরতা তৈরি করেছেন, ডাব্লিওটিও থেকে সরে দাঁড়ানোর হুমকি সেই অস্থিরতা আরো বাড়িয়ে দেবে।

বাণিজ্য বিরোধ মেটাতে ডব্লিউটিওর যে নিষ্পত্তি বিভাগ রয়েছে, তাতে নতুন বিচারক নিয়োগ সম্প্রতি আটকে দেয় ট্রাম্প প্রশাসন। ফলে সংস্থাটির বিচারক্ষমতাই অচল হয়ে পড়তে পারে। ডব্লিউটিওতে নিযুক্ত মার্কিন প্রতিনিধি রবার্ট লাইটজার সম্প্রতি অভিযোগ করেন, সংস্থাটি যুক্তরাষ্ট্রের সার্বভৌমত্বে হস্তক্ষেপ করছে।

বিশ্ব অর্থনীতিতে এখন সবচেয়ে বেশি আলোচিত ইস্যু যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের চলমান বাণিজ্য বিরোধ। গত কয়েক মাসে দুই দফায় হাজার হাজার কোটি ডলারের চীনা পণ্যে অতিরিক্ত আমদানি শুল্ক বসায় ট্রাম্প প্রশাসন। শোনা যাচ্ছে, তৃতীয় দফায় আরো ২০ হাজার কোটি ডলারের চীনা পণ্যে শুল্ক বসানোর প্রস্তুতি চলছে। ‘ব্লুমবার্গ নিউজ’-এ দেওয়া সাক্ষাৎকারে এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হয় ট্রাম্পের কাছে। জবাবে তিনি বলেন, ‘খবরটি পুরোপুরি মিথ্যা নয়।’

‘প্রতিশোধ’ নিতে একই পদক্ষেপ নেয় চীনও। এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের আরোপ করা শুল্কের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে গত জুলাইয়ে তারা ডাব্লিওটিওতে অভিযোগও জানায়। চীনের বাণিজ্য মন্ত্রণালয় মনে করে, ‘যুক্তরাষ্ট্র নিশ্চিতভাবেই বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার নিয়ম লঙ্ঘন করেছে।’

এদিকে ডাব্লিউটিও থেকে যেন যুক্তরাষ্ট্র বেরিয়ে না যায়, সে জন্য ইউরোপীয় ইউনিয়নও (ইইউ) অবশ্য সংস্থাটির সংস্কার চায়। তবে সবার আগে ইইউ এটা নিশ্চিত হতে চায় যে যুক্তরাষ্ট্র আদৌ সংস্কার চায় কি না। ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের বাণিজ্যবিষয়ক কমিটির সভাপতি বার্নড ল্যাংগে সম্প্রতি ‘পলিটিকো’ সাময়িকীতে এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘আমরা সেপ্টেম্বরে (চলতি মাসে) বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থায় একটা সংস্কার প্রস্তাব উপস্থাপন করব। আর তখনই পরিষ্কার হবে, যুক্তরাষ্ট্র আসলেই সংস্কার চায় কি না।’ সূত্র : বিবিসি।



মন্তব্য