kalerkantho


ত্রিপুরায় বন্যা, মৃত ৬

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২২ মে, ২০১৮ ০০:০০



একনাগাড়ে বর্ষণ থেকে বন্যায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে ভারতের ত্রিপুরা রাজ্য। চার দিন ধরে মুষলধারায় বৃষ্টি হওয়ার ফলে জলমগ্ন হয়ে পড়েছে রাজ্যের বিভিন্ন এলাকা। বন্যায় এ পর্যন্ত ছয়জন মারা গেছে। তিন হাজার পরিবারকে আশ্রয়শিবিরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তিনটি নদীর পানির স্তর বিপত্সীমার ওপর দিয়ে বইছে। আগরতলার বেশির ভাগ জনবসতি এখন পানির তলায় বলে খবর পাওয়া গেছে।

ত্রিপুরা প্রশাসন সূত্রের খবর, বন্যা পরিস্থিতি মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। উত্তর ত্রিপুরার পার্বত্য এলাকাতেও পানির স্তর বাড়তে শুরু করেছে। সেখান থেকেও মানুষজনকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আসাম-আগরতলা জাতীয় সড়ক বন্যায় ডুবে গেছে। ট্রাফিক ব্যবস্থা সেখানে মুখ থুবড়ে পড়েছে। এই পরিস্থিতিতে সব স্কুল-কলেজে ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। ৩৬টি আশ্রয়শিবিরে বন্যাদুর্গত তিন হাজার পরিবারকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। গতকাল সোমবার থেকে জাতীয় বিপর্যয় মোকাবেলা দপ্তর, ফায়ার সার্ভিস, বেসামরিক প্রতিরক্ষা দপ্তর এবং সেচ্ছাসেবী সংগঠনগুলো যৌথ উদ্যোগে কাজে নেমেছে।

রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী রতনলাল নাথ জানান, ইতিমধ্যে বন্যাদুর্গত এলাকা পরিদর্শন ও পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে। তিনি বলেন, ‘মুখ্যমন্ত্রীসহ অন্য মন্ত্রীরা গুয়াহাটিতে একটি কর্মসূচিতে আটকে পড়েছেন। তবে তাঁরা খবর নিচ্ছেন প্রতিনিয়ত। আমি সব দপ্তরকে নির্দেশ পাঠিয়ে দিয়েছি বন্যায় আক্রান্ত মানুষকে সব ধরনের সাহায্য করার জন্য। মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব বন্যায় আক্রান্ত পরিবারগুলোকে সব ধরনের আর্থিক সাহায্য দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন।’ সূত্র : পিটিআই।

 



মন্তব্য