kalerkantho


সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্টের বিবৃতি

মালদ্বীপে ভারতের নেতৃত্বে বৈশ্বিক সহায়তা কামনা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



মালদ্বীপের সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট মোহামেদ জামিল আহমেদ তাঁর দেশে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে ভারতের নেতৃত্বে আন্তর্জাতিক প্রচেষ্টা কামনা করেছেন। গতকাল রবিবার ভারতকে এই আন্তর্জাতিক প্রচেষ্টার নেতৃত্ব দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে মালদ্বীপের অভ্যন্তরীণ সব প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে।

গত ১ ফেব্রুয়ারি মালদ্বীপের সুপ্রিম কোর্ট বরখাস্ত হওয়া ১২ এমপির পার্লামেন্ট সদস্যপদ পুনর্বহাল করে রায় দিয়েছেলিন। এর ফলে বিরোধী দল মালদিভিয়ান ডেমোক্রেটিক পার্টি পার্লামেন্টে সংখ্যাগরিষ্ঠ দলে পরিণত হয়, যা প্রেসিডেন্ট আব্দুল্লাহ ইয়ামিন সরকারের টিকে থাকার জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়ায়। এ অবস্থায় ৪ ফেব্রুয়ারি সুপ্রিম কোর্ট আরেকটি সর্বসম্মত রায়ে পুনর্বহালকৃত ১২ এমপির মধ্যে জেলে থাকা ৯ নেতাকে কারাগার থেকে মুক্তির নির্দেশ দেন। এরপরই প্রেসিডেন্ট ইয়ামিন সুপ্রিম কোর্টের আদেশ মানতে অস্বীকার করেন এবং জরুরি অবস্থা জারি করে প্রধান বিচারপতিসহ দুই বিচারপতিকে গ্রেপ্তার করেন।

মোহামেদ জামিল গতকাল এক বিবৃতিতে বলেন, ‘এই পরিস্থিতিতে আমার অভিমত হচ্ছে, বিশ্ব সম্প্রদায়কে অবশ্যই সহায়তার জন্য এগিয়ে আসতে হবে। আমি বিশ্বাস করি, মালদ্বীপে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে আন্তর্জাতিক প্রচেষ্টায় ভারতের অবশ্যই নেতৃত্ব দিতে হবে।’ এ জন্য আন্তর্জাতিক আইনের অধীনের সম্ভাব্য সব ধরনের বৈধ উপায় কাজে লাগানোর আহ্বান জানান তিনি।

সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে মালদ্বীপের জনগণ সব ধরনের প্রচেষ্টা চালিয়েছে। বিচার বিভাগ তাদের রায় দিয়েছে। পার্লামেন্ট চেষ্টা করেছে। সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানগুলোও চেষ্টা করেছে। কিন্তু মালদ্বীপে আইনের শাসন ও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে সব প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে।

ভারতের পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি। যদিও এর আগে প্রায় একই ধরনের আহ্বান জানিয়েছিলেন মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহামেদ নাশিদ। তবে চলতি প্রথম সপ্তাহে জরুরি অবস্থা জারি ও বিচারপতিদের গ্রেপ্তারে ভারত উদ্বেগ ও নিন্দা প্রকাশ করেছিল। পরে মালদ্বীপে জরুরি অবস্থার মেয়াদ ৩০ দিন বৃদ্ধি করায় গত বৃহস্পতিবার ফের অসন্তোষ প্রকাশ করে ভারত এক বিবৃতিতে বলেছে, তারা জরুরি অবস্থা জারির কোনো কারণ দেখছে না। বিবৃতিতে বিরোধী দলের নেতাদের এবং বিচারপতিদের মুক্তি দাবি করা হয়। এ ব্যাপারে মালদ্বীপের ইয়ামিন সরকার এক প্রতিক্রিয়ায় বলেছে, ভারত মালদ্বীপের প্রকৃত অবস্থা এড়িয়ে যাচ্ছে। সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া।



মন্তব্য