kalerkantho


জলঢাকায় মঞ্চস্থ হলো নাটক লাল জমিন

জলঢাকা (নীলফামারী) প্রতিনিধি   

২৮ এপ্রিল, ২০১৮ ১৫:২৮



জলঢাকায় মঞ্চস্থ হলো নাটক লাল জমিন

নীলফামারীর জলঢাকায় মুক্তিযুদ্ধ ও যুদ্ধোত্তর বাংলাদেশে এক নারীর সংগ্রামী জীবনের কাহিনী নিয়ে মঞ্চস্থ হয় নাটক লালজমিন। সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় এটি ১৫৩ তম মঞ্চায়ন। নাটকের গল্পে উঠে এসেছে,চৌদ্দ বছর ছুঁই ছুঁই এক কিশোরীর গল্প। কিশোরীর দুচোখ জুড়ে মানিক বিলের আটক লাল পদ্মের জন্য প্রেম।তার কৈশরেই শোনে বাবা মায়ের মধ্য রাতের গুনঞ্জন। শুধু দুটি শব্দ কিশোরীর মস্তকে আর মনে জেগে রয়,মুক্তির স্বাধীনতা। ঐ বয়সে কিশোরী এক ছায়ার কাছ থেকে প্রেম পায়। বাবা যুদ্ধে চলে যায় অগোচরে-কিশোরী নানা কৌশলে যুদ্ধে যাবার আয়োজন করে,সশস্ত্র যুদ্ধ। বয়স তাকে অনুমোদন দেয় না।

এবার কিশোরীর সেই ছায়া-প্রেম সম্মুখে দাঁড়ায়,কিশোরী তার সেনাপতিকে চিনতে পারে। তারপর যুদ্ধযাত্রা... লক্ষে পৌঁছুবার আগেই পুরুষ যোদ্ধারা শহীদ হন,কেউ নদীর জলে হারিয়ে যান। পাঁচ যুবতীসহ যুদ্ধযাত্রী এই কিশোরীর জীবনে ঘটে নানা অভিজ্ঞতা।চৌদ্দ বছরের কিশোরীর ধবধবে সাদা জমিন যুদ্ধকালীন নয় মাসে রক্তরাঙা হয়ে উঠে। লাল জমিন কিশোরীর রক্তরাঙা অভিজ্ঞতার মুক্তিযুদ্ধ ও যুদ্ধোত্তর এক নারীর সংগ্রামী জীবনের নাট্যপ্রকাশ লালজমিন। শুক্রবার রাত আটটায় উপজেলা পরিষদ হল রুমে উপস্থিত দর্শকদের আবেগ তাড়িত করেন একক নাট্য অভিনেত্রী মোমেনা চৌধুরী।

নাটকে আগত অশ্রু সজল দর্শক মর্তুজা ইসলাম,সফিকুর রহমান ও বেলী বেগম জানান, এলাকায় বিভিন্ন সময়ে নাটক মঞ্চস্থ হয় ,সেগুলো তেমন ভাবে অভিনেতা-অভিনেত্রীরা ফুটিয়ে তুলতে পারেনা। আসলেই আজ মনটা জুড়িয়ে গেল। এ থেকে আমরা যে শিক্ষাটি পেলাম তাহলো মুক্তিযুদ্ধ-স্বাধীনতা ও দেশপ্রেম। আমাদের সবাইকে মুক্তিযুদ্ধকে স্মরণ ও দেশকে ভালবাসতে হবে। নাটক শেষে এক প্রতিক্রিয়ায় অভিনেত্রী মোমেনা চৌধুরী কালের কন্ঠকে বলেন, আমাদেরকে মুক্তিযুদ্ধ ভুলে গেলে চলবেনা। সবাইকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত হতে হবে। জলঢাকা থানা অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজার রহমান বলেন,মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযুদ্ধোত্তর ইতিহাসের উপর রচিত লালজমিন সামাজিক ভাবে দেশপ্রেমে সবাইকে উদ্বুদ্ধ করবে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উত্তম কুমার রায় কালের কণ্ঠকে বলেন, লালজমিন নাটক মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশ গড়তে অপরিসীম ভুমিকা রাখবে।

 



মন্তব্য