kalerkantho


বিজয় সরকার মেলায় ধুয়োগান ও পটগান

নড়াইল প্রতিনিধি    

৫ ডিসেম্বর, ২০১৭ ১৪:৪৬



বিজয় সরকার মেলায় ধুয়োগান ও পটগান

নড়াইলে চলছে দুই দিনব্যাপী কবিয়াল বিজয় সরকার মেলা। মেলার প্রথম দিনে দিনভর বিজয়গীতি পরিবেশিত হয়।

শিল্পকলা একাডেমির মঞ্চে সারাদিন নড়াইলের আনাচে কানাচে থাকা নানা বয়সী বিজয়ভক্তরা মঞ্চে এসে গান পরিবেশন করেন।

সন্ধ্যায় কবিয়াল বিজয় সরকারের ওপর আলোচনা শেষে মঞ্চে উপস্থিত হন ভারতের বিজয় ভক্তরা। কবি বিজয় সরকারের ছেলে কাজল অধিকারীর সঙ্গে ভারতের অতিথিরা প্রবেশ করলে তাদের সানন্দে গ্রহণ করে উত্তরীয় পরিয়ে পরিচয় করিয়ে দেন বিজয় সরকার ফাউন্ডেশনের যুগ্ম আহ্বায়ক আকরাম শাহীদ চুন্নু।

রাতে বাংলাদেশ ও ভারতের শিল্পীরা বিজয়গীতি পরিবেশন করেন। এরপর রাতের আসর মাতিয়ে তোলে খুলনা বেতারের শিল্পী কবি ইলিয়াস ফকিরের দল। কবিয়াল বিজয় সরকার কবিগানের আসরে বসেই যেসব ছন্দ রচনা করতেন সেই সব ধুয়োগান পরিবেশ করেন তারা। মেলার প্রথম দিনের অন্যতম আকর্ষণ ছিল পটগান। হারিয়ে যাওয়া পটগানকে নতুনভাবে উপস্থাপন করেন খুলনার রূপান্তরের পট শিল্পীরা। রাত তখন সাড়ে ৯টা।

ঢোলের তালে নাচতে নাচতে পটের ছবি হাতে নিয়ে প্রবেশ করে পটশিল্পীরা।

গেরুয়া পরা পটগানের শিল্পীরা নানা সুরে তুলে ধরেন কবিয়াল বিজয় সরকারেরর জীবনী। কবির জন্ম, বেড়ে ওঠা, তার দর্শন চিন্তা নিয়ে প্রায় দেড় ঘণ্টা ধরে চলে পটগান। দর্শকরা মুগ্ধ হয়ে উপভোগ করেন নানা ছবিতে বিজয় সরকারের জীবন। একে একে পটের ছবি ঘুরতে ঘুরতে শেষ হয় পোশা পাখি উড়ে গেল কীভাবে- সেই বর্ণনা দিয়ে।

পটগান শুনতে শুনতে দর্শকের চোখে জল আসে। গবিগানের আদলে গাওয়া পটগানে টপ্পা গানের মাধ্যমে শেষ করেন গায়ক। পরে পট গুছিয়ে আবার নাচতে নাচতে তারা চলে যান।

কবিয়াল বিজয় সরকারের ৩২তম তিরোধান দিবসে নড়াইলে চলছে দুই দিনব্যাপী বিজয় সরকার মেলা।

বিজয়মেলা উপলক্ষে মঙ্গলবার সকালে শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে ভারত-বাংলাদেশের যৌথ সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।  সন্ধ্যায় গত তিন বছরের বিজয় স্বর্ণপ্রদক প্রদান করা হবে। এ ছাড়া রয়েছে দেশের তিনজন প্রখ্যাত কবিয়ালের কবিগান।


মন্তব্য