kalerkantho

বিয়ের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় যুবতীকে কুপিয়ে জখম

ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২৬ মার্চ, ২০১৯ ২০:৪০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বিয়ের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় যুবতীকে কুপিয়ে জখম

কুপিয়ে জখমকারী মোহেন্দ্র বিশ্বাস

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে বাবার বয়সী লোকের বিয়ের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় অঞ্জনা রানী শীল নামে এক যুবতীকে কুপিয়ে জখম করেছে মোহেন্দ্র বিশ্বাস নামের বিয়ে পাগল এক মধ্যবয়সী উত্যক্তকারী।

প্রত্যক্ষদর্শীরা অঞ্জনা শীলকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে স্থানীয় প্রাইভেট হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। অপরদিকে দা হাতে পালিয়ে যাবার সময় স্থানীয় লোকজন বিয়ে পাগল মোহেন্দ্রকে আটক করে উত্তম-মাধ্যম দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে।

আজ মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে শহরের মাতৃকা জেনারেল হাসপাতালের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, আহত অঞ্জনা ভৈরব মাতৃকা জেনারেল হাসপাতালের সেবিকা। তিনি নরসিংদী জেলার মনোহরদী উপজেলার চালাকচর গ্রামের নারায়ন চন্দ্র শীলের মেয়ে। অপরদিকে আটকৃত মোহেন্দ্র বিশ্বাস সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার মুকুন্দ বিশ্বাসের পুত্র বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে মাতৃকা জেনারেল হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক লায়ন মোহাম্মদ কামাল হোসেন জানান, আহত অঞ্জনা রানী শীল মাতৃকা জেনারেল হাসপাতালে ল্যাব সহকারী হিসেবে বিগত ৩ বছর যাবৎ কর্মরত আছেন। তিনি শহরের পঞ্চবটি এলাকায় একটি ভাড়া বাসায় থাকতেন। আর বখাটে মোহেন্দ্র বিশ্বাস পাশের একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতো। একই এলাকায় পাশাপাশি থাকার  সুবাদে মোহেন্দ্র বিশ্বাস প্রায়ই অঞ্জনাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতো। বাবার বয়সী মোহনের উত্যক্ততায় অতিষ্ঠ হয়ে গত বছর দেড়েক আগে অঞ্জনা ভাড়া বাসা ছেড়ে হাসপাতালের আবাসিক বাসভবনে থাকতে শুরু করে। যার ফলে মোহেন্দ্র আর অঞ্জনার মাঝে দূরত্বের সৃষ্টি হয়। আর এ দূরত্বকে মেনে নিতে পারেনি মোহেন্দ্র। যার ফলশ্রুতিতে অঞ্জনাকে মেরে ফেলার উদ্দেশ্যে শেষেমেশ দা হাতে বেড়িয়ে পড়ে প্রেমে পাগল মোহেন্দ্র। পরে বেলা ১১টার দিকে অঞ্জনা হাসপাতালের সামনে এলে আগ থেকে ওৎ পেতে থাকা উত্যক্তকারী মোহেন্দ্র তাকে দা দিয়ে তাড়া করে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। পরে দা হাতে নিয়েই পালিয়ে যাবার সময় পৌর শহরের তাতার-কান্দি গ্রাম থেকে এলাকাবাসী মোহেন্দ্রকে আটক করে থানায় সোপর্দ করে। 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ভৈরব থানার জ্যেষ্ঠ উপ-পরিদর্শক সাইফুল ইসলাম শ্যামল ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন এবং এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে বলেও জানান।

মন্তব্য