kalerkantho

উপজেলা পরিষদ নির্বাচন

চিংড়ি শ্লোগানে মুখর কোটালীপাড়া

কোটালীপাড়া (গোপালগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২২ মার্চ, ২০১৯ ১০:৩৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চিংড়ি শ্লোগানে মুখর কোটালীপাড়া

‘জয় বাংলা জিতবে এবার চিংড়ি’-এই শ্লোগানে মখুর এখন গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া। প্রধানমন্ত্রীর নিজ নির্বাচনী এলাকার এই উপজেলায় কোনো প্রার্থীকেই দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হয়নি। স্বতন্ত্র ভাবে চেয়ারম্যান পদে তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এরা হলেন- বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান হাওলাদার( চিংড়ি মাছ), সাবেক চেয়ারম্যান বিমল কৃষ্ণ বিশ্বাস,(দোয়াত কলম) আওয়ামী লীগ নেতা কমল চন্দ্র সেন (আনারস)।

আজ প্রচারণার শেষ দিনে তিন প্রার্থীই নির্বাচনী মাঠ দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন। প্রার্থীদের কর্মী-সমর্থকরা ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট প্রার্থনা করছেন।

এদিকে প্রচার-প্রচারণা ও জনপ্রিয়তায় চিংড়ি প্রতীক এগিয়ে রয়েছে বলে সরেজমিনে জানা গেছে। গোটা কোটালীপাড়া এখন চিংড়ি শ্লোগানে মুখর। তবে তিন প্রার্থীই জয়ের জন্য আশাবাদী।

আওয়ামী লীগের দূর্গবলে খ্যাত এই উপজেলায় আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হয়নি। এ কারণে আওয়ামী লীগ দলীয় নেতা-কর্মীরা তিন প্রার্থীর পিছনে বিভক্ত হয়ে প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন। 

গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান হাওলাদার বিপুল ভোটের ব্যবধানে বিমল কৃষ্ণ বিশ্বাসকে পরাজিত করেন। এবারও এই দুই প্রার্থীর মাঝে লড়াই হবে বলে সাধারণ ভোটাররা মনে করছেন। তবে কমল চন্দ্র সেনও একটি শক্ত অবস্থানে রয়েছেন বলে তার কর্মী-সমর্থকরা মনে করছেন।

উপজেলা আাওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুভাষ চন্দ্র জয়ধর বলেন, যেহেতু এখানে দলীয় মনোনয়ন নেই। তাই আমি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর অন্যতম সদস্য জননেতা কাজী আকরাম উদ্দিন আহমেদের নির্দেশে মুজিবুর রহমান হাওলাদারের নির্বাচন করছি। মুজিবুর রহমান হাওলাদার একজন অসাম্প্রদায়িক নেতা। আশা করি এবারও ভোটাররা তাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবেন।

উল্লেখ্য: আগামী রবিবার কোটালীপাড়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

মন্তব্য