kalerkantho

মুকসুদপুরে সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবিতে মানববন্ধন

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি   

২০ মার্চ, ২০১৯ ২০:৫৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মুকসুদপুরে সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবিতে মানববন্ধন

গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরে সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচী পালিত হয়েছে। আজ বুধবার দুপুরে মুকসুদপুর উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. কাবির মিয়ার সমর্থকরা মুকসুদপুর উপজেলার কমলাপুর ব্রিজের উপর এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে।

সম্প্রতি প্রতিপক্ষ চেয়ারম্যান প্রার্থীর হামলার প্রতিবাদ এবং সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশের দাবিতে এ মানববন্ধন পালিত হয়। মানববন্ধনে মো. কাবির মিয়ার সহস্রাধিক কর্মী ও সমর্থকরা অংশগ্রহণ করে।

প্রসঙ্গত, গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আনারস প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. কাবির মিয়ার নির্বাচনী প্রচারণায় বাধা এবং বিভিন্ন স্থানে কর্মীদের উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। এসব নিয়ে মুকসুদপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রতিদ্বন্দ্বী দুই চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. কাবির মিয়া (আনারস) ও এম এম মহিউদ্দিন আহম্মেদ মুক্ত (মোটরসাইকেল) মুন্সির সমর্থকদের  মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

আনারস প্রতীকের প্রার্থী মো. কাবির মিয়া অভিযোগ করে বলেন, গতকাল মঙ্গলবার খান্দারপাড় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাব্বির খানের নেতৃত্বে তার লোকজন আমার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী এম এম মহিউদ্দিন আহম্মেদ মুক্ত মুন্সীর পক্ষ নিয়ে মুকসুদপুর ডিগ্রি কলেজ মোড়ে আমার নির্বাচনী প্রচারণার অফিস, আওয়ামী মোটর চালক লিগের অফিস, হোটেল, সেলুন, মুদির দোকান, বন্ধ থাকা কয়েকটি দোকান, মুকসুদপুর উপজেলা আওয়ামী মোটর চালক লীগের সভাপতি সামচুল আরেফিন মুক্তার নিজের ব্যবহৃত প্রাইভেটকার এবং কয়েকটি কাউন্টার ভাঙচুর চালিয়েছে।

এ ছাড়াও আনারসের প্রচারণার মাইক, অফিসের টেলিভিশন, কাউন্টারের তিনটি ল্যাপটপসহ গুরুত্বপূর্ণ দ্রব্যাদি লুট করে নিয়েছে। এর আগেও এম এম মহিউদ্দিন আহম্মেদ মুক্ত মুন্সীর লোকজন আমার কর্মীদের হামলা ও বাড়ি-ঘর ভাঙচুরের ঘটনা ঘটিয়েছে।

মুকসুদপুর ও কাশিয়ানী অঞ্চলের সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল) রায়হান হোসেন বলেন, মঙ্গলবারের হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনায় কেউ লিখিত অভিযোগ করেননি। তাই কোনো ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব হয়নি। এসব ঘটনায় বুধবার সকাল থেকে বিবাদমান দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মি সমর্থক দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে দাঙ্গা-হাঙ্গামা করার প্রস্তুতি নেয়। পুলিশ উভয় পক্ষকে শান্ত হওয়ার আহ্বান জানিয়ে সবাইকে বাড়িতে ফিরিয়ে দিয়েছেন। এখন মুকসুদপুরে শান্ত পরিবেশ বিরাজ করছে। তারপরও অপ্রিতিকর পরিবেশ যাতে নতুন করে সৃষ্টি না হয় সে জন্য উপজেলা সদরের বিভিন্ন স্থানে পুলিশ পাহারা বসানো হয়েছে।

মন্তব্য