kalerkantho

সভাপতিকে কুপিয়ে গুরুতর জখম : গ্রেপ্তার না হওয়ায় জেলা সরকারি কর্মচারীদের মধ্যে অসন্তোষ

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর   

১৮ মার্চ, ২০১৯ ১৫:২৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সভাপতিকে কুপিয়ে গুরুতর জখম : গ্রেপ্তার না হওয়ায় জেলা সরকারি কর্মচারীদের মধ্যে অসন্তোষ

গাজীপুর জেলা তৃতীয়-চতুর্থ শ্রেণি কর্মচারী সমিতির সভাপতি হেলাল উদ্দিনকে (৫৬) কুপিয়েছে সন্ত্রাসীরা। গুরুতর আহত অবস্থায় হেলাল উদ্দিনকে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাঁর মাথা, পিঠ ও বুকে কোপ লেগেছে। পুকুর থেকে মাছ ধরার সময় ওই হামলার ঘটনা ঘটে। তাঁকে রক্ষা করতে গিয়ে আহত হয়েছে ছোট ভাই দেলোয়ার হোসেনসহ আরো তিনজন। এ ঘটনায় সরকারী কর্মচারীদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। 

দোলোয়ার হোসেন জানান, গাজীপুরের মাইজপাড়া এলাকায় একটি খাস পুকুর (কমলা পুকুর) এক বছর আগে ইজারা নিয়ে তিনি মাছ চাষ করেন। গত শুক্রবার পুকুরে মাছ চাষ করতে গেলে ওই এলাকার আনোয়ার হোসেন উজ্জল ও তার ভাই ইউপি সদস্য তোফাজ্জল হোসেনের নেতৃত্বে ৮-৯জন সন্ত্রাসী দা, লাঠি নিয়ে তার উপর অতর্কিত হামলা করে। তার ডাক-চিৎকারে বড় ভাই হেলাল উদ্দিন রক্ষা করতে গেলে সন্ত্রাসীরা তার ভাইকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করে। এ সময় মাছের খাদ্য বিক্রেতা কাওসার মোড়ল ও জামাল উদ্দিন তার ভাইকে রক্ষা করতে গেলে তাদের উপরও হামরা হয়। তাদের চিৎকারে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা প্রায় সোয়া দুই লাখ টাকার মাছ, ৭০ হাজার টাকা মূল্যের জাল এবং  দুই ভাইয়ের কাছে থাকা মাছ বিক্রির ১ লাখ ১৫ হাজার টাকা লুট করে নিয়ে যায়। খবর পেয়ে স্বজনা হেলাল উদ্দিনসহ তাদের গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। 

তিনি আরো জানান, হামলাকারীরা বেশ কিছুদিন ধরে মাছ চাষে বাধা ও মাছ লুটে নেয়ার হুমকি দিয়ে আসছিল। এলাকায় এরা নানা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করে বেড়ায়। এ ঘটনায় তিনি বাদি হয়ে হয়ে ৯ জনকে আসামি করে মামলা করেছেন। 

হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক প্রণয় ভূষণ দাস জানান, হেলাল উদ্দিনের মাথায় তিনটি ধারালো অস্ত্রের কোপ রয়েছে। সেখানে ১৬টি সেলাই দিতে হয়েছে। এছাড়ার তার বুক ও পিঠে কোপ ও লাঠির আঘাত রয়েছে। 

জেলা তৃতীয়-চতুর্থ শ্রেণি কর্মচারী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. শফিকুল ইসলাম জানান, মামলার আসামিরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। পুলিশকে জানানো হলেও গ্রেপ্তার করছে না। বিষয়টি তারা জেলা প্রশাসককে জানিয়েছেন। এ ঘটনায় কর্মচারীদের মধ্যে অসন্তোষ ও ক্ষোখ বিরাজ করছে।  আসামিদের গ্রেপ্তার করা না হলে কর্মসূচী দেয়া হবে। 

মন্তব্য