kalerkantho


পাকুন্দিয়ায় পূর্ব শত্রুতার জের

সন্ত্রাসী হামলায় হাসপাতালে কাতরাচ্ছে শাহজাহান, মামলা নিচ্ছে না পুলিশ

পাকুন্দিয়া (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি   

১৫ মার্চ, ২০১৯ ১৬:০২



সন্ত্রাসী হামলায় হাসপাতালে কাতরাচ্ছে শাহজাহান, মামলা নিচ্ছে না পুলিশ

ছবির ক্যাপশন: ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহত শাহজাহান, ছবি: কালের কণ্ঠ

পূর্ব শত্রুতার জেরে কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় শাহজাহান (৩৫) নামে এক ব্যক্তি সন্ত্রাসীদের হামলায় আহত হয়ে গত ৮দিন ধরে যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে হাসপাতালের বিছানায়। আহত শাহজাহান উপজেলার বুরুদিয়া ইউনিয়নের কাগারচর গ্রামের মৃত ছয়েব আলীর ছেলে। এ ঘটনায় প্রভাবশালীদের চাপে থানায় মামলা নিচ্ছে না বলে অভিযোগ তার পরিবারের। 

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, গত বুধবার রাতে উপজেলার কাগারচর গ্রামের হিন্দু বাড়িতে অনুষ্ঠিত হিন্দুদের ধর্মীয় অনুষ্ঠান দেখতে যান শাহজাহান। অনুষ্ঠান শেষে রাত সাড়ে ১২টার দিকে বাড়ি ফেরার পথে পাশের খামা গ্রামে একটি ইটভাটার সামনে পৌঁছলে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে একই গ্রামের মৃত জামের উদ্দিনের ছেলে শামসুর নেতৃত্বে ৭-৮ জন সন্ত্রাসী তার ওপর সশস্ত্র হামলা চালায়। এসময় সন্ত্রাসীরা তাকে বেধরক মারধর করে একটি হাত ও দুটি পা ভেঙে দেয়। পরে তাকে টেনে হিঁচড়ে শামসুর বাড়িতে নিয়ে আটকে রাখে। 

খবর পেয়ে শাহজাহানের লোকজন ওই বাড়িতে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে রাতেই চিকিৎসার জন্য কিশোরগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করে। অবস্থা আশঙ্কানক থাকায় উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠান কর্তব্যরত চিকিৎসক। বর্তমানে তিনি ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। 

এ ব্যাপারে শাহজাহানের বড় ভাই নূরুল ইসলাম বলেন, আমার ছোট ভাই শাহজাহান একজন নিরীহ ছেলে। অপরদিকে শামসু কুখ্যাত সন্ত্রাসী, মাদক পাচারকারী ও সকল অপকর্মের সাথে জড়িত। তার ভয়ে এলাকায় তার বিরুদ্ধে কেউ কিছু বলতে সাহস পায় না। গত তিনদিন ধরে থানায় ঘুরছি। কিন্তু শামসুর বিরুদ্ধে মামলা নিচ্ছে না পুলিশ। 

আঙিয়াদি গ্রামের হাবিব মিয়া বলেন, শামসু এলাকার সন্ত্রাসী। সে ইয়াবা মাদকসহ সকল অপকর্মের সাথে জড়িত। সে ইয়াবা ব্যবসা করে লাখ লাখ টাকার মালিক হয়েছে। তার বিরুদ্ধে থানায় ও আদালতে অনেক মামলা রয়েছে। গত কয়েকদিন আগে ডিবি পুলিশ তাকে ধরতে আসে। শাহজাহান ডিবি পুলিশকে খবর দিয়ে এনেছিল এমন সন্দেহে শামসু তার গুণ্ডাবাহিনী দিয়ে শাহজাহানের ওপর আক্রমণ চালিয়ে তার হাত পা ভেঙে দেয়। আমরা এর সুষ্ঠ বিচার চাই। 

এ ব্যাপারে থানায় অভিযোগ করা হলে তা তদন্তের দায়িত্ব পড়ে পাকুন্দিয়া থানার উপ পরিদর্শক আলমগীর হোসেনের ওপর। তার কাছে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে এলাকায় তদন্তে এসেছি। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 



মন্তব্য