kalerkantho


খননের অভাবে ভৈরবের মানচিত্র থেকে বিলীনের পথে পাঁচ নদী

ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৮:০৮



খননের অভাবে ভৈরবের মানচিত্র থেকে বিলীনের পথে পাঁচ নদী

কিশোরগঞ্জের ভৈরবের মেঘনা, ব্রহ্মপুত্র, শীতলপাটি, কালিনদী ও কোদালকাটি নদীতে বছরের পর বছর ধরে পলি জমে নাব্যতা কমে যাচ্ছে। এসব নদীতে এখন প্রায় পানি শূন্য হয়ে বন্ধ রয়েছে নৌযান-চলাচল। 

বিগত বছর ছয়েক আগেও এসব নদীর দু’পাড়ে হাজার হাজার কৃষক নদীর পানি দিয়ে শত শত হেক্টর জমিতে চাষাবাদ করত। ছোট-বড় নানান জাতের মাছের অফুরন্ত উৎস ছিল এই নদীগুলো। 

কালের সাক্ষী হয়ে কোনো রকম টিকে থাকা নদীগুলো এখন ভরা যৌবন হারিয়ে যেন পরিণত হয়েছে মরাখালে। দীর্ঘদিন ধরে নদী খনন না করায় নাব্যতা কমে গিয়ে নদীগুলো এখন প্রায় অস্তিত্ব বিলীনের পথে। পুনরায় খননের মধ্য দিয়ে নদীগুলোর নাব্যতা ফিরে আনা সম্ভব বলে ধারণা করছেন নদীর পাড়ের বাসিন্দারা।

নদী বন্দর হিসেবে খ্যাত ভৈরবের পরিচিতি আর আগের মতো নেই। এক সময় এ সকল নদীর বন্দরকে ঘিরে যে প্রাণচাঞ্চল্য বিরাজ করত বর্তমানে সেই নদীবন্দরে চলছে ইরি-বোরো ধানের আবাদ। বিগত দিনে খরস্রোতা এ নদীগুলো দিয়ে পাঁচশ মনি নৌকা, লঞ্চ আর ট্রলারের চলাচল থাকলেও খননের অভাবে বর্তমানে মানচিত্র থেকে হারিয়ে যাচ্ছে ভৈরবের এই পাচঁটি জন উপকারি নদী। 

অতীতে নদীগুলোকে ঘিরে নদীর পাড়ে গড়ে উঠেছিল অনেক জনপদ ও হাট-বাজার। নদীকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা ওইসব হাট-বাজারে ব্যবসা বাণিজ্যের মাধ্যমে লক্ষাধিক মানুষ খুঁজে পেয়েছিল জীবন-জীবিকার পথ। তবে বর্তমানে যথাসময়ে খননের অভাবে শুকিয়ে যাওয়া নদীগুলোতে মাছ ধরতে না পেরে পেট বাঁচাতে বাপ-দাদার পেশা ছেড়ে দিতে বাধ্য হচ্ছেন স্থানীয় জেলেরাও। 

আর এভাবেই নদীর পাড়ের জমজমাট হাট-বাজারের সেই চিত্র পাল্টে স্থবির হয়ে পড়েছে নদীকেন্দ্রিক লাখ লাখ মানুষের জীবন-জীবিকা। ফলে ভৈরবের মানচিত্র থেকে দিন দিন মুছে যাচ্ছে একসময়ের লাখো মানুষের জীবিকা নির্ভর এসব নদীর নাম। ছোট-বড় নানান প্রজাতির দেশি-বিদিশি মাছের প্রধান উৎস এসব এখন কেবলই কালের সাক্ষী। 

অপরদিকে বিভিন্ন নদীতে পানি শুকিয়ে যাওয়ায় ইতোপূর্বে স্থাপিত সেচ যন্ত্রগুলোও এখন পানির সঙ্কটে পড়েছে। ফলে সংশ্লিষ্ট সেচ যন্ত্রের আওতাধীন বোরো  জমিও পানির অভাবে প্রতি বছর এ সময়ে শুকিয়ে যায়। ফলে এ অঞ্চলে হুমকির মুখে পড়েছে বোরো আবাদ।

প্রতীকার স্বরুপ ব্রহ্মপুত্র নদের নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে  নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের অধীনে গত বছর ভৈরবে খনন কাজ শুরু করে কটিয়াদি পর্যন্ত ব্রহ্মপুত্র নদের ড্রেজিংয়ের কাজ শেষ করা হয়। তবে বর্তমানে ভৈরব জগন্নাথপুর, লক্ষীপুর, গাজীরটেক ও কালিকাপ্রসাদ এলাকায় এই নদ প্রায় পানিশূন্য। আর তাই কাজের কাজ কিছুই হয়নি বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।

এদিকে খননের অভাবে সুবিশাল মেঘনা নদীর আশুগঞ্জ ও ভৈরবের মাঝামাঝিতে প্রায় তিন কিলোমিটার নদী জুড়ে চর জেগে উঠেছে। যার নাম দেওয়া হয়েছে চরসোনারামপুর। বর্তমানে জনবসতির পাশাপাশি, স্কুল-কলেজসহ হাট-বাজারে জমজমাট এই চর।  

অন্যদিকে মেঘনা নদীর ভৈরব উপজেলার সাদেকপুর ইউনিয়নের মেন্দীপুর থেকে প্রবাহিত হয়েছে কালিনদী। এটি সাদেকপুর, রসুলপুর, মানিকদি অংশে বালুর চর জমেছে। আবার ওই চরের কিছু অংশে বোরোর আবাদ হয়েছে। বলতে গেলে শত বছরের কালিনদী এখন প্রায় মৃত। 

একই চিত্র ভৈরবের শীতলপাটি নদীর। উপজেলার আগানগর ইউনিয়নের মহেশপুর থেকে মেঘনা নদীর মোহনা থেকে শুরু লুন্দিয়া, বধুনগর, জাফরনগর, শ্রীনগর ও মাধপপুর পর্যন্ত এক সময়ের সুগভীর শীতলপাটি নদীর ১০ কিলোমিটার জুড়ে শুধুই হাঁটু পানি। ফলে ব্যাহত হচ্ছে ওই অঞ্চলের তিনটি বাজারের পণ্য পরিবহণ। এছাড়াও বছরের পর বছর ধরে বন্ধ রয়েছে শীতলপাটি নদীর দুইপাড়ের সেচ কাজ। 

এক সময়ের ঐতিহ্যবাহী কোদালকাটি নদী ছিল যাত্রীবাহী লঞ্চ চলাচলের অন্যতম প্রধান নদীপথ। এই নদী দিয়েই কিশোরগঞ্জের নিকলি, অষ্ট্রগ্রাম, মিঠামইন ও ইটনার হাওর অঞ্চলের মানুষদের পণ্য পরিবহন ও যাত্রী চলাচলের নিরাপদ নদীপথ এটি। যথাসময়ে নদী খনন না করায় কালের বিবর্তনে কোদালকাটি নদীতে এখন চাষাবাদ করছেন কৃষকরা।

যথাযথ কর্তৃপক্ষ পুনরায় নদীগুলোতে খননের মাধ্যমে নদীর নাব্যতা ফিরিয়ে আনার পাশাপাশি জমিতে সেচ কাজেরও সুবিধা সৃষ্টি করে বহুলোকের কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দেবেন এমনটাই প্রত্যাশা এলাকাবাসীর।

এই বিষয়ে ভৈরব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ইসরাত সাদমীন জানান, ভৈরবের কালিনদী, কোদালকাটি ও শীতলপাটি নদীর নাব্যতা যেন বজায় থাকে, সে ব্যাপারে পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। 

ভৈরব অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহনের পরিদশর্ক মো. শাহ আলম জানান, বড় দু'টি নদী মেঘনা ও ব্রহ্মপুত্র নদ খননের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দেয়া হয়েছে। অতি শিগগিরই নদী খননের জন্যে প্রতিনিধিদল পর্যবেক্ষণে আসবেন।



মন্তব্য