kalerkantho


ফুলবাড়িয়ায় অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগ

ফুলবাড়িয়া (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি   

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ২১:৫৯



ফুলবাড়িয়ায় অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগ

ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়ায় যৌতুকের জন্য চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস শিমু আক্তারকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে পাষণ্ড স্বামী ও তাঁর পরিবারের বিরুদ্ধে।

নিহত শিমু ধামর বেলতলী গ্রামের দরিদ্র সিরাজুল ইসলামের কন্যা। তিনি বেলতলী উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী। আজ মঙ্গলবার ভোরে স্বামীর বাড়িতে তাকে যৌতুকের জন্য পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে শিমুর চাচা মজিবুর রহমান জানান। মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭ টায় নিহতে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ।

এলাকাবাসী ও নিহতের পরিবারের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ধামর উত্তর পাড়া গ্রামের হুরমুত আলীর পুত্র শামিম আহাম্মেদের সাথে শিমুর প্রেমের সম্পর্ক ছিল। গত ৯ মাস পূর্বে ৭ম শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় শিমুকে বাড়ি থেকে নিয়ে পালিয়ে যায় শামিম। পরে দুই পরিবারের আলোচনার মাধ্যমে তাদের বিয়ের সিদ্ধান্ত হয়। স্থানীয় ইউপি সদস্য হাবিবুর রহমান লেবুর উপস্থিতি বাল্যবিবাহ হয় তাদের। বিয়ের কয়েক মাস পর থেকে যৌতুকের জন্য মারপিট করা হয় শিমুকে। গত দেড় মাস পূর্বে শশুড় বাড়ি থেকে এলইডি টিভি আনার জন্য স্ত্রী শিমুকে চাপ প্রয়োগ করে তার স্বামী ও শশুর শাশুড়ি। টিভি এনে না দেওয়ায় শিমুকে তার স্বামী ব্যাপক মারপিট করার পর পিত্রালয়ে চলে যেতে বলেন। এরপর থেকে আরো বেপরোয়া হয়ে ওঠে পাষণ্ড স্বামী।

গতকাল সোমবার রাতে যৌতুকের জন্য স্বামী স্ত্রীর মাঝে ঝগড়া হয়। শামীমের ভাই আবু সাইদ বলেন, আজ সকাল সাড়ে ৬ টার দিকে ঘরের বারান্দায় অজ্ঞান অবস্থায় ভাবীর (শিমু) মাথায় পানি দিতে দেখি। পরে জ্ঞান না ফিরলে হাসপতালে নেওয়ার পথে সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে মারা যায়। যতুটুকু শুনেছি ভাবীর পেটের ব্যাথা ছিল।

শিমুর চাচা মজিবুর রহমান বলেন, শামিম এলাকায় উশৃঙ্খল ছেলে হিসেবে পরিচিত। তার চাল-চলন ছিল বেপরোয়া। এলাকায় সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করতো। ধামর ফালুর বাজারে দোকানপাট ভাঙচুর ও মোটরসাইকেল অংগ্নিসংযোগ করায় তার বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা রয়েছে। যা বর্তমানে আদালতে বিচারাধীন। যে কারণে আমারা বিয়েতে রাজি ছিলাম না। স্থানীয় মেম্বার ও এলাকার গণ্যমান্যরাই তাদের বিয়ে দিয়েছেন।

ইউপি সদস্য হাবিবুর রহমান লেবু বলেন, স্কুলে পড়া অবস্থায় ছেলে ও মেয়ে প্রেম করে বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। পরে উভয় পরিবারের উপস্থিতে তাদের বিয়ে হয়। সেখানে আমি উপস্থিত ছিলাম।

স্বামী শামিম আহাম্মেদ বলেন, স্ত্রী শিমু দীর্ঘদিন যাবৎ পেটের ব্যাথায় অসুস্থ ছিল। রাতে পেটের ব্যাথা উঠলে সকালে হাসপাতালের নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, মাঝে মধ্যে আমাদের ঝগড়া হয়েছে। কিছুক্ষণ পরেই আবার সমাধান হয়েছে। আমার চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে কেন হত্যা করবো?

নিহত শিমুর পিতা সিরাজুল ইসলাম বলেন, কয়েকদিন আগে এলইডি টিভি যৌতুক দাবি করে শিমুর স্বামী। দরিদ্র হওয়ার জামাইয়ের চাহিদা পুরণ করতে না পারায় বিভিন্ন সময় শারীরিক নির্যাতন করতো। যৌতুকের জন্য আমার মেয়েকে স্বামী ও তার পরিববারের লোকজন পিটিয়ে হত্যা করেছে। আমি আমার মেয়ে হত্যার বিচার চাই।

ফুলবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ কবিরুল ইসলাম বলেন, মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। রাত ৮ টা পর্যন্ত মেয়েটির পরিবারের কেউ থানায় কোনো অভিযোগ দেয়নি। ময়না তদন্ত ছাড়া কিছু বলা যাচ্ছে না।



মন্তব্য