kalerkantho


সোনারগায়ঁ গাড়িতে আঁচড়

মেয়রের নির্যাতনের শিকার প্রতিবন্ধী অটোচালক হাসপাতালে

সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি   

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১৯:৪১



মেয়রের নির্যাতনের শিকার প্রতিবন্ধী অটোচালক হাসপাতালে

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও পৌরসভার মেয়রের গাড়িতে আঁচড় লাগায় নির্যাতনের শিকার নির্যাতিত অটো শ্রমিক জামাল হোসেন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। গত শনিবার মাগরিবের আজানের সময় বাংলাদেশ লোককারুশিল্প ফাউন্ডেশনের প্রধান ফটকের সামনে সোনারগাঁও পৌর মেয়র সাদেকুর রহমান অটোচালক ও তার ছোট ভাই প্রতিবন্ধী এক শিশুকে লাঠি দিয়ে আঘাত করে মারাত্মক জখম করে। পরে স্থানীয় সংগীতশিল্পী রিপন খান মেয়রের হাত থেকে রক্ষা করে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে বাড়ি পৌঁছে দেন।

আহত জামাল হোসেন জানান, মেয়রের গাড়িতে সামান্য ঘষা লাগায় প্রথমে তার চালক এসে আমাকে বেদম মারধর করে। তার পর মেয়র নিজে এসে তার হাতের লাঠি দিয়ে আমাকে মারতে থাকলে আমার মাথাসহ সারা শরীরে নিলা-ফুলা জখম হয় এবং আমার ডান চোখের উপরের অংশ কেটে রক্তাক্ত জখম হয়। এ সময় আমি, আমার ছোট ভাই ও আশপাশের লোকজন মেয়রের কাছে অনুরোধ করলে তার মন গলেনি। পরে রিপন খানের সহযোগিতায় আমি মুক্ত হই। ভয়ে আমি হাসপাতালে ভর্তি হতে পারিনি। কিন্তু শরীর ও মাথায় প্রচণ্ড ব্যথা থাকায় আজ সকালে সোনারগাঁ হাসপাতালে ভর্তি হই। ভর্তি হওয়ার পর মেয়রের লোক বলে পরিচিত শাহীন (লগগি শাহীন) সহ কয়েকজন এসে আমাকে বাড়ি পাঠিয়ে দিতে চায়। হাসপাতালে চিকিৎসা নিতেও ভয় পাচ্ছি, যদি মেয়রের লোক আমাকে হাসপাতালে মারধর করে, তবে আমাকে কে রক্ষা করবে।

আহত জামালকে দেখতে গিয়ে সোনারগাঁ থানা কউিনিটি পুলিশিংয়ের সভাপতি গাজী মুজিবুর রহমান কালের কণ্ঠকে জানান, এ অমানবিক নির্যাতন মেনে নেওয়া যায় না। একজন জনপ্রতিনিধি হয়ে অসহায় মানুষের উপর এমন অমানবিক নির্যাতনের তীব্র নিন্দা ও প্রশাসনের কাছে এর সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি। তিনি জানান, নির্যাতিত জামাল দীর্ঘ ৮ বছর ধরে তাদের বাড়িতে আশ্রিত আছে।

জন্ম থেকেই জামালের বাম হাতের পাঁচটি আঙুল অনেক ছোট। এ হাত নিয়ে সে কাজ করে সংসার চালায়। জামাল গরীব হওয়ায় মেয়রের বিরুদ্ধে কোনো রকম মামলা জড়াতে চান না বলে জানান। প্রধানমন্ত্রীর কাছে সে এর বিচার দাবি করেন।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলেও মেয়রকে পাওয়া যায়নি।



মন্তব্য