kalerkantho


যশোর-২ আসনে দলীয় প্রার্থী চায় বিএনপি

এম আর মাসুদ, ঝিকরগাছা (যশোর)    

২০ নভেম্বর, ২০১৮ ১২:১৪



যশোর-২ আসনে দলীয় প্রার্থী চায় বিএনপি

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যশোর-২ (ঝিকরগাছা-চৌগাছা) আসনে দলীয় প্রার্থী চায় বিএনপি। দীর্ঘ ২২ বছর ধরে এই আসনে বিএনপির ভোটাররা দলীয় প্রতীকে ভোট দিতে না পারায় তাঁরা ক্ষুব্ধ বলে জানিয়েছেন নেতাকর্মীরা।

এবার যদি বিএনপির প্রার্থী না দেওয়া হয় তাহলে দলটির অস্তিত্ব নিয়েও সংশয়ের বিষয়টি কেন্দ্রীয় নেতাদের জানিয়েছেন উপজেলা পর্যায়ের নীতিনির্ধারকরা।

এই আসনটিতে ভোটের দিক দিয়ে বিএনপির অবস্থান দ্বিতীয় হলেও জোটগত নির্বাচনের কারণে গত ২২ বছর ধরে বিএনপির ভোটাররা তাঁদের প্রতীকে ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারেনি। সর্বশেষ ১৯৯৬ সালে এই আসনে বিএনপির প্রার্থী অ্যাডভোকেট মোহাম্মাদ ইসহক ধানের শীষ প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে দ্বিতীয় হয়েছিলেন।

এরপর ২০০১ ও ২০০৮ সালে অনুষ্ঠিত সংসদ নির্বাচনে চারদলীয় জোটের প্রার্থী হিসেবে জামায়াতের অধ্যক্ষ আবু সাঈদ মোহাম্মাদ শাহাদৎ হোসেন দাঁড়িপাল্লা মার্কায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। আর ২০১৩ সালে বিএনপি নির্বাচন বর্জন করায় সেবারও ভোটাধিকার প্রয়োগ করা থেকে বঞ্চিত হয় দলটির কর্মী-সমর্থকরা। তাই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর দাবিতে স্বোচ্ছার হয়েছেন দলটির সংশ্লিষ্ট উপজেলা নেতৃবৃন্দ।

এ বিষয় থানা বিএনপির সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) হারুন-অর-রশীদ কালের কণ্ঠকে বলেন, দলীয় প্রার্থী দাবির বিষয়টি বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে জানানো হয়েছে। এবার দলীয় প্রার্থী না দিলে দলের অস্তিত্বও সংকটে পড়বে বলে তাঁকে অবহিত করার কথাও জানান তিনি। দলের স্থায়ী কমিটির ৫-৭ জন সদস্যসহ বেশ কয়েকজন নীতিনির্ধারকের সঙ্গে দলীয় প্রার্থীর দাবি নিয়ে কথা বলেছেন বলে তিনি দাবি করেন।

থানা বিএনপির ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক ইসমাইল হোসেন সোহাগ বলেন, দীর্ঘদিন থানা ছাত্রদলের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছি। বয়স ৪২ বছর পার হলেও আজো কোনদিন ধানের শীষে ভোট দিতে পারিনি মার্কা না থাকায়। থানা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক তরিকুল ইসলাম বলেন, এবার সংসদ নির্বাচনে বিএনপির দলীয় প্রার্থী না হলে দলটির এই প্রজন্মের ভোটারদের বঞ্চিত করা হবে। সব মিলিয়ে এই আসনে বিএনপির প্রবীণ-নবীন ভোটাররা চায় দলীয় প্রার্থী।



মন্তব্য