kalerkantho


নরসিংদীতে সংঘর্ষে তিনজন নিহতের দুইদিন পরও মামলা হয়নি

নরসিংদী প্রতিনিধি   

১৮ নভেম্বর, ২০১৮ ২১:৫৭



নরসিংদীতে সংঘর্ষে তিনজন নিহতের দুইদিন পরও মামলা হয়নি

নরসিংদীর রায়পুরার চরাঞ্চলে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে তিনজন নিহত হওয়ার দুইদিন পরও মামলা দায়ের হয়নি। পুলিশি তদন্তে বেরিয়ে আসা বাঁশগাড়ীতে সংঘর্ষের ঘটনার মূলহোতা জাকির হোসেন ও কবির সরকার এবং নিলক্ষার সংঘর্ষের মূলহোতা ছমেদ আলী ও শহিদ মেম্বারকেও আটক করতে পারেনি পুলিশ। সংঘর্ষের পর থেকে বাঁশগাড়ী ও নিলক্ষা ইউনিয়নজুড়ে বিরাজ করছে থমথমে পরিস্থিতি।

পুলিশের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত শুক্রবার সকালে রায়পুরা উপজেলার দুর্গম চরাঞ্চল বাঁশগাড়ীতে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে চলমান বিরোধের জের ধরে প্রয়াত চেয়ারম্যান সিরাজুল হকের অনুসারী কবির সরকারের নেতৃত্বে প্রতিপক্ষ সাবেক চেয়ারম্যান প্রয়াত হাফিজুর রহমান শাহেদ সরকারের অনুসারী জাকির হোসেনের সমর্থকদের উপর হামলা চালায়। এতে তোফায়েল হোসেন নামে একজন গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন।

এদিকে ওইদিনই দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত নিলক্ষা ইউনিয়নেও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বর্তমান চেয়ারম্যান তাজুল ইসলামের অনুসারী ছমেদ আলীর নেতৃত্বে প্রতিপক্ষ সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল হকের অনুসারী সহী মেম্বারের সমর্থকদের উপর হামলা চালায়। এতে দুপক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়লে প্রথমে তাজুল ইসলামের সমর্থক সোহরাব হোসেন ও পরে আবদুল হক সরকারের সমর্থক স্বপন মিয়া নামের দুজন গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান। আহত হয় কমপক্ষে ৫০ জন।

এ ঘটনায় পুলিশ নিলক্ষা এলাকা থেকে ৯ টি আগ্নেয়াস্ত্র, ৪ রাউন্ড গুলিসহ ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করে। এ ঘটনায় অস্ত্র মামলায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হয়। কিন্তু নিহতের পরিবারের লোকজন কোনো অভিযোগ দায়ের না করায় আজ রবিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত কোনো হত্যা মামলা হয়নি।

এদিকে সংঘর্ষের পর থেকে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। আর হত্যা মামলা দায়ের করার জন্য নিহতদের পরিবারকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মামলা দায়ের করা হবে।

এদিকে ময়নাতদন্ত শেষে নিহতদের লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তরের পর জানাজা শেষে শনিবার রাতে দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

রায়পুরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মহসিন উল কাদির কালের কণ্ঠকে বলেন, এখন পর্যন্ত নিহতের ঘটনায় মামলা দায়ের হয়নি। তবে আমরা নিহতের পরিবারের লোকজনের সঙ্গে যোগাযোগ করেছি। তারা হয়তো আজ রাতে অভিযোগ দিতে পারে। আর আমরা মূল অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত আছে।



মন্তব্য