kalerkantho


বেনাপোল কাস্টমসে নতুন সফটওয়্যার ‘বেনাপাস’ উদ্ভাবন

বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি   

১৭ নভেম্বর, ২০১৮ ২২:২৫



বেনাপোল কাস্টমসে নতুন সফটওয়্যার ‘বেনাপাস’ উদ্ভাবন

রাজস্ব ফাঁকি রোধ ও আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যকে আরো গতিশীল করতে ‘বেনাপাস’ নামে একটি সফটওয়্যার উদ্ভাবন করেছে বেনাপোল কাস্টমস হাউস। সফটওয়্যারটি ইতোমধ্যে দেশ-বিদেশে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। নতুন এ সফটওয়্যার উদ্ভবনে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড বেনাপোল কাস্টমস হাউসকে পুরস্কৃত করেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বেনাপোল আন্তর্জাতিক চেকপোস্টকে সংস্কার ও বহিরাগতমুক্তকরণ, কার্গো ব্যবস্থাপনা, কাস্টমস ক্লাব, মাঠ, পয়নিষ্কাশন, সুপেয় পানি, সভাকক্ষ, শুল্কায়ন, পণ্য পরীক্ষণ, পণ্যজট, ট্রাকজট, ফোল্ডার চালু, শুল্কায়ন গ্রুপ বিভাজন, বাইপাস সডক চালু করা হয়েছে। এটি এখন দেশে-বিদেশে প্রশংসা পাচ্ছে।

বেনাপোলের সম্প্রতি বদলি হওয়া যুগ্ম কমিশনার আ আ ম আমিমুল ইহসানের নিবিড় পর্যবেক্ষণে প্রায় ১০ মাস আগে ‘বেনাপাস’ সফটওয়্যার নিয়ে শুরু করা হয় কাজ। কমিশনারের পরিকল্পনা ও একদল সফটওয়্যার কর্মী সাহস নিয়ে কাজে হাত দেন। প্রথম দিকে অনেক অসম্ভতার চোখ রাঙানি। যুগ্ম কমিশনার শাকিলা পারভীন, ডেপুটি কমিশনার সাঈদ আহম্মেদ রুবেল, সহকারী কমিশনার উত্তম চাকমা, আরও, এআরওর একটি দল, প্রকৌশলী হাসিবুর রহমান ও চ্যানেল আই প্রযোজক হানিফের সমন্বয়ে একটি দল এটি নিয়ে কাজ শুরু করেন এবং সফল হন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এসডিজি সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ বলন, বাণিজ্য সেবায় বেনাপোল কাস্টম হাউস কাজ করছে। বণিক, বাণিজ্য ও বেনাপোলবাসীর কল্যাণে গত এক বছরে বহু সংস্কার উদ্ভাবন হয়েছে। গত মাসে ভারতের দিল্লিতে অনুষ্ঠিত জয়েন্ট গ্রুপ অব কাস্টমসের মিটিংয়ে ‘বেনাপাস’ সফটওয়্যারটি প্রশংসিত হয়। ‘বেনাপাসে’র জন্য এটি বড় স্বীকৃতি।

তিনি বলেন, এ উপলক্ষে সম্প্রতি ঢাকার কাকরাইলের আইডিইবি’র নীচতলায় সম্মেলন কক্ষে ‘নাগরিক সেবায় উদ্ভাবন ইনোভেশন শোকেসিং’ অনুষ্ঠিত হয়। গত ছয় মাসে এনবিআরের কর্মকর্তাদের পাঁচটি উদ্ভাবন! অনেক বড় অর্জন অবশ্যই। ‘বেনাপাস’ নামটা সুন্দর হয়েছে, দেশের সব স্থলবন্দরকে এভাবে তৈরি হতে হবে।

অনুষ্ঠানে সিনিয়র সচিব, অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগ ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া ‘বেনাপাস’কে পুরস্কৃত করেন। শত ব্যস্ততার মাঝেও উদ্ভাবন কমিটিকে প্রচুর সময় দিয়েছেন। খুঁটিনাটি দেখে সংশোধন ও উদ্বুদ্ধ করেছেন। পুরস্কারও তুলে দেন বেনাপোল কাস্টমস কমিশনার মোহাম্মদ বেলাল হোসাইন চৌধুরীর হাতে। তিনি ‘বেনাপাস’ নির্মাতাদের নগদ পুরস্কার ও বিদেশে পাঠানোর আশ্বাসও দেন।

অনুষ্ঠানে কাস্টমস ও কর বিভাগের কমিশনার, অতিরিক্ত কমিশনার, যুগ্ম কমিশনার ও সহকারী কমিশনারসহ এনবিআরের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বেনাপোল কাস্টম হাউসের কমিশনার মোহাম্মদ বেলাল হোসাইন চৌধুরী জানান, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের নির্দেশনায়, অংশীজনের সমর্থন ও বেনাপোলীয় উৎসাহে এ অগ্রযাত্রা। রাজস্ব ফাঁকি রোধ ও আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যকে আরো গতিশীল করতে ‘বেনাপাস’ নামের সফটওয়্যারটি বেনাপোল কাস্টমস হাউস উদ্ভাবন করেছে। পুরস্কারের চিন্তা করে এসব হয়নি। কাজকে ভালোবেসে ‘আউট অব দ্য বক্স’ গিয়েছি। ‘বেনাপাস’ বেনাপোলীয় সবার।



মন্তব্য