kalerkantho


জগন্নাথপুরে বেড়িবাঁধ কেটে মাছ ধরার অভিযোগ

বোরো চাষাবাদ নিয়ে দুশ্চিতায় কাটছে কৃষকের দিন

জগন্নাথপুর (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি   

১৪ নভেম্বর, ২০১৮ ১৯:৪০



জগন্নাথপুরে বেড়িবাঁধ কেটে মাছ ধরার অভিযোগ

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে ফসলরক্ষা বেড়িবাঁধ কেটে পানি শুকিয়ে হাওরের মাছ ধরার অভিযোগ উঠেছে। এতে করে বোরো চাষাবাদ নিয়ে দুশ্চিতায় পড়েছেন কৃষকরা।

আজ বুধবার স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীদের কৃষকরা জানান, বোরো চাষাবাদের এখনই সময়। মাছ ধরার জন্য হাওরের পানি শুকিয়ে ফেলায় আমরা আবাদ করতে পারছি না। প্রশাসনিকভাবে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ করা না হলেও কৃষকরা বোরো আবাদ থেকে বঞ্চিত হবে।

এ বিষয়ে মঙ্গলবার বিকেলে জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করা হয়। লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, উপজেলার রানীগঞ্জ ইউনিয়নের গন্ধবপুর গ্রামের এখলাছুর রহমান ও হাবিজুর রহমান নামের দুই ব্যক্তি মইয়ার হাওরের ফসল রক্ষা বেড়িবাঁধ কেটে হাওরের পানি শুকিয়ে মাছ ধরছেন। এতে করে আগামী বোরো ফসল চাষাবাদের শুরুই কৃষকরা পানি সংকটে পড়েছেন।

গন্ধবপুর গ্রামের মোবশ্বির আলী জানান, মাছ ধরার জন্য গ্রামের প্রভাবশালী এখলাছুর রহমান মইয়ার হাওরের একটি ফসলরক্ষা রেড়িবাঁধ কেটে দেয়। ওই বাঁধের নীচে একটি কালভার্ট রয়েছে। বাঁধ কেটে কালভার্টের পানি নিষ্কাশনের প্রবেশপথ উন্মুক্ত করে দেওয়ায় হাওরের সব পানি পাশের কাটা নদীতে গিয়ে পড়ছে। ফলে হাওরে বোরো চাষাবাদের জন্য পানি সংকট দেখা দিয়েছে।

একই গ্রামের বর্গাচাষি কৃষক ফরাস মিয়া বলেন, গর্ন্ধবপুর গ্রামের শতাধিক কৃষক স্থানীয় পাটনার হাওরে বোরো আবাদ করে থাকেন। এর মধ্যে বেশিভাগ কৃষকই বর্গাচাষি। তিনি বলেন, ওই হাওরে কৃষকদের ৭০০ কেদার বোরো জমি চাষাবাদ হয়। পানি শুকিয়ে মাছ ধরার কারণে কৃষকদের বোরো চাষাবাদ বিঘ্নিত হওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

আরেক কৃষক আচর মিয়া বলেন, হাওরের পানি শুকিয়ে যাওয়ায় চাষাবাদ করতে পারছি না। জমিনের পানি শুকিয়ে যাওয়ায় বন জমে আছে ক্ষেতে। খুবই চিন্তায় পড়েছি আবাদ নিয়ে।

অভিযুক্ত গন্ধবপুর গ্রামের এখলাছুর রহমান বলেন, আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করা হয়েছে। আমরা বাঁধ কেটে পানি শুকিয়ে মাছ ধরছি না। 

জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহফুজুল আলম বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



মন্তব্য