kalerkantho


কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল

বকেয়া ভাতার জন্য আন্দোলনে শিক্ষানবিশ চিকিৎসকরা

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি   

২২ অক্টোবর, ২০১৮ ০১:২৭



বকেয়া ভাতার জন্য আন্দোলনে শিক্ষানবিশ চিকিৎসকরা

চার মাসের বকেয়া ভাতা পরিশোধের দাবিতে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের শিক্ষানবিশ চিকিৎসকরা আন্দোলনে নেমেছেন। গত শনিবার তাঁরা অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি শুরু করেন। গতকাল রবিবার সকালে এই চিকিৎসকরা বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেন। 
 
জানা গেছে, শিক্ষানবিশ এই চিকিৎসকরা কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিক্যাল কলেজ থেকে পড়াশোনা শেষ করেছেন। তবে ওই মেডিক্যাল কলেজের হাসপাতালের কার্যক্রম চালু না হওয়ায় তাঁরা জেনারেল হাসপাতালে শিক্ষানবিশ চিকিত্সক হিসেবে কাজ করছেন। 
 
আন্দোলনকারীদের মধ্যে আব্দুল্লাহ আল মামুন, রফিকুল ইসলাম ও আফিয়া ফাহমিদা মৌ সাংবাদিকদের জানান, শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিক্যাল কলেজের প্রথম ও দ্বিতীয় ব্যাচের মোট ৫৩ জন শিক্ষার্থী পড়াশোনা শেষ করে শিক্ষানবিশ চিকিত্সক হিসেবে গত ২৩ জুন তাঁদের অস্থায়ী ক্যাম্পাস জেনারেল হাসপাতালে যোগ দেন। তাঁরা প্রতিদিন সকাল ও রাতে দুই পালায় কাজ করে এলেও এখন পর্যন্ত কোনো বেতন-ভাতা পাননি। 
 
তাঁরা অভিযোগ করেন, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা ও গাফিলতির কারণে এ সমস্যা তৈরি হয়েছে। এ নিয়ে বারবার হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। ফলে তাঁরা চিকিত্সক হয়েও অর্থকষ্টে দিন কাটাচ্ছেন। প্রতি মাসে তাঁদের ১৫ হাজার টাকা করে সম্মানি ভাতা দেওয়ার কথা।
 
শিক্ষানবিশ চিকিৎসকরা জানান, তাঁদের কাজ হচ্ছে রোগীদের সেবা করা। কিন্তু দীর্ঘদিন ভাতা না পেয়ে বাধ্য হয়ে আন্দোলনে নেমেছেন তাঁরা। 
 
এদিকে চিকিৎসাসেবা বন্ধ করে শিক্ষানবিশ চিকিৎসকরা আন্দোলনে নামায় রোগীদের দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে বলে জানা গেছে।
 
এ বিষয়ে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. সুলতানা রাজিয়া বলেন, বিষয়টি নিয়ে তিনি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলেছেন। শিগগিরই শিক্ষানবিশদের বকেয়া বেতন-ভাতা পরিশোধ করা সম্ভব হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।


মন্তব্য