kalerkantho


প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হলো শারদীয় দুর্গোৎসব

শেরপুর প্রতিনিধি   

২০ অক্টোবর, ২০১৮ ০২:১৯



প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হলো শারদীয় দুর্গোৎসব

ছবি: কালের কণ্ঠ

সারাদেশের ন্যায় বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনা ও ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে গতকাল শুক্রবার শেরপুরে সনাতন ধর্মাবলাম্বীদের পাঁচ দিনব্যাপী শারদীয় দুর্গোৎসব শেষ হয়েছে। বিজয়া দশমীতে এদিন সন্ধ্যায় শহরের আড়াইআনি পুকুরে প্রতিমা বিসর্জন দেওয়া হয়। দুপুরের পর থেকে বিভিন্ন পূজামন্ডপের প্রতিমাগুলো আড়াইআনি পুকুর ঘাটে এনে সারিবদ্ধভাবে রাখা হয়। সেখানে ধুপ-ধোঁয়ার আড়তি, ঢাকের বাদ্যি আর উলুধ্বনিতে এক স্বর্গীয় আবেশের সৃষ্টি হয়। 

শহরের বিভিন্ন স্থান থেকে হিন্দু সম্প্রদায়ের নারী-পুরুষসহ অন্যান্য সম্প্রদায়ের মানুষের পদভারে বিসর্জন এলাকা লোকে-লোকারণ্য হয়ে ওঠে। বিসর্জনের আগে গোপাল জিউর মন্দির প্রাঙ্গণে মায়ের চরণে সিঁদুর ছোয়ানো অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ, শেরপুর জেলা শাখা। সেখানে হিন্দু নারীরা দুর্গা প্রতিমার চরণে সিঁদুর মাখিয়ে নিজেদের মধ্যে সিঁদুর খেলায় মেতে ওঠেন।

স্থানীয় সংসদ সদস্য হুইপ আতিউর রহমান আতিক দলীয় নেতৃবৃন্দসহ প্রতিমা বিসর্জন অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সঙ্গে বিজয়ার শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এ সময় গোপাল জিউর নাট মন্দির প্রাঙ্গণে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ, শেরপুর জেলা শাখার সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত দে ভানু’র সভাপতিত্বে হুইপ আতিক এমপি বক্তব্য রাখেন। বক্তব্যে দুর্গাপূজার ষষ্ঠীতে আগমনী শোভাযাত্রায় তার প্রতিশ্রুত শহরের পূজামন্ডপগুলোর সুন্দর ডেকোরেশন এবং ভালো আলোকসজ্জার জন্য ঘোষিত পুরস্কারের ফলাফল ঘোষণা করেন। 

এতে মাধবপুর কৃষ্ণমন্ডপ ও বটতলা ফ্রেন্ডস অ্যাসোসিয়েশন ক্লাব যুগ্মভাবে প্রথম স্থান, বাগবাড়ী মাতৃসেবা সংঘ ও বয়েজ ক্লাব যুগ্মভাবে দ্বিতীয় ক্লাব স্থান অধিকার করেছে। এ ছাড়াও চকবাজার সমবায় সংঘ ও মাধবপুর ক্লাব যুগ্মভাবে তৃতীয় স্থান অধিকার করেছে। পরবর্তীতে আনুষ্ঠানিকভাবে সেসব পূজামন্ডপের পরিচালকদের হাতে পুরস্কারের অর্থ প্রদান করা হবে বলেও জানান। 

এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট চন্দন কুমার পাল পিপি, পৌর মেয়র আলহাজ্ব গোলাম মোহাম্মদ কিবরিয়া লিটন, নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব পঙ্কজ কুমার পাল, অধ্যাপক ড. সৌমিত্র শেখর দে, জেলা আওয়ামী লীগ সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক মো. আনিসুর রহমান, উপ-দপ্তর সম্পাদক  বিনয় কুমার সাহা, শহর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পূজা উদযাপন পরিষদ সহ-সভাপতি প্রকাশ দত্ত, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদ সাধারণ সম্পাদক চন্দন সাহা, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নজরুল ইসলাম প্রমুখ।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ শেরপুর জেলা শাখার হিসাব মতে, এবার সদর উপজেলায় ৬৪টি, নকলা উপজেলায় ১৯টি, নালিতাবাড়ী উপজেলায় ৩৫টি, ঝিনাইগাতী উপজেলায় ১৬টি ও শ্রীবরদী উপজেলায় ৯টিসহ ১৪৩টি পূজামন্ডপে উদযাপিত হয় শারদীয় দুর্গাপূজা। 



মন্তব্য