kalerkantho


নোয়াখালীতে যুবকের দেহ থেকে হাত বিচ্ছিন্ন করে হত্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক, নোয়াখালী   

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৫:৪৬



নোয়াখালীতে যুবকের দেহ থেকে হাত বিচ্ছিন্ন করে হত্যা

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলায় রুবেল(২৫) নামে এক যুবককে তার দেহ থেকে হাত বিচ্ছিন্ন করে হত্যা করেছে সন্ত্রাসীরা। পূর্ব শত্রুতার জের ধরে গতকাল মঙ্গলবার রাতে সন্ত্রাসীরা রুবেলকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে তাকে কুপিয়ে জখম করে পালিয়ে যায়। আজ বুধবার সকালে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে জহিরুল হক নামে একজনকে আটক করেছে পুলিশ। 

নিহত রুবেল হবিগঞ্জ জেলার আবদুল আজিজের ছেলে। তিনি উপজেলার গোপালপুর ইউনিয়নের মহিব উল্লাহ গ্রামে তার নানার বাড়িতে থাকতো। 

নিহতের মামা মোর্শেদ আলম জানান, মহিবুল উল্লাহ গ্রামের বাসিন্দা মৃত মোবারকের ছেলে জাহাঙ্গীর (৪২) ও নুরুল সেলামের ছেলে মো. মজিব (৪০) এবং রুবেল একই সাথে এলাকায় চলাফেরা করতো। জাহাঙ্গীর সম্পর্কে রুবেলের মায়ের চাচাতো ভাই। তিন দিন আগে রুবেলের সাথে স্থানীয় জাহাঙ্গীর ও আবদুল মজিদের হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে এলাকাবাসী তাদের মধ্যে মিমাংসা করে দেয়। এরপরে গতকাল মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে জাহাঙ্গীর ও আবদুল মজিদ মুঠোফোনে রুবেলকে বাড়ির সামনে ডেকে নেয়। পরে তাদের বাড়ি থেকে কিছু দূর সামনে গিয়ে রুবেলের ওপর হামলা করে জাহাঙ্গীর ও মজিবের লোকজন।  এ সময় তাদের সাথে থাকা সন্ত্রাসীরা ধারালো ছুরি দিয়ে রুবেলের ডান হাত কেটে দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন করে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। খবর পেয়ে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। আজ বুধবার ভোরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় সে।
 
এ ব্যাপারে বেগমগঞ্জ থানার ওসি ফিরোজ আলম মোল্লা জানান, নিহত রুবেল, জাহাঙ্গীর ও আবদুল মজিদ এলাকায় সন্ত্রাসী হিসেবে পরিচিত।  এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে জহিরুল হক নামে একজনকে আটক করা হয়েছে। অন্যদের ধরার জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

নোয়াখালীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সৈকত শাহিন জানান, এলাকার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এ ঘটনা ঘটেছে। 



মন্তব্য