kalerkantho


রাস্তা নির্মাণে পৌর কর্তৃপক্ষের আংশিক উচ্ছেদ

গফরগাঁওয়ে পৌর বিধি অমান্য করে ভবন নির্মাণ

গফরগাঁও (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি   

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০৯



গফরগাঁওয়ে পৌর বিধি অমান্য করে ভবন নির্মাণ

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে পৌর বিধি অমান্য করে ভবন নির্মাণের কারণে পানি নিষ্কাশন বাধাগ্রস্ত হয়। বর্ষা মৌসুমে মারাত্মক জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। নিচু এলাকার বাসা বাড়িগুলোতেও পানি জমে মানবিক বিপর্যয় সৃষ্টি করে। গত রোববার পৌর কর্তৃপক্ষ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সংলগ্ন কেবিআই রোডে পৌর বিধি অমান্য করে নির্মিত ৮-৯টি বাসার বর্ধিত অংশ ভেঙে ২০০ মিটার দৈর্ঘ্যের একটি রাস্তা নির্মাণ কাজ শুরু করেন।

পৌরসভা সূত্রে জানা যায়, ১৯৯৯ সালে ৫.৩৩ বর্গকিলোমিটার এলাকা নিয়ে গফরগাঁও পৌরসভা গঠন করা হয়। জনসংখ্যা ৩৯ হাজার ৯৭৩ জন। হোল্ডিং সংখ্যা ৫ হাজার ২১৩টি। সড়ক বিটুমিনাস ৩৫. ৬০ কি.মি। সিসি ১০.৫০ কি.মি। সলিং ৪৩. ৪৩ কি. মি। কাঁচা ৩৮. ৬০কি.মি। এর মধ্যে সিসি ড্রেন মাত্র ১. ৭৫ কি.মি। ইটের পাকা ড্রেন ৯. ২৫ কি.মি। কাঁচা ড্রেন ১৮.০০কি.মি। বর্তমানে ৯টি ওয়ার্ডে পাকা ভবন রয়েছে ৯৩৫টি (ফাউন্ডেশন করা), আধা পাকা ভবন (উপরে টিন নিচে ইটের দেওয়াল) ২ হাজার ৮৮৮টি আর কাঁচা ১ হাজার ৫০৫টি। পৌরসভা গঠনের পর থেকে ৯টি ওয়ার্ডে অপরিকল্পিত বাসা বাড়ি গড়ে উঠলেও পর্যাপ্ত ড্রেনেজ ব্যবস্থা তৈরি হয়নি। 

পৌর নির্মাণ বিধি অনুযায়ী ভবন নির্মাণের সময় তিন দিকে ৩ ফুট করে এবং সামনে ৫ ফুট জায়গা খালী রাখা বাধ্যতামূলক। কিন্তু জমির মালিকরা ভবন নির্মাণের সময় পৌর কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিলেও নির্মাণ বিধি অমান্য করেন। তারা ভবনের চারদিকে খালী জায়গা তো রাখেনই না অনেক ক্ষেত্রে রাস্তা ঘেঁষে ভবন নির্মাণ করেন। ফলে পৌর কর্তৃপক্ষ পানি নিষ্কাশনের জন্য ড্রেন নির্মাণ ও পেছনের বাসা বাড়ির লোকজনের চলাচলের জন্য রাস্তা নির্মাণ করতে পারেন না। অপরিকল্পিতভাবে সড়কের পাশে ভবন নির্মাণ করায় বৃষ্টির সময় ভবনের ছাদ ও কার্নিশের পানি পথচারীদের গায়ে পড়ে এবং সামান্য বৃষ্টি হলেই পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডের বহু স্থানে জলাবদ্ধা সৃষ্টি হয়। তবে বর্তমান পৌর কর্তৃপক্ষ নির্মাণ বিধি বাস্তবায়নে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করেছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ৮ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা এক স্কুল শিক্ষক বলেন, বাসা বাড়ি নির্মাণের সময় জমির মালিকরা এতটাই কৃপণ, অবুঝ থাকেন যে এক ইঞ্চি জমিও ছাড়েন না। তাতে পেছনের বাসা বাড়ির বাসিন্দারা চরম বিপাকে পড়েন। পৌর কর্তৃপক্ষের তো দোষ নেই। তারা জায়গা না পেলে ড্রেন, রাস্তা নির্মাণ করবেন কি করে?

এ ব্যাপারে পৌর মেয়র এস এম ইকবাল হোসেন সুমন বলেন, পৌর বিধি না মেনে অপরিকল্পিতভাবে ভবন নির্মাণ করায় রাস্তার পাশে ড্রেন ও ভেতর দিকের রাস্তা নির্মাণ করা সম্ভব হয় না। ফলে জলাবদ্ধতা সৃষ্টিসহ লোকজনের চলাচলে সমস্যা তৈরি হয়। তাই অনেক ক্ষেত্রে বাধ্য হয়ে ড্রেন ও রাস্তা নির্মাণের জন্য কঠোর সিদ্ধান্ত নিতে হয়। 



মন্তব্য