kalerkantho


দেশি অস্ত্র ও মোটরসাইকেলসহ গ্রেপ্তার ৪

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি    

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৩:২১



দেশি অস্ত্র ও মোটরসাইকেলসহ গ্রেপ্তার ৪

গোপালগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ১৭টি রামদা, একটি মোটরসাইকেল ও বিভিন্ন মালামালসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে মাদকবিরোধী টাস্ক ফোর্স। গতকাল রবিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) রাতে কাশিয়ানী উপজেলার বিভিন্ন স্থানে থেকে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গোপালগঞ্জের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শোভন সরকার জানান, সারা দেশের মতো গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার বিভিন্ন স্থানে মাদকবিরোধী অভিযান চালানো হয়। এ সময় বরাশুর থেকে একটি মোটরসাইকেলসহ এই চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়ে। এর মধ্যে ফরহাদ হোসেন পলাশ নামের একজনের কাছ থেকে বিভিন্ন ধরনের অবৈধ কাগজপত্র উদ্ধার করা হয়। তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য গোপালগঞ্জ সদর থানাকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

গ্রেপ্তাররা হলেন কাশিয়ানী উপজেলার বড়াশুর গ্রামের আতিয়ার খাঁর ছেলে আশিক খাঁ (২৫), একই গ্রামের মুকুল চৌধুরীর ছেলে সোহেল চৌধুরী (২৮), একই উপজেলার চরভাটপাড়া গ্রামের সোলায়মান খান লুথুর ছেলে মহসিন খান (২৬) এবং একই গ্রামের মিজানুর রহমান মনির ছেলে প্রতারক ফরহাদ হোসেন পলাশ (৩৫)।

পরে আশিক খাঁর স্বীকারোক্তিতে তার বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ১৭টি দেশি অস্ত্র উদ্ধার (রামদা ও ছুরি) করা হয়।

অপরদিকে, একই উপজেলার কাশিয়ানীর কালনা ফেরিঘাট থেকে চাকরিচ্যুত বিজিবি সদস্য ফরহাদ হোসেন পলাশকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় তার কাছ থেকে ও গোপালগঞ্জ শহরের জনতা রোডের ভাড়া বাসায় অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন সিল, ইউনিয়ন পরিষদের সনদপত্র ও রেলে চাকরি দেওয়ার কাগজপত্র উদ্ধার করা হয়।

এ ব্যাপারে কাশিয়ানী থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে উল্লেখ করে গোপালগঞ্জ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ  অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক চৌধুরী ইমরুল হাসান বলেন, গ্রেপ্তারদের কাছে মাদক রয়েছে এমন খবর পেয়ে আমরা মাদকবিরোধী অভিযানে যাই। কিন্তু, গিয়ে দেখি সেখানে দেশি অস্ত্রের ঝনঝনানি রয়েছে। তখন আমরা মাদকবিরোধী ট্যাক্স ফোর্সের সমন্বয়ে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করি এবং দেশি  অস্ত্রশস্ত্র আটক করি। এ ঘটনায় কাশিয়ানী থানায় মামলা হয়েছে।

এ ব্যাপারে সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল) মো. ছানোয়ার হোসেন বলেন, অভিযোগকারী তিনজনের  বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলা হয়েছে। আজ সোমবার আদালতের মাধ্যমে তাদেরকে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।



মন্তব্য