kalerkantho


একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

যশোর-২ চৌগাছা-ঝিকরগাছা আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশী যারা

চৌগাছা ও ঝিকরগাছা (যশোর) প্রতিনিধি    

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৫:২২



যশোর-২ চৌগাছা-ঝিকরগাছা আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশী যারা

যশোর-২ চৌগাছা-ঝিকরগাছা আসনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে নেতা-কর্মী ও সাধারণ ভোটারদের মধ্যে চলছে নির্বাচন পূর্ব আলোচনা। কে পাচ্ছেন দলীয় টিকিট তা নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণেরও কমতি নেই। এই আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রতীক নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী ৮ জন, জাতীয় পার্টির ২ জন ও বিএনপি-জামায়াতের ৭ জন রয়েছেন। 

চৌগাছা-ঝিকরগাছা উপজেলা ভারত সীমান্তে অবস্থিত। ১৯৭১ সালে মিত্র বাহিনী ভারতীয় সৈন্য এই অঞ্চল দিয়ে প্রবেশ করে। এর পরিপ্রেক্ষিতে এলাকাকে স্বাধীনতার প্রবেশদ্বার বলা হয়। ১৯৭৭ সালে দুইটি উপজেলা নিয়ে গঠিত হয় যশোর-২ আসন।

বর্তমানে এই আসনটি আওয়ামী লীগের দখলে এবং শক্ত অবস্থানে রয়েছে। সে কারণে দলীয় গ্রুপিংও বিদ্যমান। অবশ্য নৌকার টিকিট পাওয়ার পর সকলে এক সাথে নির্বাচনী কাজ করার উদাহরণও লক্ষনীয়। এই আসন থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ৮ জন। তারা হলেন- বর্তমান সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. মনিরুল ইসলাম মনির, সাবেক বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী আওয়ামী লীগ নেতা অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম, চৌগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা এস, এম হাবিবুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী কমিটির সদস্য এ্যাড. এবি এম আহসানুল হক, যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতা আনোয়ার হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আলী রায়হান, আওয়ামী লীগ নেতা ডা: মেজর জেনারেল (অবঃ) নাসির উদ্দিন ও অধ্যক্ষ হারুন-অর-রশিদ। 

বিএনপি-জামায়াত জোটের মধ্যে গ্রুপিং থাকা সত্বেও দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীরা হলেন সাতজন। তারা হলেন- জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি অ্যাড. ইছাহক আলী, যুগ্ম সম্পাদক মিজানুর রহমান খান, সাবেক সংসদ সদস্য জামায়াতের মুহাদ্দিস আবু সাঈদ, চৌগাছা উপজেলা বিএনপির সভাপতি জহুরুল ইসলাম, ঝিকরগাছা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাবিরা নাজমুল, ঝিকরগাছা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোর্তজা এলাহী টিপু। 

এ ছাড়াও জাতীয় পার্টির মনোনয়ন প্রত্যাশীরা হলেন জেলা যুগ্ম সম্পাদক নুরুল কদর, ও বি এম সেলিম রেজা।
 
নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, দুটি উপজেলার মধ্যে চৌগাছা উপজেলায় মোট ১১টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা আছে। ইউনিয়নগুলো হলো- চৌগাছা, পাতিবিলা, হাকিমপুর, জগদীশপুর. ফুলসারা, সিংহঝুলী, পাশাপোল, ধুলিয়ানী, স্বরুপদাহ. নারায়নপুর ও সুখপুকুরিয়া। এসব ইউনিয়নে মোট গ্রাম ১৬৮টি। এখানে মোট জনসংখ্যা ২ লাখ ৩১ হাজার ৩৭০; এর মধ্যে মুসলিম ২ লাখ ১৩ হাজার, হিন্দু ১৭ হাজার ৩৩২, খ্রীষ্টান ২৬ জন ও অন্যান্য ৪৯ জন। এখানে মোট ভোটার ১ লাখ ৩৪ হাজার ৭৪৪; এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৬৬ হাজার ৫১৩ জন, আর মহিলা ভোটার ৬৮ হাজার ২৩১ জন। 

অপরদিকে ঝিকরগাছা উপজেলায় ১১টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা আছে। ইউনিয়নগুলো হচ্ছে ঝিকরগাছা, গদখালি, শিমুলিয়া, পানিসারা, নাভারণ, নির্বাসখোলা, হাজিরবাগ, শংকরপুর, বাঁকড়া, মাগুরা ও গঙ্গানন্দপুর। এসব ইউনিয়নে মোট গ্রাম ১৭৪টি। এখানে জনসংখ্যা ২ লাখ ৯৮ হাজার ৯০৮ জন; এর মধ্যে মুসলমান ২ লাখ ৮১ হাজার ৭৬২, হিন্দু ১৪ হাজার ৪০৮ জন, খ্রীষ্টান ২ হাজার ৬৪৯ জন, অন্যান্য ধর্ম ৮৯ জন। এখানে মোট ভোটার ১ লাখ ৭৬ হাজার ২৮৪ জন; এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৮৫ হাজার ৮৩ ও মহিলা ভোটার ৬১ হাজার ২২১ জন। তবে দুটি উপজেলায় হালনাগাদ আরও ভোট বাড়বে বলে নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে। 

প্রত্যেক দলের নেতা-কর্মীদের মধ্যে নির্বাচন নিয়ে চলছে আলোচনা-সমালোচনা। অনেকে প্রার্থীর যোগ্যতা, দলীয় প্রভাব, উন্নয়ন কর্মকাণ্ড ও মাঠ পর্যায় নেতাকর্মীদের সাথে সময় দেওয়া নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ করছেন। দলের প্রার্থী যেই হোক সকল গ্রুপিং বাদ দিয়ে এক সাথে কাজ করবেন বলে অনেকে অভিমত ব্যক্ত করেছেন।



মন্তব্য