kalerkantho


স্ত্রী হত্যার কথা স্বীকার যুবলীগ নেতা সেলিম মন্ডলের

মোবারক হোসেন, সিঙ্গাইর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি   

১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০২:৪২



স্ত্রী হত্যার কথা স্বীকার যুবলীগ নেতা সেলিম মন্ডলের

ছবি: কালের কণ্ঠ

সাভার উপজেলা যুবলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি ও ঢাকা জেলা পরিষদ সদস্য সেলিম মন্ডল তার দ্বিতীয় স্ত্রী আয়েশা আক্তার হত্যার দায় স্বীকার করেছেন। বুধবার মানিকগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হত্যার কথা স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন তিনি। এদিন বিকালে মানিকগঞ্জ পুলিশ সুপার রিফাত রহমান শামীম নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিক সম্মেলন করে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, দাম্পত্য কলহের জেরে গত ২ আগস্ট রাতে সাভারের মজিদপুর এলাকার ভাড়া বাসায় স্ত্রী আয়শাকে পিটিয়ে হত্যা করে সেলিম মন্ডল। ওই রাতেই আয়েশার লাশ মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর উপজেলার স্বরুপপুর এলাকায় এনে পেট্রল দিয়ে আগুন ধরিয়ে পালিয়ে যায়। গত ৩ আগস্ট সকালে আগুনে পোড়া লাশটি উদ্ধার করে সিঙ্গাইর থানা পুলিশ। জেলা সদর হাসপাতালে ময়না তদন্ত শেষে অজ্ঞাত হিসেবে লাশটি মানিকগঞ্জ পৌর কবরস্থানে দাফন করা হয়। 

এ ঘটনায় থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে পুলিশ। প্রথমে লাশের পরিচয় না পাওয়ায় মামলায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করা হয়। ১৭ দিন পর নিহতের ভাই বশির উদ্দিন সিঙ্গাইর থানায় এসে মৃতের ছবি দেখে লাশটি তার বোন আয়েশা আক্তারের বলে শনাক্ত করে। পরে বশির উদ্দিন তার বোন হত্যার অভিযোগে সেলিম মন্ডলকে প্রধান ও অজ্ঞাত আরো কয়েকজনকে আসামি করে সিঙ্গাইর থানায় মামলা দায়ের করেন। সেলিম মন্ডলকে ধরতে ১৯ আগস্ট তার সাভারের বাড়িতে অভিযান চালায় পুলিশ। সেদিন তাকে না পেয়ে তার ভাই জুয়েল মন্ডলকে অস্ত্রসহ আটক করা হয়। বর্তমান তিনি আয়েশা হত্যা মামলায় মানিকগঞ্জ জেলা কারাগারে আছেন। 

সিঙ্গাইর থানা পুলিশ জানান, সেলিম মন্ডল গত ২৮ আগস্ট স্ত্রী হত্যা মামলায় উচ্চ আদালত থেকে অস্থায়ী জামিন নেন। জামিনে থেকে তিনি ৪ সেপ্টেম্বর রাতে ইতালি পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। পালিয়ে যাওয়ার সময় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর অভিবাসন পুলিশ তাঁকে আটক করে সিঙ্গাইর থানায় হস্তান্তর করে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিঙ্গাইর থানার উপ-পরিদর্শক আনোয়ার হোসেন বলেন, স্ত্রী হত্যা মামলায় উচ্চ আদালত থেকে জামিনে থাকায় সেলিম মন্ডলকে অন্য একটি হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়। ৫ সেপ্টেম্বর ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে তাঁকে আদালতে হাজির করা হলে বিচারক তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এরই মধ্যে উচ্চ আদালত তার জামিনাদেশ বাতিল করে। গত রবিবার স্ত্রী আয়েশা হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে সেলিম মন্ডলকে আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়। ৯ আগস্ট ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে আদালত। 

জিজ্ঞাসাবাদ করার এক পর্যায়ে সেলিম মন্ডল স্ত্রী আয়েশা আক্তারকে হত্যার কথা স্বীকার করে। এর প্রেক্ষিতে বুধবার মানিকগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নিভানা খায়ের জেসির আদালতে হাজির করা হয়। আদালতে তিনি স্ত্রী হত্যার দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন।

আয়েশা আক্তারের ভাই বশির হোসেন জানান, বিয়ের পর স্ত্রী আয়েশা আক্তারের সঙ্গে সেলিম মন্ডলের বনিবনা হচ্ছিল না। গত ২৮ জুলাই একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে তাঁর বোন আয়শা আক্তারের সঙ্গে সেলিম মন্ডলের কথা কাটাকাটি হয়। সেলিম মন্ডল তখন আয়েশাকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। গত ২ আগস্ট আয়েশাকে হত্যা করে সেলিম মন্ডল। হত্যার ঘটনা ধামাচাঁপা দিতে স্ত্রীর সন্ধান দাবি করে ১৪ আগস্ট সাভার মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করে সেলিম মন্ডল। গত ৩ আগস্ট আগুনে পোড়া একটি লাশ উদ্ধার করে সিঙ্গাইর থানা পুলিশ। খবর পেয়ে ১৭ দিন পর  সিঙ্গাইর থানায় গিয়ে মৃতের ছবি দেখে লাশটির তার বোনের বলে নিশ্চিত হন তারা।



মন্তব্য