kalerkantho


'বঙ্গবন্ধু একজন বহুমাত্রিক নেতা ছিলেন'

নীলফামারী প্রতিনিধি    

১৭ আগস্ট, ২০১৮ ১৬:৫২



'বঙ্গবন্ধু একজন বহুমাত্রিক নেতা ছিলেন'

'যারা বঙ্গবন্ধুকে অস্বীকার করেন তারা বাংলাদেশকে অস্বীকার করেন। বঙ্গবন্ধু শুধু জাতির পিতা নন, তিনি একজন বহুমাত্রিক নেতা ছিলেন। এটি আমার কোনো আবেগের কথা নয়, এটাই বাস্তবতা।'

আজ শুক্রবার সকাল ১১টার দিকে নীলফামারী শহরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনাসভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর।

সংস্কৃতিমন্ত্রী বলেন, ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে ৩০ লাখ মানুষ জীবন দিয়েছেন। তাঁর কথায় দেশের অগণিত মানুষ মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছেন। জয়বাংলা স্লোগানে সবাইকে এক করে দেশের মুক্তি সংগ্রামে জাগ্রত করেছিলেন। ১৯৭১ সালের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ ছিল তাঁর স্বাধীনতার ঘোষণা। স্বাধীনতা পরবর্তী হাজারো সমস্যার মাঝেও তিনি দেশটিকে সাজিয়েছেন। এখন দেশের অর্থনৈতিক  উন্নয়ন হচ্ছে। কৃষিতে বিপ্লব ঘটেছে। সারের পেছনে মানুষ ঘোরে না, সার নিতে গিয়ে মানুষ আর মরে না।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলিমুদ্দিন বসুনিয়ার সভাপতিত্বে আলোচনাসভায় বক্তব্য দেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দেওয়ান কামাল আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক মমতাজুল হক, জেলা কৃষক লীগের সভাপতি অক্ষয় কুমার রায়, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাক রাবেয়া আলীম, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুজার রহমান, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মসফিকুল ইসলাম, জেলা যুবলীগের সভাপতি রমেন্দ্র নাথ বর্ধন, জেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি আরিফা সুলতানা, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মনিরুল হাসান শাহ প্রমুখ।

এর আগে দলীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে একটি শোক র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে শহীদ মিনার চত্বরে আলোচনাসভায় মিলিত হয়।



মন্তব্য