kalerkantho


ফরিদপুর বিএনপির তিন নেতার বিরুদ্ধে অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ফরিদপুর    

১৪ আগস্ট, ২০১৮ ১৫:৩২



ফরিদপুর বিএনপির তিন নেতার বিরুদ্ধে অভিযোগ

ফরিদপুর কোতোয়ালি থানা বিএনপির জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি আব্দুর রউফ মিয়া, সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হাসান রঞ্জন ও সাংগঠনিক সম্পাদক শাহ শফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগ এনেছেন একই কমিটির সভাপতি রউফ উন নবী। এ ব্যাপারে কেন্দ্রীয় বিএনপির কাছে একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন তিনি।

দীর্ঘদিন জেল জুলুম ও হামলা মামলা মোকাবেলা করে সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে আসছেন দাবি করে রউফ উন নবী বলেন, 'এখনও আমার বিরুদ্ধে  ১৯টি মামলা রয়েছে। কিন্তু দুঃখের বিষয় গঠনতন্ত্র উপেক্ষা করে অসাংগঠনিকভাবে ওই তিন নেতা এক প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে আমাকে সভাপতির পদ থেকে  অব্যাহতি এবং জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি আব্দুর রউফ মিয়াকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি করা হয়েছে বলে জানান।

রউফ উন নবী বলেন, থানা কমিটি কখনও কোনো নেতাকে তার পদ থেকে অব্যাহতি ও ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে অন্য কাউকে স্থলাভিষিক্ত করতে পারে না। এভাবে চূড়ান্ত অনুমোদনের আগে কাউকে অব্যাহতি কিংবা স্থালাভিষিক্ত করার তথ্য গণমাধ্যমে প্রেস বিজ্ঞপ্তি দেওয়া দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থী বলে উল্লেখ করেন তিনি।

রউফ উন নবী বলেন, গঠনতন্ত্রের ৩ এর 'গ' ধারা অনুযায়ী দলের স্থায়ী কমিটির সভায় অথবা স্থায়ী কমিটি সভা করতে না পারলে দলের চেয়ারম্যান এরূপ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ অথবা প্রত্যাহার করতে পারবেন। তবে এ ক্ষেত্রে যত দ্রুত সম্ভব দলের স্থায়ী কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্তের অনুমোদন নিতে হবে। তার আগে প্রয়োজনবোধে অভিযুক্তকে ব্যক্তিগত শুনানির জন্য তাকে নোটিশ দিতে হবে। এ ছাড়া অনুচ্ছেদ- ১৫ এর 'ছ' ধারায় সংগঠনের পদধারী কারো বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের পূর্বে স্ব-স্ব ইউনিটের উর্ধ্বতন কমিটির অনুমতি গ্রহণ করতে হবে। শাস্তিমুলক ব্যবস্থা গ্রহণের পূর্বে কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির অনুমোদন বাঞ্ছনীয়।

কোতোয়ালি থানা বিএনপির সভাপতি রউফ উন নবীর আরও বলেন, আমাকে অব্যাহতির ব্যাপারে তো জেলা কমিটিই এখনো সুপারিশ করেনি। দলের চেয়ারম্যান, স্থায়ী কমিটি বা জাতীয় কমিটির কোনো প্রকার অনুমোদনও নেই এ সিদ্ধান্তে। তাই আমাকে কমিটির সভাপতি থেকে অব্যাহতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে সংবাদপত্রে পাঠানোই প্রকৃত অর্থে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ। তিনি বলেন, বিষয়টি আমি কেন্দ্রীয় নেতাদের জানিয়েছি এবং একই সঙ্গে তাদের এ ধরনের  কর্মকাণ্ডের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাচ্ছি।

গত ১০ আগস্ট কোতোয়ালি বিএনপির সভায় দলীয় কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ না করার অভিযোগে রউফ উন নবীকে দলীয় পদ থেকে অব্যাহতি প্রদানের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এ ছাড়া জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি আব্দুর রউফ মিয়াকে সভাপতির দায়িত্ব দেওয়া হয়। সিদ্ধান্তটি কোতোয়ালি বিএনপির সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হাসান রঞ্জন, সাংগঠনিক সম্পাদক শাহ শফিকুল ইসলাম এবং দপ্তর সম্পাদক অ্যাডভোকেট লুৎফর কবীর স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে গণমাধ্যমে জানানো হয়। 



মন্তব্য